সপ্তাহে সাতদিনই খোলা থাকবে বেনাপোল বন্দর

0
317

নিজস্ব প্রতিবেদক : আজ ১ আগস্ট থেকে বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দরে সপ্তাহে সাতদিন এবং দিনে ২৪ ঘণ্টা আমদানি রফতানি কার্যক্রম চালু হয়েছে। তবে জনবল, অবকাঠামো ও উপকরণ সংকটের মধ্য দিয়েই চালু হলো এ কার্যক্রম। আমদানি-রফতানি ও পাসপোর্ট যাত্রীদের সেবা কার্যক্রম গতিশালী করার লক্ষ্যে মঙ্গলবার থেকে এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এ কার্যক্রম শুরু হওয়ায় বন্দর ব্যবহারকারীরা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তবে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যক্রমটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করার কথা থাকলেও সেটি হয়নি।

বন্দর সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সরকারের নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১ আগস্ট থেকে সপ্তাহে সাত দিন এবং ২৪ ঘণ্টা বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর খোলা থাকবে। আমদানি রফতানি বাণিজ্যে বেনাপোল ও পেট্রাপোল স্থলবন্দর সপ্তাহে ৭ দিন ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার দাবি ব্যবসায়িদের দীর্ঘদিনের। এর পেক্ষিতে সার্বক্ষণিক বন্দর খোলা রাখার এই কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এ বিষয়ে বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠন ও প্রশাসনের সদস্যদের কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের নিদের্শনা দিয়ে চিঠি দিয়েছে কাস্টম কর্তৃপক্ষ। সরকারের এ উদ্যোগকে স্বাগতও জানিয়েছেন বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠন। এ কার্যক্রমের জন্য জনবল ও ইকুইপমেন্ট বৃদ্ধিসহ প্রস্তুতিও গ্রহণ করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বন্দর ব্যবহারকারীরা জানিয়েছেন, দিনে ২৪ ঘণ্টা দু’দেশের বন্দর খোলা থাকলে বেশি উপকৃত হবে ছোট বড় আমদানি রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান। এতে বন্দরের পণ্যজট ও যানজট কমবে। বাড়বে সরকারের রাজস্ব আয়। সহজ হবে পণ্য আমদানি রফতানি বাণিজ্য।

বেনাপোল কাস্টমস হাউসের কমিশনার মো. শওকাত হোসেন জানিয়েছেন, ১ আগস্ট থেকে কার্যক্রম সপ্তাহে সাতদিন এবং ২৪ ঘণ্টা চালানোর নির্দেশনা পাওয়ার পর তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এ জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপও গ্রহণ করা হয়েছে। এর ফলে দ্রুত ও অধিক পরিমাণে পণ্য খালাস করা সম্ভব হবে। আমদানি, রফতানি কার্যক্রমে গতি বাড়বে।

তিনি বলেন, যদিও ২৪ ঘণ্টা কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে জনবলের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। এর কিছু পূরণ হয়েছে, বাকিটাও পূরণের প্রত্যাশা রয়েছে। আর ইকুইপমেন্টের কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে। এগুলো দূর করার আশ্বাসও তারা পেয়েছেন।

সূত্রমতে, বেনাপোল স্থলবন্দরে ভয়াবহ পণ্যজট এবং যানজটে বন্দরের স্বাভাবিক কাজকর্মে মারাত্মক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। যানজটের কারণে ভারত এবং বাংলাদেশের উভয় পাশে ব্যবসায়ীরা দ্রুত মালামাল খালাস নিতে পারেন না। কোলকাতা থেকে রওনা হবার পর একটি পণ্যবাহি ট্রাক পেট্রাপোল পার হলে বেনাপোল বন্দরে পৌঁছাতে সময় লাগে ১৫ দিন। এরপর রয়েছে কাস্টমস এর শুল্কায়ন জটিলতা। ফলে মালামাল খালাসে সৃষ্টি হয় অহেতুক বিলম্ব। এই সব সমস্যা সমাধান ও সেবা গতিশীল করার লক্ষ্যে ২৪ ঘণ্টা বন্দর খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বেনাপোল বন্দরে এই মুহূর্তে মালামাল রাখার ধারণক্ষমতা ২০ থেকে ২৫ হাজার মেট্রিক টন। কিন্তু মালামাল রয়েছে দুই লাখ মেট্রিক টন। যত্রতত্র খোলা আকাশের নিচে, রোদ-বৃষ্টিতে নষ্ট হচ্ছে আমদানিকৃত এসব মালামাল। ভারতের অংশে ২০/২৫ দিন পর্যন্ত আমদানিকৃত পণ্যবাহী ট্রাক দাঁড়িয়ে থাকে। এরপর আবার যখন বাংলাদেশে প্রবেশ করছে তখন বেনাপোল বন্দরে মালামাল রাখার জায়গার অভাব এবং ক্রেন ও ফর্কলিফট না থাকার কারণে পণ্য আনলোডের অপেক্ষায়ও ১০/১২ দিন দাঁড়িয়ে থাকছে। ২৪ ঘণ্টা বন্দর খোলা থাকলে সেই সমস্যার বহুলাংশে সমাধান হবে বলে আশাবাদী বন্দর ব্যবহারকারীরা।

আমদানি ও রফতানিকারকদের দাবি, বন্দরের নিজস্ব ট্রাক টার্মিনাল, আমদানিকৃত বিভিন্ন কোম্পানির নতুন গাড়ি রাখার জন্য দুইশ একর জমির উপরে ওপেন ইয়ার্ড, ভারী মালামাল মেশিনারি বা অন্যান্য মালামালের ক্ষেত্রে নতুন নতুন ইয়ার্ড এবং শেড স্থাপন করতে হবে।

এছাড়াও ভারতীয় ট্রার্মিনাল থেকে আমড়াখালী পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার বাইপাস সড়ক জরুরি নির্মাণ করতে হবে। বেনাপোল বন্দরের প্রশাসনিক কার্যালয় না থাকায় বহুতল বিশিষ্ট একটি নতুন ভবন নির্মাণ জরুরি। এছাড়া পাসপোর্ট যাত্রীদের সুবিধার্থে ২৪ ঘণ্টা কাস্টমস, ইমিগ্রেশন খোলা এবং এ সব যাত্রীদের থাকা, খাওয়ার সুব্যবস্থাসহ এখানে ৫০ শয্যা বিশিষ্ট একটি বন্দর হাসপাতাল দরকার। ২৪ ঘণ্টা কার্যক্রম চালুসহ সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধির স্বার্থে বন্দরের অবকাঠামোসহ এগুলো বাস্তবায়ন করা জরুরি প্রয়োজন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বেনাপোল স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক (প্রশাসন) রেজাউল করিম জানান, মঙ্গলবার (আজ) থেকে ২৪ ঘণ্টা বন্দর খোলা থাকবে। অবকাঠামো ও জনবল সংকট থাকলেও মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২৪ ঘণ্টা সেবা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বর্তমান জনবলের সমন্বয় করে কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। পরবর্তীতে সমস্যা সমাধানের জন্য মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়েছে। আশা করা হচ্ছে পর্যায়ক্রমে সংকটগুলো কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here