শীতার্তদের পাশে “ফালতু”

0
270
উওম চক্তবর্তী, : শীতার্তদের জন্য তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে হবে।মানুষ মানুষের জন্য/জীবন জীবনের জন্য কথাগুলো শুধু মুখে মুখে আউড়িয়ে যান অনেকেই। কিন্তু প্রতি বছরই অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে, মহানুভবতার পরিচয় দেয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘ফালতু”একদল তরুণ-তরুণী এটা প্রমাণ করে দেখান যে ‘মানুষ মানুষের জন্য’।
এখন শীতকাল। শীতে কাঁপছে দেশ। শীতের কনকনে বাতাস আর ঘন কুয়াশায় অচল হয়ে পড়ে জনজীবন। কুয়াশার মলিন চাদরে মুুখ ঢেকে পুরো প্রকৃতিকে করে তুলেছে শীত রানী। শীত মানে শীতের পিঠা, সবুজ তরকারি, খেজুরের রসের স্বাদ গ্রহণ ইত্যাদি। মুড়ি-মুড়কি চিবিয়ে লেপ-কাঁথা মুড়ি দিয়ে আরাম করা।
দু’বেলা দু’মুঠো খাবারের সংস্থানের চিন্তায় দিন-রাতের ঘুম যাদের হারাম শীত তাদের জীবনে সত্যিকার অর্থেই মড়ার উপর খাঁড়ার ঘায়ের মতো। এরপরও শীতের কুয়াশা ভেজা ভোরে সূর্য ওঠার আগেই জীবনের তাগিদে তাদের ঘর থেকে বের হতে হয়। কিছু না হোক, পেটের জ্বালা তো মেটাতে হবে। তাই তো শীতের তীব্রতাকে উপেক্ষা করেই বেঁচে থাকার আশা বয়ে নেয়ার শক্তি জুগিয়ে যান তারা। শীতবস্ত্র কিনতে গিয়ে সাধ্যের সঙ্গে সামর্থ্যের সামঞ্জস্য করতে পারেন না তারা। শীতের পোশাক কেনার পরিবর্তে অনেককেই চাল-ডাল কেনার চিন্তায় মগ্ন থাকতে হচ্ছে। এ কারণেই শীত সহজেই জবর কামড় বসাতে পারে তাদের শরীরে। তাই এর থেকে সহসা মুক্তি পেতে সরকার, বিত্তবান আর স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলোর দিকে তাকিয়ে থাকেন ওইসব অভাবি মানুষ। একটা করে গরম কাপড় দিয়ে প্রতি বছরই এ অসহায়দের নীরব কান্নাটুকু মুছে দেয়ার আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন যশোরের মনিরামপুরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘ফালতু’। ‘আত্মার কাছে দায়বদ্ধতায় হাতে রাখি হাত’_ এ সস্নোগানকে সামনে রেখে সংগঠনটির সদস্যরা তীব্র শীতকে উপেক্ষা করে বিভিন্ন জায়গা থেকে শীতবস্ত্র সংগ্রহ করতে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছে। শীতের কাপড় কেনার জন্য সবার কাছে হাত পেতেছে, তহবিল সংগ্রহ করেছে। বিভিন্ন স্থান থেকে সংগ্রহ করা সেই শীতের কাপড় আর সংগৃহীত তহবিলের টাকায় কেনা শীতের কাপড় নিয়ে তারা ছুটে যাবে দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে। শীতার্ত মানুষকে তীব্র শীত থেকে আগলে রাখতে তাদের হাতে তুলে দিবে এক টুকরো গরম কাপড়। তাতে হাসি ফুটবে শীতার্ত মানুষের মুখে, খুশি হবে তারাও। মাসব্যাপী চলবে  তাদের শীতবস্ত্র বিতারন। চটের বস্তা হাতে বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত হয়ে শীতবস্ত্র সংগ্রহের জন্য এলাকায় বিওবানদের কাছে ছুটে চলেছে তারা,  পার্শ্ববর্তী  বিভিন্ন এলাকা চষে বেড়ায় তারা। সংগ্রহ করে প্রায় ৩০০-৫০০শীতের কাপড়।
এবারের শীতবস্ত্র বিতরণ কর্মসূচি দুই ভাগে ভাগ করা হয়। যশোরের বাইরে উত্তরবঙ্গে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হবে । শীতবস্ত্র বিতরণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হবে যশোরের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সহায়তায়। এতে সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রায় ৫০০জন নারী-পুরুষ ও শিশুকে শীতবস্ত্র এবং ৪০টি পরিবারকে কম্বল প্রদান করা হবে । এ অনুষ্ঠানে সমাজের গুনীজনরা, সাংবাদিকগন ও শিক্ষকম-লী উপস্থিত থাকবেন। পরে ডিসেম্বর দিনাজপুরে শহরের বিভিন্ন অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতারন করা হবে ।এবিষয়ে,”ফালতু” সংগঠনের সভাপতি দেব জানান, সংগৃহীত শীতবস্ত্র থেকে গরম কাপড়, অসহায় মানুষের মাঝে বিতরণ করা হবে । যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার কাশিমনগর, ইত্যা, কুলিপাশা ওরোহিতা ইউনিয়নে মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র প্রদান করা হবে । এ কারণেই প্রতিবারের মতো এবারও আমরা আর্তমানবতার সেবায় শীতবস্ত্র সংগ্রহ করেছি এবং অসহায় শীতার্তদের মাঝে তা বিতরণ করবো। প্রত্যেকেরই নিজ নিজ অবস্থান থেকে মানবতার জন্য হাত বাড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সংগঠনটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here