যশোর জঙ্গী ও মাদক নির্মূলে একশ’ দিনের কর্মসূচীর ছয়দিন অতিবাহিত

0
329

প্রকৃত মাদক বিক্রেতা ও জঙ্গী নাগালের বাইরে
এম আর রকি : যশোর পুলিশ সুপার কর্তৃক জেলাকে জঙ্গী ও মাদক মুক্ত করার লক্ষ নিয়ে ১শ’ দিনের কর্মসূচীর গতকাল বুধবার ছয় দিন অতিবাহিত হয়েছে। কর্মসূচী ঘোষনা করার পর থেকে এ যাবত জঙ্গী তৎপরতার সাথে জড়িত পুলিশের তালিকায় থাকা জঙ্গী ও মাদকের বড় চালান উদ্ধারে তেমন কোন সফলতা আসেনি। তাছাড়া,মাদক বিক্রেতাদের মধ্যে যারা প্রকৃত ব্যবসায়ী তারাও ধরা ছোয়ার বাইরে রয়ে গেছে। তবে খুচরা বিক্রেতারা তেমন একটা ধরা না পড়লেও সেবনকারীরা ধরা পড়ছে। আবার সেবনকারী না হয়েও অনেকে ধরা পড়ছে পুলিশের ধর পাকড়ের অভিযানের মধ্যে। সফলতা দেখাতে পুলিশের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা কে সেবনকারী কে বিক্রেতা তার বাদ বিচার করা হচ্ছেনা। তবে প্রতিদিন মাদকদ্রব্যসহ গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানাসহ জেলার বিভিন্ন থানায় মামলা রুজু করা হচ্ছে। গত ছয় দিনে অন্তত ৫০জন নারী পুরুষ মাদকসহ ধরা পড়েছে ।
গত ৬ ফেব্রুয়ারী সোমবার যশোরের পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান মাদক ও জঙ্গীর প্রতিকার বাংলাদেশ পুলিশের অঙ্গীকার এই শ্লোগানকে সামনে রেখে মাদক নির্মূলে যশোর জেলা পুলিশের ১শ’ দিনের কর্মসূচী ঘোষনা করেন। পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানিয়ে তাদের সাথে মতবিনিময় সময় তিনি মাদক ও জঙ্গী দমনে ১শ’ দিনের কর্মসূচী ঘোষনা করেন। মতবিনিময় সভায় তিনি সাংবাদিকদের মাধ্যমে রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে আহবান জানান যে তাদের ব্যানারে সভা-সমাবেশে অন্তত ১৫মিনিট মাদক বিরোধী বক্তব্য রাখতে। পুলিশ সুপার কর্তৃক সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় করার পর থেকে যশোরে সরকারী ও বিরোধীদলের তেমন কোন সভা-সমাবেশ অনুষ্ঠিত না হওয়ায় পুলিশ সুপারের আহবান রাজনৈতিক দলগুলের মধ্যে তেমন সাড়া পায়নি। তবে মাঠ পর্যায়ে কর্মরত পুলিশের এসআই,এএসআইগন পুলিশ সুপারে পদক্ষেপকে বাস্তবায়ন রুপ দিতে অভিযান অব্যাহত রাখলেও উল্লেখযোগ্য সফলতা আনতে পারছেনা। খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, ১০ ফেব্রুয়ারী থেকে একশ’ দিনের জঙ্গী ও মাদক দমনে অভিযান শুরু হলেও যশোরে বড় মাপের অর্থাৎ তালিকা ভূক্ত মাদক ব্যবসায়ী ও পুলিশের খাতায় অর্ন্তভূক্ত জঙ্গী কেউ ধরা পড়েনি। তবে মাদক বিক্রেতা যা ধরা পড়েছে তার মধ্যে সেবনকারীর সংখ্যা বেশী। তাছাড়া,মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী না হয়েও পুলিশের হাতে গ্রেফতার হচ্ছে অনেকে। নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো বলেছে,পুলিশ সুপারের একশ’ দিনের কর্মসূচী ঘোষনার সময় সীমা শুরুর দিন হতে প্রকৃত মাদক বিক্রেতা ও ব্যবসায়ী যশোর জেলা ছেড়ে অন্য জেলায় গিয়ে আস্তানা গেড়েছে। জঙ্গীর তালিকায় যারা রয়েছে তারাও একই পথ অবলম্বন করেছেন। যার ফলে প্রকৃত জঙ্গী ও মাদক বিক্রেতা এবং ব্যবসায়ীরা থাকছে ধরা ছোয়ার বাইরে। সূত্রগুলো আরো জানায়,পুলিশ সুপারের একশ’ দিনের কর্মসূচী শেষ হলে প্রকৃত মাদক বিক্রেতারা আবার ফিরে আসবে তার ব্যবসার কেন্দ্রবিন্দু এলাকাতে।এখন তাদেরকে আর দেখা যাচ্ছেনা। যার ফলে প্রকৃত মাদক বিক্রেতা ও ব্যবসায়ীরা পুলিশের ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে যারা মাদক বিক্রির সাথে জড়িত নয় তবে সেবনকারী তারা ধরা পড়ছে প্রতিনিয়ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here