রাজগঞ্জে বিদ্যুতের অব্যাহত লোডশেডিং : অতিষ্ঠ জনগন : শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় বিঘ্ন

0
221

উত্তম চক্তবর্তী : বিদ্যুতের অব্যাহত লোডশেডিংয়ের কবলে পড়ে যশোরের রাজগঞ্জবাসির দুর্ভোগ চরমে পৌছেছে ৷ বিদ্যুতের ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের ভেল্কিবাজিতে শরতের ভ্যাপসা গুমোট অসহনীয় গরমে জনজীবন একদিকে যেমন দুর্বিসহ হয়ে উঠেছে অন্যদিকে ব্যাংক-বীমা অফিস, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও দপ্তরের কাজকর্মে যেমন নেমে এসেছে স্থবিরতা তেমনি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন ধরনের ফার্ম ও খামারে কর্মতৎপরতা প্রচন্ড আকারে বাঁধা গ্রস্ত হচ্ছে ।বিদ্যুতের সীমাহীন লোডশেডিংয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অধিকাংশ সময় বন্ধ থাকায় মালিক পক্ষকে প্রতিনিয়ত লোকসান গুনতে হচ্ছে । বিদ্যুতের সীমাহীন লোডশেডিংয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা দারুন কষ্ট পাচ্ছে । সংবাদকর্মীরা বিদ্যুতের ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের ফলে সময়মত সংবাদ পাঠাতে হিমসিম খাচ্ছে ।
খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, যশোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর আওতাধীন এলাকার মধ্যে রাজগঞ্জে বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের মাত্রা গত কয়েক দিন ধরে চরমে পৌছেছে । প্রতিদিন ১০-১২ ঘন্টা এলাকা ভেদে তার চেয়েও বেশী সময় ধরে থাকে এ ধরনের কৃত্রিম বৈদ্যুতিক লোডশেডিং ৷ যার প্রতিকারের লক্ষণ আপাতত দেখা যাচ্ছে না ৷ বর্তমান সময়ের অসহনীয় গরমে বিদ্যুতের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের পরিমাণ বেড়ে গেছে বলে রাজগঞ্জ সাবজোন অফিসের এক কর্মকর্তা দাবি করেন ৷ কিন্তু ভুক্তভোগী বিদ্যুৎ গ্রাহকরা তা মানতে নারাজ ৷
তাদের অভিমত বর্তমান সরকার নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে বদ্ধ পরিকর ৷ জনগনের চাহিদা মোতাবেক বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য বিদ্যুৎ উৎপাদন ও বিদ্যুৎ আমদানি করার পদক্ষেপ সরকার ইতোমধ্যে গ্রহণ করেছে ৷ তারপরও এ ধরনের বিদ্যুৎ বিভ্রাটের জন্য ভুক্তভোগীরা স্থানীয় বিদ্যুৎ বিতরণকারী প্রতিষ্ঠান পল্লী বিদ্যৎ সমিতির কর্মকর্তাদের দুষছেন ৷ এখানকার কর্মকর্তারা বিদ্যুতের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে বিদ্যুৎ খাতে অধিক মুনাফা অর্জনের জন্য ইচ্ছা মাফিক লোডশেডিং করে চলেছেন ৷ লোডশেডিংয়ের মাত্রাটা গ্রাম পর্যায়ে বেশী বলে ভুক্তভোগী গ্রাাহকরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে অভিযোগ করেন ৷ এদিকে ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাট লোডশেডিংয়ের ফলে বাসাবাড়িতে ব্যবহৃত টিভি, ফ্রিজ, কম্পিউটার, ল্যাবটবসহ অন্যান্য ইলেকট্রনিক সামগ্রী বিকল হয়ে গ্রাহক সাধারণ দারুনভাবে ক্ষতির শিকার হচ্ছে ৷ তাছাড়া বিদ্যুতের অব্যাহত লোডশেডিং ও ভেল্কিবাজিতে স্কুলগামী কোমলমতি শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় দারুনভাবে বিঘ্ন হচ্ছে । তারা রাতে ঠিকমতো ঘুমাতেও পারছে না ৷ ফলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা সাম্প্রতিক সময়ের বিদ্যুৎ বিভ্রাট নিয়ে মহাবিপাকে পড়েছেন ৷ তাই ভুক্তভোগী সচেতন নাগরিক সমাজ অবিলম্বে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ বিতরনের দাবি জানিয়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণে স্থানীয় পল্লী বিদ্যুত সমিতির কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here