শার্শার পল্লীতে জমির মালিককে বসত বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে ষড়যন্ত্র করছে প্রতিপক্ষ

0
244

আশানুর রহমান আশা-বেনাপোল : যশোরের শার্শায় মাঠ জরিপ আমিনের ভূলের খেসারত দিতে হচ্ছে একটি পরিবারের। হাল জরিপ আর.এস ম্যাপে আমিন ভুল করায় প্রকৃত কবলা দলিল মূলে খরিদকৃত জমির মালিককে বসত বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে প্রতিপক্ষ একটি মহল। আর প্রতিপক্ষ গ্রুপকে উষ্কানি দিয়ে সহযোগিতা করেছ এলাকার একটি কুচক্রি মহল।

জানা যায়, শার্শা উপজেলার ডিহি ইউনিয়নের তেবাড়িয়া গ্রামের মৃত ঈমান আলী তেবাড়িয়া মৌজায় এস.এ খতিয়ান নং-২৪২ নালিশী এস,এ দাগ নং ১২০ দক্ষিণ পশ্চিম পার্শ মেইন পাকা রাস্তা লাগুয়া ৫ শতক জমি রেজিঃ কবলা দলিল মূলে ১৯৮২ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ক্রয় করেন। কবলা দলিল নং- ২৫৬৮। ঈমান আলীর ক্রয়কৃত জমিতে তার ওয়ারেশগণ বসত বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। ১২০ দাগের লাগুয়া পূর্ব পার্শে ১১৯ নং দাগে মৃত মহর আলী ৯ শতক জমি ক্রয় করেন। ওই জমিতেও মহর আলীর ওয়ারেশগণ ঘর বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। দুটি দাগের মাঝখান দিয়ে ইটের সলিং রাস্তা রয়েছে। রাস্তার উত্তর পাশ মৃত ঈমান আলীর উত্তরাধীকার সূত্রে প্রাপ্ত বসত ভিটাসহ ঘর বাড়ি রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে আর.এস ম্যাপে মাঠ জরিপ বদর আমিনের ভূলবসত ১১৯ ও ১২০ দাগের উভয়ের মধ্যে দুটি হাল দাগ লিপিবদ্ধ করেন। এর একটি দাগ নং-৩৮৭ সলিং রাস্তার উত্তর পাশে আর রাস্তার দক্ষিণ পাশে ৫৩৯ নং দাগ। এই দুুটি দাগে দুটি ভিন্ন মালিক থাকা সত্ত্বেও দাগ দুটি আমিন একত্রিত করায় বর্তমানে উভয়ের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

অভিযোগকারী মৃত ঈমান আলীর ছেলে মিজানুর রহমান বলেন, তেবাড়িয়া মৌজায় মেইন পাকা রাস্তা লাগুয়া দক্ষিণ-পশ্চিম পার্শ্বে ১২০ নং দাগে উত্তরাধীকারী সূত্রে বতস বাড়ি নির্মান করে আমরা বসবাস করে আসছি। মাঠ জরিপ বদর আমিনের আর এস ম্যাপে ভূলের কারণে পার্শ্ববর্তী পূর্ব পাশের ১১৯ নং দাগের ওয়ারেশগণ আমাদের রাস্তা লাগুয়া বসতভিটা দখলসহ ঘরবাড়ি উচ্ছেদে এলাকার কুচক্রি মহলের উষ্কানিতে নানা মুখী ষড়যন্ত্র করছে।

এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ওয়াডের্র ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে মৃত ঈমান আলীর ওয়ারেশগণ উক্ত জমিতে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। কিন্তু বর্তমানে পার্শ্ববর্তী দাগের ওয়ারেশগণ ম্যাপ জঠিলতার সুযোগে জমিটি দখলে নিতে চেষ্টা করছে। বাইরের একটি মহল তাদের উস্কানি দিয়ে চলেছে।

এ অবস্থায় উভয় পক্ষের মধ্যে বসতবাড়ি দখলকে কেন্দ্র করে যেকোন সময় বড় ধরনে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের বাশংকা করছে স্থানীয়রা।
শার্শার পল্লীতে জমির মালিককে বসত বাড়ি থেকে
উচ্ছেদ করতে ষড়যন্ত্র করছে প্রতিপক্ষ

