যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় ১১ মাসে ১ হাজার ৬শ’ ৩৬টি মামলা নথিভূক্ত

0
435

মাদক আইনে মামলার অবস্থান শীর্ষে নভেম্বর মাসে ১শ’ ২৭টি মামলা রেকর্ড
এম আর রকি : গত ১১ মাসে যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় ১ হাজার ৬ শতাধিক মামলা নথিভূক্ত হয়েছে। মামলা গুলির মধ্যে মাদক আইনের মামলার সংখ্যা প্রায় ১ হাজার। বাকী মামলা গুলি খুন,ডাকাতি,রাজনৈতিক সংঘর্ষের ঘটনায় বোমা বিস্ফোরণ,অস্ত্র,চোরাচালানী,মানব পাচার,বন্য প্রানী আইন,সরকারী কাজে বাধাদান,নীতি বর্হিভূত,অবৈধ অনুপ্রবেশ, সন্ত্রাস দমন,দস্যুতা,চুরি,প্রতারণা,নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, নারী ও শিশু পাচার প্রতিরোধ দমন,দাঙ্গা,হামলাসহ বিভিন্ন ধরনের।
কোতয়ালি থানায় খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,গত নভেম্বর মাসের শুরু থেকে ৩০ নভেম্বর শেষ দিন পর্যন্ত ১শ’ ২৭টি মামলা নথিভূক্ত হয়েছে। প্রতিমাসে শতাধিক মামলা রেকর্ড হচ্ছে। অক্টোবর মাসের চেয়ে নভেম্বর মাসে মামলা রেকর্ড হয়েছে কম। অক্টোবর মাসে মামলা রের্কডের সংখ্যা ১শ’ ৩৬টি। এভাবে প্রতিমাসে শতাধিক মামলা রেকর্ড হচ্ছে। মামলাগুলির মধ্যে মাদক মামলার সংখ্যা সিংহভাগ। মাদক মামলা রেকর্ড সৃষ্টি করে চলেছে। যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় যে পরিমানের মাদক মামলা নথিভূক্ত হয়েছে পৃকতভাবে মামলাগুলি পর্যালোচনা করলে যশোরে আর মাদক ব্যবসায়ী কিংবা বিক্রেতা থাকে না। তার পরও যশোরে প্রতিনিয়ত মাদক বেচাকেনার অভিযোগে কোতয়ালি মডেল থানায় কর্মরত এসআই,এএসআই ও থানার অর্ন্তগত পুলিশ ক্যাম্প,তদন্ত কেন্দ্র ও ফাঁড়ি পুলিশের কর্মকর্তা মামলা দিচ্ছে। মাদক নির্মূলে যশোরের পুলিশ সুপার দু’দফা ১শ’ দিনের কর্মসূচীর দ্বিতীয় দফা অতিবাহিত করছে। জেলা পুলিশ মাদকের ব্যাপারে যে বলিষ্ট ভূমিকা প্রতিনিয়ত রাখছে তাতে মাদক ব্যবসা ও বেচাকেনা জিরো টলারেন্সে চলে আসার কথা থাকলেও তা হচ্ছে না। পুলিশের দায়ের করা মাদক মামলার পরিমান গত ১১ মাসে প্রায় ১হাজার ছুঁইছুঁই। মাদক মামলার বাদে যে মামলা নথিভূক্ত হয়েছে সে গুলির মধ্যে রাজনৈতিক সংঘর্ষ,খুন,ডাকাতি,দস্যুতা,চুরি,বিস্ফোরক,সন্ত্রাস দমন আইন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন,মানব পাচারসহ অন্যান্য ঘটনায়। খোঁজ নিয়ে আরো জানাগেছে,যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখায় কর্মরত দু’টি এসআই ও এএসআইয়ের শহরের পুরাতন কসবা এলাকার বাসা বাড়িতে চুরির ঘটনায় নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকর উদ্ধার হয়নি। তাছাড়া,যে সব মোটর সাইকেল চুরির মামলা রেকর্ড হয়েছে। চুরি যাওয়া মোটর সাইকেল উদ্ধার হয়নি। নির্ভরযোগ্যসূত্রগুলো জানিয়েছেন,চলতি বছরের প্রায় শেষ পর্যায়। থানায় রেকর্ডকৃত মামলা গুলির মধ্যে অধিকাংশ মামলার নিষ্পত্তি নিয়ে দেখা দিয়েছে নানা সংশয়। দাঙ্গা,হামলা মামলায় জখমী সনদপত্রের অভাবে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা চার্জশীট দাখিল করতে পারছেনা। এর জন্য মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হাসপাতালের চিকিৎসকদের অবহেলাকে দায়ী করেছে। জখমী সনদ পত্রের অভাবে মামলা নিষ্পত্তি করতে চরম অসুবিধা দেখা দিয়েছে বলে তদন্তকারী কর্মকর্তা অনেকে বলেছেন। তারা জখমী সনদ পত্রের জন্য হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ও সিভিল সার্জনের মাধ্যমে বহুবার তাগিদ দিলেও সনদ না পাওয়ায় ঝুলে আছে অনেক মামলা। সূত্রগুলো জানিয়েছেন,রাজনৈতিক মামলাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন মামলার চার্জশীট হচ্ছে পর্যায়ক্রমে। তবে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,চার্জশীট দেয়ার পাশাপাশি অনেক মামলার চুড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here