যাচাই বাছাই কমিটিতে বির্তকিত ব্যক্তি থাকার অভিযোগ নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলায় প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ক্ষোভ

0
746

কালিয়া (নড়াইল) থেকে ফিরে বিশেষ প্রতিনিধি : কালিয়া উপজেলা এলাকায় প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই কমিটিতে যারা রয়েছে তাদের অনেকেই জনগণের দৃষ্টিতে বির্তকিতসহ বহুবিধ অভিযোগ রয়েছে।
মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চ নড়াইল জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক গেজেট নং ৩৬১ মো: আবু হেলাল মোল্লা লিখিত অভিযোগ জানান,সম্প্রতি জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের পক্ষ হতে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কল্পে গঠিত কালিয়াসহ বিভিন্ন উপজেলা কমিটির সরকারি নীতিমালা বর্হিভূত ভাবে যাচাই বাছাই প্রক্রিয়া চালাচ্ছে। তা জনমনে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করছে। তিনি আরো বলেন, যাচাই বাছাই কমিটিতে যারা দায়িত্ব পালন করছেন তাদের মধ্যে কয়েকজন বির্তকিত থাকায় বর্তমান মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে।
অভিযোগে আরো জানান,কালিয়া উপজেলার এলাকায় যারা যাচাই বাছাই কমিটির সদস্য রয়েছেন তাদের মধ্যে অনেকে জনগণের দৃষ্টিতে বির্তকিত। যারা ভূয়া মুক্তিযোদ্ধারের নিকট বিপুল পরিমান অর্থের বিনিময়ে তালিকায় মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে অর্ন্তভূক্ত করার অভিযোগ রয়েছেন। উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন,কলাবাড়িয়া ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামের জীবন সর্দারের ছেলে হাসান সর্দারের ভাই বারিক সর্দারের ছেলে বাদশা মিয়া(৪০)। যিনি বর্তমানে পিতার নামের স্থলে চাচা হাসান সর্দারের নাম পিতার নাম হিসেবে অর্ন্তভূক্ত করে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে চাকুরি করছেন। যে বিষয় ওই এলাকায় মুক্তিযোদ্ধার নেতৃবৃন্দ অর্থের বিনিময়ে সহায়তা করে আসছেন।এছাড়া, জনৈক হাবিবুর হরমান নামে এক ব্যক্তি ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের সাথে হাত মিলিয়ে পিচ কমিটির চেয়ারম্যান হিসাবে নয় মাস কর্মরত ছিল। পরবর্তীতে কিছু সংখ্যক নীতিভ্রষ্ট মুক্তিযোদ্ধাদের সহ যোগীতায় মুক্তিযোদ্ধা বনে যায়। যাহার বদৌলতে বর্তমানে তার ৩ ছেলে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে উচ্চ পর্যায়ে কর্মরত রয়েছে। এ ব্যাপারে বারংবার অভিযোগ করা সত্বেও স্থানীয় কিছু সংখ্যক নীতিভ্রষ্ট মুক্তিযোদ্ধাদের হস্তক্ষেপের কারনে তাদের বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। ফলে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধ/ জনমনে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। এছাড়া, চলমান যাচাই বাছাই প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত কমিটির সদস্যদের বিরুদ্ধে বিপুল পরিমান উৎকোচ গ্রহনের অভিযোগ সৃষ্টি হয়েছে। যা তদন্ত পূর্বক সত্য প্রমানিত হবে। তিনি আরো অভিযোগ করেন,যে সমস্ত মুক্তিযোদ্ধারা ইতিপূর্বে তালিকাভূক্ত হয়ে সরকারি সুযোগ সুবিধা গ্রহন করছেন। তাদের মধ্যেও কিছু কিছু অমুক্তি যোদ্ধারাও তালিকাভূক্ত হয়েছে। তাঁদের খুজে বের করে মুক্তিযোদ্ধা তালিকা হতে বাদ দেওয়ার যে প্রক্রিয়া চলমান তা যাচাই বাছাই কমিটি কর্তৃক অনুসন্ধান করার দায়িত্ব ।ক্ষমতা হাতে পেয়ে অপব্যবহারের মাধ্যমে উক্ত কমিটি সাধারণ মুক্তিযোদ্ধারের হয়রানি শুরু করেছে। যে কারণে মুক্তিযোদ্ধাদের মনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে তিনি সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here