স্থায়ী আমানতে আবগারি শুল্ক বাড়তে পারে, শঙ্কিত আমানতকারীরা

0
251

নিজস্ব প্রতিবেদক : সুদের হার কম থাকায় ব্যাংকে আমানত রাখার হার এখন অনেক কম। আমানতকারীরা এখন আর ব্যাংকে টাকা রাখতে উত্সাহী হচ্ছেন না। এমন অবস্থায় আসছে বাজেটে (২০১৭-১৮) স্থায়ী আমানতের ওপর আবগারি শুল্ক ১০০ ভাগ বাড়ানো হবে—এমন সংবাদে বেশ শঙ্কিত আমানতকারীরা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আবগারি শুল্ক বাড়ানো হলে ব্যাংকে আর টাকা রাখবেন না ছোট আমানতকারীরা। তবে তাঁরা মনে করেন, নিরাপত্তা যদি টাকা রাখার কারণ হয়, তাহলে আবগারি শুল্ক বাড়লেও আমানতের ওপর তেমন প্রভাব পড়বে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে ব্যাংকগুলোর আমানতের গড় সুদ ৫ দশমিক ১ শতাংশের মধ্যে। এদিকে বর্তমানে মূল্যস্ফীতির হার ৫ থেকে সাড়ে ৫ শতাংশ। এখন ব্যাংকে এক লাখ টাকা আমানত থাকলে বছর শেষে ১ লাখ ৫ হাজার টাকা পাওয়া যাবে ঠিকই। কিন্তু বাড়তি পাঁচ হাজার টাকা লাভ হিসেবে ধরলে ভুল হবে। কারণ, এক লাখ টাকার সঙ্গে পাঁচ হাজার যোগ করেও মূল্যস্ফীতির কারণে আগের চেয়ে কম পরিমাণে পণ্য ও সেবা কেনা যাবে। তার ওপর আবগারি শুল্ক বাড়ানো হলে ব্যাংকে টাকা রেখে কোনো লাভ হবে না বলেই মনে করছেন তাঁরা।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত সোহানা আমির বলেন, ‘এটা খুবই হতাশাজনক। এখন ব্যাংকে টাকা রেখে সব কেটে ৫ শতাংশের নিচে সুদ পাওয়া যায়। আরও কাটলে আর থাকবে কী? কোথায় যে টাকা রাখব, তা-ই বুঝতে পারছি না।’

আরেক আমানতকারী বলেন, ‘সঞ্চয়পত্রেও শুনছি সুদের হার কমানো হবে। এমন অবস্থায় ব্যাংকে আমানতে আবগারি শুল্ক বাড়ালে বাসাতেই টাকা রাখতে হবে।’

অর্থ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে ২০ হাজার টাকা থেকে এক লাখ টাকার নিচে স্থায়ী আমানতে এক বছরে আবগারি শুল্ক দিতে হয় ১৫০ টাকা। এই হার বাড়ানো হলে দিতে হবে ২০০ টাকা। এক লাখ টাকার ওপর থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত আবগারি শুল্ক (এক্সাইজ ডিউটি) ধরা হচ্ছে এক হাজার টাকা, যা বর্তমানে রয়েছে ৫০০ টাকা। আর ১০ লাখের ওপর থেকে এক কোটি টাকার স্থায়ী আমানতে বর্তমানে দেড় হাজার টাকা আবগারি শুল্ক দিতে হয়। বাড়ানো হলে দিতে হবে তিন হাজার টাকা। এক কোটির ওপর থেকে পাঁচ কোটি রাখার ক্ষেত্রে বর্তমানে আবগারি শুল্ক দিতে হয় বছরে সাড়ে সাত হাজার টাকা। শুল্কহার বাড়লে দিতে হবে ১৫ হাজার টাকা। আর পাঁচ কোটি টাকার ওপরে আমানত রাখলে এক বছরে আবগারি শুল্ক ১৫ হাজার টাকার পরিবর্তে ৩০ হাজার টাকা দিতে হবে।

অর্থাৎ, ব্যাংকে এক লাখ টাকা রাখলে এক বছর পর উৎসে কর আবগারি শুল্ক ও মূল্যস্ফীতি বাবদ কেটে রাখার পর মূল মূলধনই কমে যাবে আমানতকারীর।

বেসরকারি মেঘনা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুরুল আমিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমানতকারীরা স্পষ্টতই নিরুৎসাহিত হবেন। তাঁরা এখন ভাববেন, ব্যাংকে টাকা রাখলেই কাটা যায়। ধরেন, কেউ ডিসেম্বরে স্থায়ী আমানত করলেন, তাঁর কিন্তু এক বছর না হতেই এই শুল্ক সরকারকে দিতে হবে। অথচ সে সুদ তখনো পায়নি। কিন্তু এই শুল্ক তাঁকে দিতে হবে। এটা তাঁর মূল মূলধনের ওপর চাপ ফেলবে। অর্থাৎ এক দিনের জন্যও স্থায়ী আমানত করলে তাঁকে এই শুল্ক দিতে হবে।’

ব্যাংক সুদের হার এখন অনেক কম, তাই টাকা রাখলে এমনিতে মূল্যস্ফীতি, উৎসে কর, মেইনট্যানেন্স চার্জ মিলিয়ে যা কেটে রাখা হয়, আমানতকারীর লাভ বলতে আর কিছুই থাকে না বলে জানান নুরুল আমিন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান জায়েদ বখত বলেন, যাঁরা নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে ব্যাংকে স্থায়ী আমানত করেন, তাঁদের জন্য আবগারি শুল্ক বাড়লেও তার তেমন প্রভাব পড়বে না। তবে যাঁরা সঞ্চয় থেকে সুদ পেতে চান, এই টাকা তাঁদের একটা উৎস হয়, তাঁদের জন্য কিছুটা সমস্যায় বলা যেতে পারে। আমাদের সঞ্চয় রাখার খাত কম। ব্যাংকে আমানত রাখা, সঞ্চয়পত্র কেনা এবং পুঁজিবাজারে খাটানো। যাঁরা ঝুঁকি নিতে চান না, তাঁদের ভরসা সঞ্চয়পত্র কিংবা ব্যাংকে টাকা রাখা। তবে বর্তমান মূল্যস্ফীতির হার সুদের হারের চেয়ে বেশি হওয়ায় এমনিতেই মানুষ ব্যাংক আমানত রেখে প্রকৃত অর্থে কোনো মুনাফাই করতে পারছে না।

তবে এটার একটি ইতিবাচক দিক আছে বলেও মনে করেন জায়েদ বখত। তিনি বলেন, ‘মানুষের সঞ্চয় করার প্রবণতা কমলে ভোগ বাড়বে। এমনিতেই আমাদের দেশীয় সঞ্চয় বেসরকারি বিনিয়োগের চেয়ে বেশি। তাই সঞ্চয় কমলে ভোগ কিছুটা বাড়তে পারে। যার প্রভাবে অর্থনীতিতে গতিশীলতা আসবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here