যশোরে ভুমিদস্যু বাদশার বিরুদ্ধে এতিম পবিরারের সংবাদ সম্মেলন

0
291

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরের চিহ্নিত ভুমিদস্যু হারুনার রশিদ বাদশা মিয়ার বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ তুলেছেন। মঙ্গলবার সকালে প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন ওই এলাকার একটি অসহায় এতিম পরিবার।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, যশোর সদরের চাঁচড়া রেলগেট পশ্চিমপাড়ার মৃত জামাল আহম্মেদ খানের ছোট ছেলে ইমরান আহম্মেদ খান। লিখিত অভিযোগে বলেন, যশোরের চাঁচড়া রায়পাড়া এলাকার মৃত ওহাব মাষ্টারের ছেলে ভুমিদস্যু হারুনার রশিদ বাদশা এবং রেলরোড এলাকার বীরমুক্তিযোদ্ধা সোহরাব হোসেন খান দু’জনে মিলে তাদের শহরের রেলগেট পুরাতন বাসষ্টান্ডের দক্ষিনে অবস্থিত দুইতলা বিশিষ্ঠ (১৫টি ঘর) ভবনটি ভাড়া নিয়ে সেখানে শাহরিয়ার হোটেল নামে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। এসময় দু‘পক্ষের মধ্যে ঘরভাড়ার একটি চুক্তিপত্রও হয়। জমির দাগ নং- ৫৭৯। এরপর তারা ১৯৯০ সাল পর্যন্ত তাদের পিতার কাছে ঠিকমত ভবনের ভাড়া পরিশোধ করলেও পরবর্তিতে বাদশা মিয়া ওই সম্পত্তি দখলে নেয়ার লক্ষে, সে ভবনের ভাড়া দেয়া বন্ধ করে দেয়। এসময় তার ব্যবসায়ীক পার্টনার বীরমুক্তিযোদ্ধা সোহরাব হোসেন খানকেও হোটেল থেকে বিতাড়িত করে। এরপর থেকে সে একাই হোটেল ব্যবসা করে আসছে। এরই মধ্যে তার পিতা মৃত্যু বরণ করেন। বাদশা মিয়া তার পিতাকেও বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করেছে। এরপর একাধিক বার তার কাছে ভবনের ভাড়া চাইতে গেলে সে ভাড়া না দিয়ে তাদের জীবন নাশের হুমকিসহ বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করে আসছে। বাদশা মিয়ার কাছ থেকে ওই সম্পদ উদ্ধার করতে না পেরে তিনি সাংবাদিকদের মাধ্যমে এব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীসহ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। তার পিতা সহযোগী মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। তিনি মৃত্যু বরণ করায় সম্পদ হারিয়ে, বাদশা মিয়ার ভয়ে বর্তমানে তিন ভাই চার বোন নিয়ে বর্তমানে তারা মানবেতর জীবন যাপন করছেন। এরমধ্যে বাদশা মিয়া তার এবং তার বড়ভাই মুনসুর আহম্মেদ খান মুন্নাকে চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি মিথ্যা অভিযোগে পুলিশ দিয়ে আটক করায়। এরপর এলাকাবাসী এবং স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের অনুরোধে তাকে ছেড়ে দেয় এবং তার বড়ভাই মুন্নাকে একটি ১৫১ ধারায় আদালতে চালান দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। পরে তার ভাইকে আদালত থেকে মুক্ত করে আনেন। এসময় কোতয়ালি থানা পুলিশ তাদের নিকট থেকে ১লাখ টাকা উৎকোচ নেয় বলে তিনি সংবাদ সম্মেলনে জানান। ইমরান খান লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, এতিম ভাই-বোনদের নিয়ে তারা বাদশা মিয়ার ভয়ে সব সময় আতংগ্রস্থ হয়ে আছে। এছাড়া বাদশা মিয়া ভুমিদস্যুসহ সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক। সে যে কোন সময় তাদের ক্ষয়-ক্ষতি করতে পারে। এদিকে বাদশা মিয়া তার গড়ে তোলা আবাসিক হোটেলে মাদক বিকি-কিনিসহ নারী ব্যবসা করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৪ এপ্রিল যশোরের মালঞ্চি এলাকার আব্দুস সালামের স্কুল পড়–য়া কন্যা ১০ম, শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে সন্ত্রাসীরা অপহরণ করে শাহরিয়া হোটেলে আটক করে রেখে তাকে পালাক্রমে ধর্ষন করে। এখবর পেয়ে ২৭ এপ্রিল যশোর ডিবি পুলিশ শাহরিয়ার হোটেল থেকে স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধারসহ শাহরিয়া হোটেলের পরিচালক আহম্মদ আলি ও নাইটগাট ওসমান সরদারকে ডিবি পুলিশ আটক করলেও হোটেল মালিক বাদশা মিয়া রয়ে গেছে ধরা ছোরার বাইরে। এদিকে বাদশা মিয়া গত ১৯৯৬ সালে ওই হোটেলে এক মহিলার সাথে অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকা অবস্থায় পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। এসময় প্রায় ১মাস হাজতবাস শেষে সে আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পায়। তাছাড়া বাদশামিয়া নামে ১৯৮৩-৮৪ সালে তার নামে খুলনার কয়রা থানায় গ্যাংকেচসহ বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা হয়। তারা সন্ত্রাসী ও ভুমিদস্যু বাদশা মিয়ার হাত থেকে রক্ষাপেতে তাদের সম্পদ উদারের জন্য প্রধানমন্ত্রী ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা সোহরাব হোসেন খান, মুক্তিযোদ্ধা আরশাদ আলি, মুক্তিযোদ্ধা মোঃ শহীদ, রেলগেট এলাকার শফিকুল আলম বাবুলও মোঃ নুর ইসলাম। বীরমুক্তিযোদ্ধা সোহরাব হোসেন খান সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, ১৯৮২ সালে বাদশা মিয়া এবং তিনি জামাল আহম্মেদ খানের নিকট থেকে ওই ভবটি ভাড়া নেন। এরপর ১৯৯০ সাল পর্যন্ত ওই ভবনের ভাড়া তারা পরিশোধ করেন। পরবর্তিতে বাদশা মিয়া ওই সম্পদ দখলের জন্য তাকে হোটেল থেকে বিতাড়িত করেন বাদশা মিয়া।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here