৯১ বছর বয়সী বিজয়ী সুন্দরী

0
325

বিচিত্র

ম্যাগপাই নিউজ ডেস্ক: ক্রিস্টিনা ফার্লি আর কদিন পরেই ৯২ বছর বয়স পূর্ণ করবেন। যুক্তরাষ্ট্রের কানেটিকাট অঙ্গরাজ্যের এই নারী সেখানকার প্রবীণ সুন্দরী প্রতিযোগিতার (মিস কানেটিকাট সিনিয়র আমেরিকা) বর্তমান বিজয়ী।

শৈশব কাটিয়েছেন পোল্যান্ডে। নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে এসেছেন আজকের অবস্থানে। ক্রিস্টিনা বললেন, ‘আমার ত্বক সুন্দর। তাই লিপস্টিক ছাড়া আর কোনো মেকআপ নিই না। লোকে ভাবে, বয়স ৬০ বছর পেরোলেই বুঝি সব ফুরিয়ে গেল। এটা ঠিক নয়। মানুষকে নিজের অস্তিত্ব জানান দিতে হয়—তুমি এখনো অনেক কিছু করতে পারো…নাচ, সেলাই, আঁকাআঁকি থেকে শুরু করে যা খুশি’।

ক্রিস্টিনার আশাবাদ এবং বেঁচে থাকার আনন্দ দেখার মতো। প্রথম জীবন তাঁর সুখের ছড়াছড়ি ছিল। কিন্তু বয়স যখন ১৪ বছর, তখন স্বদেশ পোল্যান্ড আক্রান্ত হলো। জার্মানি ও সোভিয়েত ইউনিয়নের সেই আগ্রাসনের পরিণাম দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। হানাদার সেনাবাহিনী তাঁকে সপরিবারে উরাল পর্বতমালা এলাকার হিমশীতল এলাকায় নিয়ে যায়। কষ্টসাধ্য সেই দীর্ঘ যাত্রা এবং রুশ শ্রমশিবিরে থাকার বাধ্যবাধকতা ও খাদ্যকষ্ট ছিল অসহনীয়। কালো রুটি ছাড়া আর কিছুই সেখানে খেতে পাননি তাঁরা। জার্মানি ১৯৪১ সালের ২২ জুন সোভিয়েত ইউনিয়নে হামলা করার আগ পর্যন্ত দুটি বছর এভাবেই কাটায় ক্রিস্টিনার পরিবার। তাঁর বাবা আন্দ্রেজ তখন নির্বাসিত পোলিশ সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। কিন্তু পোল্যান্ডে হিটলারের হানার আগ পর্যন্ত তিনি পরিবারবিচ্ছিন্ন ছিলেন। ক্রিস্টিনার মা ওয়ালেনতিনা তখন সন্তানদের নিয়ে নৌযানে চড়ে কাস্পিয়ান সাগর পেরিয়ে উজবেক রাজধানী তাসখন্দে চলে যান। একপর্যায়ে তিনি সন্তানদের ফারসি এতিমখানায় পাঠিয়ে দেন। তারা আবার কাস্পিয়ান পেরিয়ে তেহরানের দক্ষিণাঞ্চলে পৌঁছায়। ক্রিস্টিনা সেখানে গিয়ে খুব অসুস্থ হয়ে পড়েন। সেরে উঠে তিনি সেনাবাহিনীতে যেতে চাইলেও সুযোগ পাননি। একপর্যায়ে নার্স হিসেবে মিসর ও ইরাকে কাজ করেন। পরে বাবার দেখা পান এবং নাৎসি বাহিনীর হুমকি এড়িয়ে ইউরোপে পাড়ি দেন। স্ট্যানলি স্লোওইকোস্কি নামের এক সেনাসদস্যকে বিয়ে করেন।
উজবেকিস্তানে ম্যালেরিয়ায় মায়ের মৃত্যুসংবাদ পান ক্রিস্টিনা। তিন সন্তানের জননী হিসেবে ১৯৪৯ সালে বিধবা হন। ১৯৫৫ সালে চার সন্তান ও যৎসামান্য অর্থ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান। সেখানে নতুন জীবন, ইভা নামের আরেক মেয়ের মা হন। ১৯৭৯ সালে ক্রিস্টিনা বিয়ে করেন এড ফার্লি নামের এক ব্যক্তিকে। কানেটিকাটের পোলিশ সমাজে তিনি বেশ সক্রিয়। ক্রিস্টিন নানা রকমের ক্লাবে যোগ দেন, শিশুদের পোলিশ নৃত্য শেখাতে শুরু করেন। শেষ জীবনে এসে যুক্তরাষ্ট্রে জনপ্রিয় সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে আগ্রহী হন। ৭০ বছর বয়সে প্রথম অংশ নিয়ে দ্বিতীয় রানারআপ হন। ২০১৬ সালে তৃতীয়বার অংশ নিয়ে তিনি সেরা সুন্দরী নির্বাচিত হন। এতে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৪টি রাজ্যের প্রবীণ সুন্দরীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here