আশানুর রহমান আশা-বেনাপোল : যশোরের শার্শায় মাঠ জরিপ আমিনের ভূলের খেসারত দিতে হচ্ছে একটি পরিবারের। হাল জরিপ আর.এস ম্যাপে আমিন ভুল করায় প্রকৃত কবলা দলিল মূলে খরিদকৃত জমির মালিককে বসত বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে প্রতিপক্ষ একটি মহল। আর প্রতিপক্ষ গ্রুপকে উষ্কানি দিয়ে সহযোগিতা করেছ এলাকার একটি কুচক্রি মহল।

জানা যায়, শার্শা উপজেলার ডিহি ইউনিয়নের তেবাড়িয়া গ্রামের মৃত ঈমান আলী তেবাড়িয়া মৌজায় এস.এ খতিয়ান নং-২৪২ নালিশী এস,এ দাগ নং ১২০ দক্ষিণ পশ্চিম পার্শ মেইন পাকা রাস্তা লাগুয়া ৫ শতক জমি রেজিঃ কবলা দলিল মূলে ১৯৮২ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ক্রয় করেন। কবলা দলিল নং- ২৫৬৮। ঈমান আলীর ক্রয়কৃত জমিতে তার ওয়ারেশগণ বসত বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। ১২০ দাগের লাগুয়া পূর্ব পার্শে ১১৯ নং দাগে মৃত মহর আলী ৯ শতক জমি ক্রয় করেন। ওই জমিতেও মহর আলীর ওয়ারেশগণ ঘর বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। দুটি দাগের মাঝখান দিয়ে ইটের সলিং রাস্তা রয়েছে। রাস্তার উত্তর পাশ মৃত ঈমান আলীর উত্তরাধীকার সূত্রে প্রাপ্ত বসত ভিটাসহ ঘর বাড়ি রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে আর.এস ম্যাপে মাঠ জরিপ বদর আমিনের ভূলবসত ১১৯ ও ১২০ দাগের উভয়ের মধ্যে দুটি হাল দাগ লিপিবদ্ধ করেন। এর একটি দাগ নং-৩৮৭ সলিং রাস্তার উত্তর পাশে আর রাস্তার দক্ষিণ পাশে ৫৩৯ নং দাগ। এই দুুটি দাগে দুটি ভিন্ন মালিক থাকা সত্ত্বেও দাগ দুটি আমিন একত্রিত করায় বর্তমানে উভয়ের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

অভিযোগকারী মৃত ঈমান আলীর ছেলে মিজানুর রহমান বলেন, তেবাড়িয়া মৌজায় মেইন পাকা রাস্তা লাগুয়া দক্ষিণ-পশ্চিম পার্শ্বে ১২০ নং দাগে উত্তরাধীকারী সূত্রে বতস বাড়ি নির্মান করে আমরা বসবাস করে আসছি। মাঠ জরিপ বদর আমিনের আর এস ম্যাপে ভূলের কারণে পার্শ্ববর্তী পূর্ব পাশের ১১৯ নং দাগের ওয়ারেশগণ আমাদের রাস্তা লাগুয়া বসতভিটা দখলসহ ঘরবাড়ি উচ্ছেদে এলাকার কুচক্রি মহলের উষ্কানিতে নানা মুখী ষড়যন্ত্র করছে।

এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ওয়াডের্র ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে মৃত ঈমান আলীর ওয়ারেশগণ উক্ত জমিতে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। কিন্তু বর্তমানে পার্শ্ববর্তী দাগের ওয়ারেশগণ ম্যাপ জঠিলতার সুযোগে জমিটি দখলে নিতে চেষ্টা করছে। বাইরের একটি মহল তাদের উস্কানি দিয়ে চলেছে।

এ অবস্থায় উভয় পক্ষের মধ্যে বসতবাড়ি দখলকে কেন্দ্র করে যেকোন সময় বড় ধরনে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের বাশংকা করছে স্থানীয়রা।
শার্শার পল্লীতে জমির মালিককে বসত বাড়ি থেকে
উচ্ছেদ করতে ষড়যন্ত্র করছে প্রতিপক্ষ

