শেখ হাসিনার সম্মানে নৈশভোজে যেতে প্রণবের ফোন, দোটানায় মমতা

0
240

কলকাতা প্রতিনিধি : নিমন্ত্রণ পেয়ে ঠিক করে রেখেছিলেন যাবেন না। পাঠাবেন দলের কোনো এমপিকে। কিন্তু সোমবার ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির একটি ফোন দোটানায় ফেলে দিল পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে। আগামী শুক্রবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিল্লি সফরে আসছেন। পরেরদিন শনিবার তার সম্মানে রাষ্ট্রপতি ভবনে নৈশভোজ। সেই নৈশভোজে মমতাকে নিমন্ত্রণ জানিয়ে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির চিঠি এসেছিল আগেই। এবার পেলেন ফোন।

প্রণব মুখার্জির আন্তরিক ওই ফোনে দোটানায় পড়ে গেলেন মমতা ব্যানার্জি। শেখ হাসিনা যেদিন ভারতে আসছেন, ঘটনাচক্রে ওই দিনই পশ্চিমবঙ্গের জেলা সফর শেষ করে কলকাতায় ফিরছেন মমতা।

শেখ হাসিনার সঙ্গে মমতার সম্পর্ক খুবই মধুর। তবু মমতা তার সম্মানে আয়োজিত নৈশভোজে আমন্ত্রণ পেয়ে যাবেন না ভেবেছেন একটাই কারণে। সেটি হলো ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সেখানে উপস্থিত থাকবেন। বিভিন্ন ইস্যুতে পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে নরেন্দ্র মোদির একটা দ্বৈরথ চলছে গত কয়েক বছর ধরেই। এজন্য ওই নৈশভোজ মমতা ব্যানার্জি এড়িয়ে যেতে চেয়েছেন।

পাশাপাশি আরো একটি বিষয় নিয়ে দোটানায় মমতা ব্যানার্জি। সেটি হলো, তিস্তা চুক্তি প্রসঙ্গ। মমতা ব্যানার্জি খুব ভালো করেই জানেন, নৈশভোজে শেখ হাসিনার সঙ্গে মুখোমুখি হলে তিস্তার পানি বণ্টন প্রসঙ্গটি আলোচনায় উঠে আসবে। ভারত সরকারেরও ইচ্ছে রয়েছে মমতা যদি ওই নৈশভোজে অংশ নেন তাহলে বিষয়টি নিয়ে শেখ হাসিনা ও মমতা ব্যানার্জিকে মুখোমুখি বসিয়ে দেওয়ার। সেই বৈঠকে ভালো কিছু পাওয়া গেলেও যেতে পারে। যেমনটা ২০১৫ সালে নরেন্দ্র মোদি ও মমতার ঢাকা সফরের সময় হয়েছিল। আলাদা একটি বৈঠকে মোদি, মমতা ও শেখ হাসিনা বসেছিলেন। তখন মোদি বলেছিলেন তিস্তা নিয়ে আলোচনা করে এগোনো হবে। এবারো সেই রকমই একটি পরিকল্পনা রয়েছে। তবে মমতা যদি দিল্লিতে ওই নৈশভোজে না যান তাহলে সেটি হবে না।

এছাড়া আরো একটি কারণ রয়েছে মমতার ওই নৈশভোজে না যাওয়ার পেছনে। তা হলো শুধু তিস্তার চুক্তি করলেই হবে না। গরমের সময় তিস্তায় যদি পানি না থাকে তাহলে বাংলাদেশকে চাহিদামতো পানি দেওয়া যাবে কি করে। এর জন্য দরকার দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা। আর তা করতে পারে ভারত সরকার। সেরকম কোনো প্রকল্প যে হবে এরকম কোনো কথা দিল্লির তরফে পশ্চিমবঙ্গকে জানানো হয়নি।

তবে কী মমতার হাসিনার নৈশভোজে না যাওয়ার বিষয়টি একেবারেই নিশ্চিত?? তৃণমূলের একটি সূত্র জানিয়েছে, সেটা অনেকটাই নির্ভর করবে মমতার জেলা সফরের কাজকর্ম কেমন হচ্ছে তার ওপর। শেষ মুহূর্তে তিনি বেশ কিছু বিষয় পর্যালোচনা করবেন। তারপর ঠিক করবেন তিনি যাবেন কি না। তবে এখন পর্যন্ত না যাওয়ার বিষয়েই তিনি অনড় রয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here