লাল ও গোলাপী রংয়ের জন্ম নিয়ন্ত্রন বড়ি শুন্য হয়ে পড়েছে যশোরের দোকানগুলিতে

0
483

এম আর রকি, যশোর : জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের বিরুদ্ধে বেরিয়ে এসেছে অজানা কাহিনী। এই দপ্তরে কর্মরত কতিপয় পুলিশ কর্তা ও সদস্যরা প্রতিদিন ১০/১২জন ব্যক্তিকে গ্রেফতার পূর্বক মোটা অংকের উৎকোচ দাবি করা নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সূত্রগুলো জানিয়েছেন,জেলা গোয়েন্দা শাখায় কর্মরত একজন এসআই গত ১০ মে শহরের রেলগেট এলাকার আব্দুল জলিলের ছেলে মাসুমকে গ্রেফতার করে। পরে তার কাছে মোটা অংকের উৎকোচ দাবি করে পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে ইয়াবা বিক্রেতা দাবি করে। পরে দেন দরবারের এক পর্যায় ২০ হাজার টাকায় মুক্তি দেওয়া হয়। সূত্রগুলো জানায়,জেলা গোয়েন্দা শাখা যশোরের বিভিন্ন স্পট থেকে যে ইয়াবা উদ্ধার দেখাচ্ছে সেগুলি নিয়ে বেরিয়ে এসেছে অজানা কাহিনী। যশোর শহরের ঔষদের দোকান গুলিতে গোলাপী রংয়ের জন্ম নিয়ন্ত্রন বড়ি এক শ্রেনীর মানুষ সংগ্রহ করে জেলা কার্যালয়ে সরবরাহ করছে। উক্ত বড়িকে ইয়াবা বলে আখ্যায়িত করা হচ্ছে। যশোর সদর হাসপাতালের সামনে ঔষদের দোকান নিউ আহমেদ ফার্মেসীর কর্মচারী সুজন জানান,দোকান গুলি হতে গোলাপী ও লাল রংয়ের জন্ম নিয়ন্ত্রন বড়ি বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। ঔষধের দোকান গুলিতে উক্ত রংয়ের বড়ি সংকট হয়ে পড়েছে। মাসুম ও জেলা গোয়েন্দা শাখায় গ্রেফতার হওয়ায় অনেক ভূক্তভোগী ও তাদের পরিবার জানান, জেলা গোয়েন্দা শাখায় যে সব এসআই,এএসআই দায়িত্ব পালন করছেন। তারা প্রতিদিনি যশোর জেলার বিভিন্ন উপজেলা এলাকায় অভিযানের নামে গ্রেফতার করে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) কার্যালয়ে নিয়ে আসেন। তাদেরকে হ্যান্ডকাপ পরিয়ে নির্যাতনের এক পর্যায় মোবাইলের মাধ্যমের তাদের পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলার সুযোগ করে মাথা পিছু ব্যক্তি হিসেবে নূন্যতম ৫০ হাজার টাকা থেকে ২০লাখ টাকা দাবি করা হয়। টাকা না দিলে তাদেরকে অস্ত্র,ফেনসিডিল,ইয়াবা,গাঁজা দিয়ে মামলায় চালান দেওয়ার ভয়ভীতি দেখানো হয়। লোকজনের সামনে থেকে গ্রেফতার করা ব্যক্তিকে জেলা গোয়েন্দা শাখায় নূন্যতম ২দিন থেকে ৯দিন পর্যন্ত আটকিয়ে রাখা হয়। পরিবারের সদস্যরা খোঁজ খবর নিলে তাদের কাছে মোটা অংকের উৎকোচ দাবি করা হয়। অনেক সময় গ্রেফতার কৃত ব্যক্তির এলাকা থেকে জানতে চাওয়া হলে গ্রেফতার অস্বীকার করা হয়। সাংবাদিকরা গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিদের পরিবারের অভিযোগের পর জেলা ডিবি কার্যালয়ের উক্ত কর্মকর্তা ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে গ্রেফতারের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে অস্বীকার করে। সম্প্রতি বেনাপোলে হাতেম নামে এক ব্যক্তি গ্রেফতার হওয়ার ব্যাপারে তারা অস্বীকার করে। তাছাড়া,শার্শার রুদ্রপুর গ্রামের শুকুর ও আব্দুর রশিদকে গ্রেফতার করার পর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) কার্যালয়ে ৫ থেকে ৯ দিন আটকে রেখে ২০ লাখ টাকা দাবি করে। পরে এক পর্যায় আব্দুর রশিদকে যশোর পারবাড়ী মোড় থেকে মাদকসহ গ্রেফতার করার বিষয় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা স্বীকার করেন। গ্রেফতার হওয়ার ৫দিন পর স্বীকার হলেও তার পরিবারের কাছ থেকে মোটা অংকের উৎকোচ নিয়ে মাদক দিয়ে চালান দেওয়া হয়। শুকুর আলীকে স্বীকার না করলেও পরবর্তীতে উক্ত শুকুরের পরিবারের কাছ থেকে ৫লাখ টাকা নিয়ে যশোরের খাজুরা ফিলিং ষ্টেশনের অদূর থেকে ১শ’ পিস ইয়াবাসহ খাজুরা পুলিশ ক্যাম্পের সদস্যরা গ্রেফতার দেখিয়ে যশোরের বাঘার পাড়া থানায় মাদক আইনে মামলা দেওয়া হয়।সূত্রগুলো আরো জানায়,যশোর পুলের হাট এলাকার এক সময়ের স্বর্ণচোরাচালান আলতাফ হোসেনকে না পেয়ে তার স্ত্রী সুমা আক্তার ও তার ভাইয়ের স্ত্রীকে গ্রেফতার করে নগদ ২লাখ টাকার বিনিময়ে জেলা কার্যালয় থেকে আইনজীবী শাহরিয়ার জিম্মায় প্রদান করলেও বাকী ২লাখ টাকা চেক নিয়ে পরের দিন নগদ আরো ১লাখ টাকা নিয়ে এক লাখ টাকার চেক গ্রহন করেন। উক্ত ঘটনার ব্যাপারে আওয়ামীলীগ নেতা পুলের হাটের ফিরোজসহ অনেকে জানেন। অপর দিকে,সাতক্ষীরা জেলার ভোমরা স্থল বন্দর কাস্টম এ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক দিপংকর কুমার ঘোষকে পালবাড়ী মোড় থেকে গত ১৭মে বিকেল ৬টায় এসআই লুৎফর রহমান নামিয়ে নিয়ে মুক্তিপণ ২০লাখ টাকা দাবি করে। এক পর্যায় মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে মুক্তি দেন। যে ঘটনায় কাস্টমস সিএন্ডএফ এ্যাসোশিয়েসনের ভোমরাস্থল বন্দর ফুসে উঠেছেন। তারা জরুরী সভা করে রেজুলেশন কপি স্বরাষ্ট মন্ত্রালয়সহ পুলিশের বিভিন্ন দপ্তরে কর্মসূচীর কপি প্রেরণ করেছেন। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী জানাযায়,যশোরের একজন ব্যবসায়ীর নিকট ৫লাখ টাকা দাবি করে। এ ব্যাপারে যশোরের একজন সাংবাদিক জেলা গোয়েন্দা শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে সত্যতা জানারজন্য মোবাইল করলে তিনি জানান,প্রাচীর দেওয়ার জন্য টাকা চাওয়া হয়েছে। এ ধরনের ঘটনা অহরহ ঘটছে। এ ব্যাপারে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন যশোরের শান্তিপ্রিয় মানুষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here