আশানুর রহমান আশা-বেনাপোল : যশোরের শার্শায় মাঠ জরিপ আমিনের ভূলের খেসারত দিতে হচ্ছে একটি পরিবারের। হাল জরিপ আর.এস ম্যাপে আমিন ভুল করায় প্রকৃত কবলা দলিল মূলে খরিদকৃত জমির মালিককে বসত বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে প্রতিপক্ষ একটি মহল। আর প্রতিপক্ষ গ্রুপকে উষ্কানি দিয়ে সহযোগিতা করেছ এলাকার একটি কুচক্রি মহল।

জানা যায়, শার্শা উপজেলার ডিহি ইউনিয়নের তেবাড়িয়া গ্রামের মৃত ঈমান আলী তেবাড়িয়া মৌজায় এস.এ খতিয়ান নং-২৪২ নালিশী এস,এ দাগ নং ১২০ দক্ষিণ পশ্চিম পার্শ মেইন পাকা রাস্তা লাগুয়া ৫ শতক জমি রেজিঃ কবলা দলিল মূলে ১৯৮২ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ক্রয় করেন। কবলা দলিল নং- ২৫৬৮। ঈমান আলীর ক্রয়কৃত জমিতে তার ওয়ারেশগণ বসত বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। ১২০ দাগের লাগুয়া পূর্ব পার্শে ১১৯ নং দাগে মৃত মহর আলী ৯ শতক জমি ক্রয় করেন। ওই জমিতেও মহর আলীর ওয়ারেশগণ ঘর বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। দুটি দাগের মাঝখান দিয়ে ইটের সলিং রাস্তা রয়েছে। রাস্তার উত্তর পাশ মৃত ঈমান আলীর উত্তরাধীকার সূত্রে প্রাপ্ত বসত ভিটাসহ ঘর বাড়ি রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে আর.এস ম্যাপে মাঠ জরিপ বদর আমিনের ভূলবসত ১১৯ ও ১২০ দাগের উভয়ের মধ্যে দুটি হাল দাগ লিপিবদ্ধ করেন। এর একটি দাগ নং-৩৮৭ সলিং রাস্তার উত্তর পাশে আর রাস্তার দক্ষিণ পাশে ৫৩৯ নং দাগ। এই দুুটি দাগে দুটি ভিন্ন মালিক থাকা সত্ত্বেও দাগ দুটি আমিন একত্রিত করায় বর্তমানে উভয়ের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

অভিযোগকারী মৃত ঈমান আলীর ছেলে মিজানুর রহমান বলেন, তেবাড়িয়া মৌজায় মেইন পাকা রাস্তা লাগুয়া দক্ষিণ-পশ্চিম পার্শ্বে ১২০ নং দাগে উত্তরাধীকারী সূত্রে বতস বাড়ি নির্মান করে আমরা বসবাস করে আসছি। মাঠ জরিপ বদর আমিনের আর এস ম্যাপে ভূলের কারণে পার্শ্ববর্তী পূর্ব পাশের ১১৯ নং দাগের ওয়ারেশগণ আমাদের রাস্তা লাগুয়া বসতভিটা দখলসহ ঘরবাড়ি উচ্ছেদে এলাকার কুচক্রি মহলের উষ্কানিতে নানা মুখী ষড়যন্ত্র করছে।

এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ওয়াডের্র ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে মৃত ঈমান আলীর ওয়ারেশগণ উক্ত জমিতে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। কিন্তু বর্তমানে পার্শ্ববর্তী দাগের ওয়ারেশগণ ম্যাপ জঠিলতার সুযোগে জমিটি দখলে নিতে চেষ্টা করছে। বাইরের একটি মহল তাদের উস্কানি দিয়ে চলেছে।

এ অবস্থায় উভয় পক্ষের মধ্যে বসতবাড়ি দখলকে কেন্দ্র করে যেকোন সময় বড় ধরনে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের বাশংকা করছে স্থানীয়রা।
শার্শার পল্লীতে জমির মালিককে বসত বাড়ি থেকে
উচ্ছেদ করতে ষড়যন্ত্র করছে প্রতিপক্ষ

