যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের ৬ গ্রুপের কাজের টেন্ডারবাজির খবর এখন টক অব দ্য নিউজে পরিণত

0
381

অধিকাংশ ঠিকাদার অবিলম্বে সরকারের অতিরিক্ত ব্যয় কমাতে জমাকৃত দরপত্র বাতিল দাবি করেছে

এম আর রকি : যশোরে আড়াইশ শয্যা যশোর জেনারেল হাসপাতালে টেন্ডারবাজির ঘটনায় বুধবার যশোর শহর ও জেলার নয় উপজেলা এলাকায় টক অব দ্যা নিউজে পরিণত হয়েছে। প্রত্যক্ষ টেন্ডারবাজ সন্ত্রাসী ও পরোক্ষ পুলিশের বাধার কারণে দরপত্র ক্রয়কারী ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান অত্র হাসপাতালের সাড়ে তিন কোটি টাকার এম এস আরের মালামাল সরবরাহের ৬ গ্রুেপর কাজের দরপত্র দাখিল করতে পারেনি বলে অভিযোগ উঠে।
২৮ নভেম্বর মঙ্গলবার দুপুর ১২ টা যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের সাড়ে তিন কোটি টাকার এম এস আরের মালামাল সরবরাহের ৬ গ্রুপের কাজের দরপত্র জমা দেওয়ার ছিল শেষ দিন। মালামাল সরবরাহের গ্রুপগুলি হচ্ছে, ক গ্রুপ-ঔষধ পত্র, খ গ্রুপ- গজ ব্যান্ডেজ ও তুলা, গ গ্রুপ- লিলেন সামগ্রী, ঘ গ্রুপ- সার্জিক্যাল ও যন্ত্রপাতি, ঙ গ্রুপ- ক্যামিক্যাল রি এজেন্ট, ও চ গ্রুপ- আসবাব পত্র ও কিচেন সামগ্রী।
৬ গ্রুপের কাজের দরপত্র ক্রয়কারী ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশ মালিক অভিযোগ করেন, দরপত্র দাখিলের দিন সাধারণ ঠিকাদাররা হাসপাতালে গেলে সরকারি দলের মুখ চেনা সন্ত্রাসীর প্রত্যক্ষ ও কর্তব্যরত দায়িত্বপালণকারী পুলিশের পরোক্ষ বাধার কারণে দরপত্র জমা দেওয়া সম্ভব হয়নি। সন্ত্রাসীদের আক্রমের ভয়ে সাধারণ ঠিকাদারগন দরপত্র পকেটে নিয়ে জমা না দিয়ে ফিরে আসতে বাধ্য হয়েছেন। সূত্রগুলো বলেছেন, টেন্ডার জমা দিতে গিয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক ও তাদের প্রতিনিধি দেখতে পান হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্বাবধায়ক কামরুল ইসলাম বেনুর রুমের সামনে রাখা টেন্ডার বাক্স ক্ষমতাসীন দলের মুখচেনা শীর্ষ সন্ত্রাসীদের সামনে রয়েছেন। কর্তব্যরত পুলিশও টেন্ডার বাজদের সামনে অবস্থান করলেও বাঁধা না দেওয়ায় সন্ত্রাসী টেন্ডারবাজরা তাদের কর্মকান্ড সফল হয়েছে। অথচ টেন্ডার ডিউটি থাকা কোতয়ালি মডেল থানার এসআই মানিক চন্দ্র গাইন বলেছেন, তার সামনে থাকা টেন্ডার বাক্স ছিল উন্মুক্ত।
ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরো জানান, অত্র হাসপাতালের ৬ গ্রুপের কাজের দরপত্র আহবানের জন্য হাসপাতাল ছাড়াও নিরাপত্তার কারণে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে টেন্ডার বক্স রাখার কথা। অথচ সেখানে কোন টেন্ডার বাক্স রাখা হয়নি কিংবা কোন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের নজরে আসেনি বলে সূত্রগুলো অভিযোগ করেন। হাসপাতাল সূত্রগুলো জানান, গত ২৩ অক্টোবর পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের দিন থেকে হাসপাতালের এম এস আরের মালামাল সরবরাহের ৬ গ্রুপের কাজের দরপত্র বিক্রির কার্যক্রম শুরু হয়। ২৩ নভেম্বর দরপত্র বিক্রির শেষ দিন। দরপত্র ক্রয়ের শেষদিন পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন ৩১ টি প্রতিষ্ঠান ১৫০ টি দরপত্র ক্রয় করে। নির্ভরযোগ্য সুত্রগুলো জানিয়েছেন,বিক্রিত দরপত্রের মধ্যে মাত্র ১২টি দরপত্র জমা পড়ে। জমাকৃত দরপত্র ঢাকা মহাখালীর মেসার্স শাহিন ফামের্সীর পক্ষে ক্ষমতাসীন দলের মুখচেনা টেন্ডারবাজ সন্ত্রাসীরা টেন্ডার ঠেকায়। সূত্রগুলো জানায়, টেন্ডারবাজদের সাথে পরোক্ষভাবে যশোরে কর্মরত পুলিশ সহযোগীতা করেছে বলে দরপত্র জমা দিতে না পারা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক ও প্রতিনিধিরা এই অভিযোগ করেন। প্রতিযোগী মূলকভাবে দরপত্র জমা না পড়ায় সরকারকে মালামাল গ্রহনের ক্ষেত্রে নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে কয়েকগুন বেশী গুনতে হবে। সেক্ষেত্রে সরকারকে কয়েক কোটি টাকা অধিক গুনতে হবে বলে সূত্রগুলো মনে করছেন।সূত্রগুলো দাবি করেছেন,অবিলম্বে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ৬ গ্রুপের কাজের জমাকৃত দরপত্র বাতিল পূর্বক পুনরায় দরপত্র আহবানের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন যশোরের সাধারণ ঠিকাদার প্রতিষ্ঠাণের মালিক ও প্রতিনিধিরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here