যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালকে পুঁজি করে গড়ে ওঠা কতিপয় চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে চলছে মানুষ ঠকানোর উৎসব

0
334

এম আর রকি : জেলা সিভিল কার্যালয়ে আবেদন জমা দিয়ে অনুমতি ছাড়া ও নিয়ম নীতি না মেনে যশোরে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে প্রাইভেট হাসপাতাল,ক্লিনিক,ডায়াগনষ্টিক সেন্টারসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র। মানবতা পেশাকে পুঁজি করে শহর ও গ্রাম্য সহজসরল ব্যক্তিদের ঠকিয়ে প্রতিনিয়ত লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে একটি চক্র। এমনকি নিঃস্ব করে ফেলা হচ্ছে অসহায় ব্যক্তিদের পরিবারকে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নিয়ম নীতি থাকলেও তা প্রয়োগের অভাবে মানুষ ঠকানো ব্যবসা দিনদিন গজিয়ে উঠার প্রতিযোগীতা নেমে পড়েছে চিকিৎসা পেশার পাশাপাশি রাজনৈতিকসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,যশোরে সিভিল সার্জনের দপ্তরে আবেদন জমা দিয়ে রাতারাতি অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠছে প্রাইভেট হাসপাতাল,ক্লিনিক,ডায়াগনষ্টিক সেন্টারসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র।স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নিয়ম নীতি না মেনে রাতারাতি অর্থলোভী কতিপয় চিকিৎসক ও কিছু ব্যবসায়ী পার্টনারশীপে মানবতা পেশার এই ব্যবসার প্রতি ঝুঁকে পড়েছে। জেলা সিভিল সার্জন দপ্তরের কতিপয় কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে অনেক সময় ম্যানেজ করে তাদের এই ব্যবসার প্রসার ঘটাচ্ছে। যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের সামনে থেকে শুরু করে এক কিলোমিটারের মধ্যে গড়ে উঠেছে শতাধিক চিকিৎসা সংক্রান্ত কেন্দ্র। সম্পূর্ন অনভিজ্ঞ ও সার্টিফিকেট বিহীন নারী পূরুষদের বসানো হয়েছে চিকিৎসার নামে মানুষ ঠকানো চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে। প্রতিদিন প্রায় লাখ টাকার টার্গেট নিয়ে এসব চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোর মালিকদের অধিকাংশরা বহিরাগত দালাল রেখে তাদের কারবার চালিয়ে যাচ্ছে। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালকে পুঁজি করে এর সামনে ও তার আশাপাশের গড়ে ওঠা প্রাইভেট হাসপাতাল,ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারগুলোতে চলছে নানা অসামাজিক কার্যকলাপ। মূলত মানুষ ঠকানো এই প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসার নামে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে চিকিৎসা নিতে আসা ব্যক্তিদের পরিবারের সহায়সম্বল।
যশোর সিভিল সার্জন অফিসে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, যশোর জেলায় ১শ’ ৭৭টি চিকিৎসা কেন্দ্র ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার গড়ে উঠেছে। এর মধ্যে যশোর সদর উপজেলা এলাকায় ৭৭টি,ঝিকরগাছা উপজেলায় ২২টি, শার্শা উপজেলায় ২৪টি,কেশবপুর উপজেলায় ১৩টি,অভয়নগর উপজেলায় ১৫টি,মণিরামপুর উপজেলায় ১১টি,চৌগাছা উপজেলায় ৮টি ও বাঘার পাড়া উপজেলায় ৭টি চিকিৎসা কেন্দ্র ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের তালিকা রয়েছে।সূত্রগুলো বলেছে,সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে থাকা তালিকার বাইরে আরো গড়ে উঠেছে অর্ধ শতাধিক চিকিৎসা কেন্দ্র।মূলত মানুষ ঠকানো এই সব প্রতিষ্ঠানে যারা দায়িত্ব পালন করছেন তাদের অধিকাংশ চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে কর্মরত নারী পূরুষদের না কোন যোগ্যতা। কর্মরত অধিকাংশ নারী পূরুষদের নাই কোন শিক্ষাযোগ্য কিংবা প্রশিক্ষনের সার্টিফিকেট।তাছাড়া,শারীরীক পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে অধিকাংশ স্বাস্থ্য কেন্দ্রের এই প্রতিষ্ঠানে চলে ভেলকিবাজি। অনেক সময় চিকিৎসকের সীল ও স্বাক্ষর বানিয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার রিপোর্টে ব্যবহার করা হয়। শুধু তাইনয় যশোরের বাইরে অন্য জেলার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের নাম ব্যবহার করে অনেক প্রতিষ্ঠানে রোগীদের সাথে প্রতারণা করা হয়। নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো বলেছেন,পরীক্ষা নিরীক্ষা,এক্স-রে থেকে শুরু করে যা করা হয় এই সব চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে তার অধিকাংশ রিপোর্টে রয়েছে সংশয়। অনেক সময় যশোর জেনারেল হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগন বাইরে পরীক্ষা নিরীক্ষার রিপোর্ট দেখতে চান না। তার কারণ পরীক্ষা নিরীক্ষার রিপোর্টের গুনগত কোন মান নেই। সব কিছু জেনেও মানবতা পেশায় যারা নিয়োজিত তারাও রয়েছেন নিশ্চুপ। অবিলম্বে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল কেন্দ্রিক গড়ে ওঠা বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতাল,ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার গুলোর হালচাল নিয়ে অচিরেই বস্তুনিষ্ট সংবাদ প্রকাশ করার উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here