সেকমো ডাক্তারের দৌরাত্বে শার্শা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের অচলাবস্তা ক্লিনিক গুলোর রমরমা ব্যবসা

0
105

আশানুর রহমান আশা বেনাপোল- সেকমো ডাক্তারের দৌরাত্বে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের অচলাবস্থা। রোগীরা তাদের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে। এ সুযোগে ক্লিনিক গুলোর রমরমা ব্যবসা শুরু হয়েছে। পকেট ভারী হচ্ছে সেকমো ডাক্তারদের।

শার্শার ৪ লক্ষ মানুষের জন্য একটি মাত্র সরকারী স্বাস্থ্য কেন্দ্র। একই সাথে ঝিকরগাছা উপজেলার প্রায় ৪টি ইউনিনের ডেঢ় লক্ষাধিক মানুষ এখান থেকে চিকিৎসা সেবা নিয়ে থাকে। শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে দীর্ঘদিন ধরে রয়েছে ডাক্তারের স্বল্পতা। তাই রোগীদের নির্ভর করতে হয় সেকমো ডাক্তারের উপর। আর এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে অসহায় রোগীদের ফাঁদে ফেলে টেষ্ট বানিজ্যে মেতে উঠেছে তারা। শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের আশপাশে গড়ে উঠা বে-সরকারী ক্লিনিকের সাথে আতাত করে অসহায় রোগীদের ফাঁদে ফেলে প্রতি মাসে সেকমো ডাক্তাররা কামিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা।

এমনই প্রমান মিলেছে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও তার আশপাশে গড়ে ওঠা কয়েকটি বে-সরকারী ক্লিনিকে সরজমিনে ঘুরে।

একাধিক সুত্রের দাবি, শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আগত রোগীদের বিভিন্ন টেষ্টের নামে পাঠানো হয়ে থাকে হাসপাতালের আশপাশে গড়ে ওঠা বে-সরকারী ক্লিনিকে। সেখানে উচ্চ মূল্যে টেষ্ট করানোর পর রোগীদের ব্যবস্থাপত্র দেয়া হয়। আর এ কর্মের সাথে লিপ্ত রয়েছে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের টিএইচও সহ সেকমো ডাক্তাররা।

একাধিক সুত্র জানান, শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের কয়েকজন সেকমো ডাক্তার বে-সরকারী ক্লিনিকের মালিকানার সাথে জড়িত রয়েছে। প্রতিমাসে উক্ত সেকমো ডাক্তাররা ৭০ থেকে ৯০ হাজার টাকা পর্যন্ত টেষ্ট কমিশন বাবদ নিচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পার্শবর্তী এক বে-সরকারী ক্লিনিক হতে গত মে মাসে সেকমো ডাক্তার নিজামুল ইসলাম ৫৫ হাজার ৩শ ৫৯ টাকা টেষ্ট কমিশন বাবদ উত্তোলন করেছেন। একই মাসে সেকমো ডাক্তার মশিউর রহমান ২৭ হাজার ৪১ টাকা, সেকমো ডাক্তার নুর ইসলাম বাহার ১০ হাজার ৪শ ১১ টাকা, ডাক্তার অশোক কুমার ৫ হাজার ৮শ ১৬ টা। গত জুন মাসে সেকমো ডাক্তার নিজামুল ইসলাম ৫০ হাজার ৩শ ৭৮ টাকা, সেকমো ডাক্তার মশিউর রহমান ৪৭ হাজার ৫শ ৯২ টাকা, সেকমো ডাক্তার নুর ইসলাম বাহার ২১ হাজার ৭৬ টাকা, ডাক্তার অশোক কুমার ১৪ হাজার ৬শ ২৫ টাকা। গত জুলাই মাসে সেকমো ডাক্তার নিজামুল ইসলাম ৭৪ হাজার ৫শ ৯৫ টাকা, সেকমো ডাক্তার মশিউর রহমান ৫৪ হাজার ১৩ টাকা, সেকমো ডাক্তার নুর ইসলাম বাহার ১৫ হাজার ৩শ টাকা, ডাক্তার অশোক কুমার ১২ হাজার ২শ ২৫ টাকা, ডাক্তার মারুফ ২৯ হাজার ২শ ৬০ টাকা। গত আগষ্ট মাসে ডাক্তার মারুফ ১৬ হাজার ৫৫ টাকা, সেকমো ডাক্তার নিজামুল ইসলাম ৬৯ হাজার ৩শ ৯০ টাকা, সেকমো ডাক্তার মশিউর রহমান ৪৬ হাজার ৮শ ৮ টাকা, ডাক্তার রফিকুল ৮ হাজার ৩শ ৯৫ টাকা, সেকমো ডাক্তার পরিতোস ৯ হাজার ৪শ ৭৫ টাকা, সেকমো ডাক্তার বাহার ২৯ হাজার ৬শ ৮৬ টাকা উত্তোলন করেছে। এছাড়া বে-সরকারী ক্লিনিক থেকে প্রতি মাসে মালিকানার লভ্যাংস তো পাচ্ছেই।

এ ছাড়া শার্শা সদর ইউনিয়ন পরিষদের সামনের এক বে-সরকারী ক্লিনিকের সাথে রয়েছে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সেকমো ডাক্তারদের রয়েছে মালিকানা। সেখানেও প্রতিদিন শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আগত রোগীদের টেষ্টের নামে পাঠানো হচ্ছে। সেখান থেকে টেষ্ট কমিশন বাবদ সেকমো ডাক্তাররা নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা।

এ ব্যাপারে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা অশোক কুমারের কাছে জানতে চাইলে তিনি আমাদের প্রতিবেদককে কিছু না জানিয়ে কাজের অজুহাতে অফিস থেকে বাহিরে চলে যান।

শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সেকমো ডাক্তার নিজামুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রোগীর রোগ নির্নয় করতে হলে তো টেষ্ট দিতেই হবে। তিনি টেষ্ট বানিজ্যের ব্যাপারটা অস্বীকার করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here