যশোর ডিবি পুলিশ পরিচয় শার্শার রুদ্রপুর গ্রাম থেকে দু’ ব্যবসায়ীকে ধরে ৪০লাখ টাকা উৎকোচ দাবির খবর ফাঁস

0
348

এম আর রকি : ডিবি পুলিশ পরিচয়ে যশোরের শার্শা উপজেলার রুদ্রপুর বাজারের ভূষি মাল ব্যবসায়ী মো: শুকুর আলী ও আব্দুর রশিদ নাকে দু’ ব্যক্তিকে তুলে নিয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গত ৫ দিনেও তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করা হয়নি। তুলে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে তাদের পরিবারের সদস্যদের কাছে মোটা অংকের উৎকোচ দাবি করা হয়েছে বলে আটক ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্য ওই এলাকার বিভিন্ন ব্যক্তিদের মাঝে জানাজানি হয়ে গেছে।
যশোরের শার্শা উপজেলার রুদ্রপুর গ্রামের নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেকে জানায়,গত শুক্রবার দুপুর আনুমানিক ১২ টায় যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ পরিচয় একজন এসআই,এএসআইসহ কয়েকজন পুলিশ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দোহায় দিয়ে ওই গ্রামের মৃত মিয়ারাজের ছেলে মো: শুকুর আলীকে তুলে নিযে আসে। শুকুরকে ডিবি অফিসে রেখে স্বর্ণচোরাচালানী মামলায় তার সাথে বছর ১০ পূর্বে কে ধরা পড়ে তা জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে একই গ্রামের মৃত হেকমত আলীর ছেলে আব্দুর রশিদের কথা বলে। শনিবার রাতে আব্দুর রশিদকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে আসে। তাদের দু’জনকে আটকে রেখে ৪০ লাখ টাকা দাবি করা হয়। টাকা না দিলে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখাতে থাকে।সূত্রটি জানিয়েছেন, মো: শুকুর আলী ও আব্দুর রশিদ বিগত বছর ১০ পূর্বে স্বর্ণচোরাচালানী মামলায় ধরা পড়ে জেল খেটে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসে। শুকুর আলী রুদ্রপুর বাজারে ভূষি মালের ব্যবসা শুরু করে। বাজারের সূত্রগুলো জানিয়েছেন,শুকুর আলী ভূষি মালের ব্যবসা করে পরিবার পরিজন নিয়ে স্বাভাবিকভাবে জীবন যাপন করছে। শুক্রবার দুপুরে শুকুর আলী ও শনিবার রাতে আব্দুর রশিদ গ্রেফতারের হওয়ার পর শুকুর আলীর বড় ভাই সাফেদ আলী ও তার ছেলে শরিফুল,আব্দুর রশিদের পরিবারের সদস্যরা স্থানীয় কায়বা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান টিংকুর কাছে যান। সূত্রগুলো বলেছে,টিংকু চেয়ারম্যানের কাছে দু’জনের ব্যাপারে মাথাপিছু ৪০ লাখ টাকা দাবি করা হয়। টাকা না দিলে তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা দিয়ে হয়রানীসহ নানা ভীতি দেখানোর কথা বলে। শুক্রবার দুপুর থেকে গতকাল মঙ্গলবার গত ৫দিন যাবত আটক দু’জন জেলা গোয়েন্দা কার্যালয়ে রয়েছে চরম সর্তকতার মধ্যে হ্যান্ডকাপ পরিহিত অবস্থায় রাখা হয়েছে বলে আটককৃতদের পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন। মো: শুকুর আলী ও আব্দুর রশিদকে আটকের ব্যাপারে জেলা গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তাদ্বয় অস্বীকার করেছেন। সূত্রগুলো আরো জানায়,মঙ্গলবার আটক হওয়া দু’জনের ব্যাপারে ফলপ্রসু আলোচনা হয়েছে। দাবি পুরণ হলে আজ বুধবার তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হবে। গত শুক্রবার দুপুরে শুকুর আলী ও শনিবার রাতে আব্দুর রশিদ আটকের ব্যাপারে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তার কাছে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তারা বিষয়টি অস্বীকার করেন। সর্বশেষ জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অফিসার ইনচার্জ ইমাউল হকের সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি শুকুর আলীর আটকের ব্যাপারে অস্বীকার করলেও আব্দুর রশিদকে পারবাড়ী থেকে আটক পূর্বক মামলা দিয়ে চালান দেওয়ার কথা জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here