আশানুর রহমান আশা-বেনাপোল : যশোরের শার্শায় মাঠ জরিপ আমিনের ভূলের খেসারত দিতে হচ্ছে একটি পরিবারের। হাল জরিপ আর.এস ম্যাপে আমিন ভুল করায় প্রকৃত কবলা দলিল মূলে খরিদকৃত জমির মালিককে বসত বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে প্রতিপক্ষ একটি মহল। আর প্রতিপক্ষ গ্রুপকে উষ্কানি দিয়ে সহযোগিতা করেছ এলাকার একটি কুচক্রি মহল।

জানা যায়, শার্শা উপজেলার ডিহি ইউনিয়নের তেবাড়িয়া গ্রামের মৃত ঈমান আলী তেবাড়িয়া মৌজায় এস.এ খতিয়ান নং-২৪২ নালিশী এস,এ দাগ নং ১২০ দক্ষিণ পশ্চিম পার্শ মেইন পাকা রাস্তা লাগুয়া ৫ শতক জমি রেজিঃ কবলা দলিল মূলে ১৯৮২ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ক্রয় করেন। কবলা দলিল নং- ২৫৬৮। ঈমান আলীর ক্রয়কৃত জমিতে তার ওয়ারেশগণ বসত বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। ১২০ দাগের লাগুয়া পূর্ব পার্শে ১১৯ নং দাগে মৃত মহর আলী ৯ শতক জমি ক্রয় করেন। ওই জমিতেও মহর আলীর ওয়ারেশগণ ঘর বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। দুটি দাগের মাঝখান দিয়ে ইটের সলিং রাস্তা রয়েছে। রাস্তার উত্তর পাশ মৃত ঈমান আলীর উত্তরাধীকার সূত্রে প্রাপ্ত বসত ভিটাসহ ঘর বাড়ি রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে আর.এস ম্যাপে মাঠ জরিপ বদর আমিনের ভূলবসত ১১৯ ও ১২০ দাগের উভয়ের মধ্যে দুটি হাল দাগ লিপিবদ্ধ করেন। এর একটি দাগ নং-৩৮৭ সলিং রাস্তার উত্তর পাশে আর রাস্তার দক্ষিণ পাশে ৫৩৯ নং দাগ। এই দুুটি দাগে দুটি ভিন্ন মালিক থাকা সত্ত্বেও দাগ দুটি আমিন একত্রিত করায় বর্তমানে উভয়ের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

অভিযোগকারী মৃত ঈমান আলীর ছেলে মিজানুর রহমান বলেন, তেবাড়িয়া মৌজায় মেইন পাকা রাস্তা লাগুয়া দক্ষিণ-পশ্চিম পার্শ্বে ১২০ নং দাগে উত্তরাধীকারী সূত্রে বতস বাড়ি নির্মান করে আমরা বসবাস করে আসছি। মাঠ জরিপ বদর আমিনের আর এস ম্যাপে ভূলের কারণে পার্শ্ববর্তী পূর্ব পাশের ১১৯ নং দাগের ওয়ারেশগণ আমাদের রাস্তা লাগুয়া বসতভিটা দখলসহ ঘরবাড়ি উচ্ছেদে এলাকার কুচক্রি মহলের উষ্কানিতে নানা মুখী ষড়যন্ত্র করছে।

এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ওয়াডের্র ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে মৃত ঈমান আলীর ওয়ারেশগণ উক্ত জমিতে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। কিন্তু বর্তমানে পার্শ্ববর্তী দাগের ওয়ারেশগণ ম্যাপ জঠিলতার সুযোগে জমিটি দখলে নিতে চেষ্টা করছে। বাইরের একটি মহল তাদের উস্কানি দিয়ে চলেছে।

এ অবস্থায় উভয় পক্ষের মধ্যে বসতবাড়ি দখলকে কেন্দ্র করে যেকোন সময় বড় ধরনে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের বাশংকা করছে স্থানীয়রা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here