যুবলীগ নেতা আশরাফুল ইসলামকে মিথ্যা ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় জড়ানো হয়েছে

0
203

সাংবাদিক সম্মেলনে প্রতিবন্ধী অবসর প্রাপ্ত কর্মচারী পরিবারের দাবি

বিশেষ প্রতিনিধি : যুবলীগ নেতা আশরাফুল ইসলামের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করেছেন তার পরিবার। শুক্রবার সকালে প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে সাংবাদিক সম্মেলনে তার পিতা মো: আব্বাজ উদ্দিন এ দাবি জানান।
সাংবাদ সম্মেলনে যশোরের কেশবপুর উপজেলার দেউলী গ্রামের মো: আব্বাজ উদ্দীনের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন তার বড় ছেলে আসাদুজ্জামান। এ সময় মাতা মনোয়ারা বেগমসহ এলাকার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়,ছেলে আশরাফুল ইসলাম সাবেক ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ও বর্তমান যুবলীগের সহ-সভাপতি ও স্ত্রী মনোয়ারা বেগম ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গ্রামের চৌরাস্তা মোড়ে কেশবপুরের বুলু বিশ্বাস ও সেনপুর গ্রামের হাসান পৃথক দু’টি ইটভাটা স্থাপনের তোড়জোড় শুরু করে গত ১ মাস আগে থেকে। এ ঘটনায় আশরাফুলে নেতৃত্বে শতশত নারী পুরুষ গত ১১ এপ্রিল প্রতাপপুর বাজারে ভাটা স্থাপনের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও সমাবেশ করে। এ বিরোধের ভাটা মালিক বুলু বিশ্বাস ও হাসান আলী কেশবপুর বিএনপি নেতা আবু বকর আবু সামাদ বিশ্বাস ষড়যন্ত্র করে লাখলাখ টাকা বিনিময়ে পুলিশকে ম্যানেজ করে আশরাফুলকে ষড়যন্ত্র মূলক মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে বেদম মারপিট করে গুরুতর জখম করে। ১৯ এপ্রিল রাতে কেশবপুর থানার ওসির নেতৃত্বে একদল পুলিশ আশরাফুল ইসলামকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে একটি লাল গেঞ্জী পরিচয়ে মারতে মারতে দেউলী মোড়ে নিয়ে আসে। পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি জানতে চাইলে তাড়িয়ে দেয়। এর পর ক্রস ফায়ারে এক যুবক মৃত্যুর ঘটনায় আশরাফুল ইসলামকে জড়িতে হত্যা মামলা দেয়।পরবর্তীতে তাকে হত্যা,ডাকাতি ও অস্ত্র মামলায় আদালতে চালান দেয়। এহেন কর্মকান্ডের ব্যাপারে থানায় জানতে গেলে পরিবারের সদস্যদের ঘাড় ধরে তাড়িয়ে দেয়। আশরাফুল সম্পূর্ন নির্দোষ দাবি করা হয়েছে।গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি’র প্রার্থী আবু বকর নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে থানার সঙ্গে অর্থ বাণিজ্য করে আওয়ামীলীগ,ছাত্রলীগ যুবলীগের নেতা কর্মীদের বিভিন্ন মামলা ও পুলিশী হয়রানী করছে বলে সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here