স্বাগত মাহে রমজান

0
368

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সর্বশেষ খবর অনুযায়ী গতকাল সারাদেশে কোথাও পবিত্র মাহে রমজানের চাঁদ দেখা যায় নাই। তাই আগামীকাল রবিবার হইতেই বাংলাদেশে শুরু হইতেছে রমজানের রোজা। আজ রাত্রে তারাবিহ নামাজ আদায় ও সাহরি গ্রহণের মাধ্যমে এই দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ মাহে রমজান উদযাপন শুরু করিবেন। গতকাল হইতেই সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের মুসলমানগণ রোজা রাখিতে শুরু করিয়াছেন। সাধারণত ইহার একদিন পর আমাদের দেশে আগমন ঘটে রমজানের। অন্যান্য মুসলিম উত্সবের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য একই কথা। আমরা পুণ্যময় রমজানের এই আগমনকে আহলান সাহলান বা স্বাগত জানাই।

রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের সওগাত নিয়া আসে মাহে রমজান। আরবি ‘রামাদান’ শব্দটি ‘রামদ’ শব্দমূল হইতে উদভূত। ইহার আভিধানিক অর্থ দহন, প্রজ্বলন, জ্বালানো তথা পুড়াইয়া ভষ্ম করিয়া ফেলা। রমজানের রোজা মানুষের কুপ্রবৃত্তি ও নফসের দাসত্ব জ্বালাইয়া-পুড়াইয়া ছারখার করিয়া দেয় বলিয়া এই মাসের নাম হইয়াছে রমজান। রমজান মাসে সিয়াম সাধনা তথা রোজা রাখার মাধ্যমে রোজাদারগণ আত্মসংযম ও কৃচ্ছ্রতার নীতি অবলম্বন করিয়া থাকেন। দৈহিক ও আত্মিক উভয় দিক দিয়াই তিনি পরিশুদ্ধ হন। এইভাবে তিনি আল্লাহর একনিষ্ঠ ও অনুগত বান্দায় পরিণত হন। সূরা বাক্বারার ১৮৩ নং আয়াতে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘তোমাদের জন্য রমজানের রোজা ফরজ করা হইয়াছে। যেভাবে ফরজ করা হইয়াছিল তোমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর। যাহাতে তোমরা তাকওয়া বা খোদাভীতি অর্জন করিতে পার।’ এই তাকওয়া অর্জনের মাধ্যমে রোজাদারদের বাকি এগার মাসের জীবন-যাপন নিয়মানুবর্তিতার ধারায় সুশৃঙ্খল হইয়া ওঠে। এইজন্য রমজানকে মুমিনের সাংবাত্সরিক প্রশিক্ষণের মাস হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

মুসলমানদের জীবনে রমজান মাস আল্লাহ তায়ালার দয়া, ক্ষমা ও পাপমুক্তির এক সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি করে। এইজন্য রমজান নিয়া মুমিনের এত আয়োজন ও উন্মাদনা। এই পবিত্র মাসের শবে ক্বদরে নাজিল হইয়াছে মহাগ্রন্থ আল-কুরআন। তাই এই মাসের মর্যাদা ও তাত্পর্য অপরিসীম। রমজান মাসে বেহেশতের দরজাসমূহ খুলিয়া দেওয়া হয়, দোযখের দরজাসমূহ বন্ধ করা হয় এবং শয়তানকে বন্দি করা হয় জিঞ্জিরে (তিরমিযি, নাসাঈ ও ইবনে মাজা)। এই মাসের নেক আমল অন্য মাসের তুলনায় বহুগুণ বৃদ্ধি করা হয়। হাদীসে সাওম বা রোজাকে ‘জুন্নাতুন’ বা ঢাল স্বরূপ বলা হইয়াছে। কেননা রোজা পরনিন্দা, ঝগড়া-বিবাদ, দুর্নীতি-অনিয়ম, অশ্লীলতা, ব্যভিচার, বেহায়াপনা, অন্যায়-অত্যাচার, ওজনে কম দেওয়া, খাদ্যদ্রব্যে ভেজাল দেওয়া, চল্লিশ দিনের বেশি ব্যবসায়িক মাল মজুদদারি করা ইত্যাদি যাবতীয় পাপকাজ হইতে বিরত রাখে। যে ব্যক্তি রোজা রাখিয়াও এইসব পাপাচার করিবে, রাসূলুল্লাহ (স) আল্লাহর নিকট তাহার রোজার কোনো দরকার নাই বলিয়া উল্লেখ করিয়াছেন। ইহাতে তাহার উপবাসই করা হইবে মাত্র। রোজার মৌলিক লক্ষ্য অর্জিত হইবে না।

রোজা শুধু আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য রাখা হয়। ইহাতে লোক দেখানোর কোনো অবকাশ নাই। তাই ইহার প্রতিদান আল্লাহ স্বয়ং দিবেন এবং মাফ করিয়া দিবেন রোজাদারের অতীতের সকল গুনাহ-খাতা। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সঠিকভাবে রমজানের রোজা পালন করিবার তাওফিক দিন। আমীন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here