মমিননগর নওদা গ্রামস্থ যশোরে চাঞ্চল্যকর ফজেল হত্যা মামলায় ৪ জনের বিরুদ্ধে সিআইডি’র চার্জশিট

0
301

এম আর রকি : যশোর শহরতলী মমিন নগর নওদা গ্রামস্থ লিটিল গ্রামার স্কুলের পাশে চাঞ্চল্যকর যুবক রাকিব রায়হান ওরফে ফজেল হত্যা মামলায় ৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে। ক্রিমিনাল ইনভেষ্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি) পুলিশের যশোর এসআই তহিদুল ইসলাম এই চার্জশীট দাখিল করেন।এ সময় গ্রেফতারকৃত ৩জনকে এই মামলা থেকে অব্যাহতির প্রার্থনা জানিয়েছেন।
চার্জশীটভূক্ত আসামীরা হচ্ছে, যশোর সদর উপজেলার পালবাড়ী আয়শা পল্লী গাজীর ঘাট রোডের আব্দুল হান্নানের ছেলে রাজু আহম্মেদ ওরফে আকাশ,মনিরামপুর উপজেলার রুপসপুর গ্রামের মৃত মানিক মোড়লের ছেলে নাজিম উদ্দিন,যশোর শহরের পুরাতন কসবা গাজীর ঘাট রোডের আব্দুল গফুর গাজীর ছেলে গাউছুল ইসলাম ওরফে রিকু ও পালবাড়ি গাজীর ঘাট রোডের ওসমান গনির ছেলে মোমিনুর রহমান ওরফে রচি। গ্রেফতারকৃত অথচ এই হত্যা কান্ডে জড়িত নয় এরা হচ্ছে, পুরাতন কসবা গাজীর ঘাট রোডের আলম শেখের ছেলে সিরাজুল ইসলাম,সদর উপজেলা গোপালপুর গ্রামের আজিজুর রহমান ওরফে আজিজারের ছেলে জাহিদুর রহমান ওরফে পিন্টু ও বালিয়া ভেকুটিয়া গ্রামের মৃত গোলাম মোস্তফা ছেলে ইকরাম হোসেন।
যশোর সদর উপজেলার পাগলাদাহ পশ্চিম পাড়ার মৃত কবির হোসেনের ছেলে আব্দুর রহিম গত ২০১৫ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রাতে যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় অজ্ঞাতনামা আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। তিনি মামলায় উল্লেখ করেন, রাকিব রায়হান ওরফে ফজেল (২০) যশোরের অভয়নগর উপজেলার দূর্গাপুর গ্রামের ফিরোজ মোল্যার ছেলে ও তার শ্যালক। রাকিব রায়হান হত্যাকান্ডের দিন হতে দুই মাস পূর্বে যশোর শহরতলী মুড়োলী মোড় আমেনা মেডিসিন হাসপাতাল প্রাইভেট লিমিটেডের চাকুরী করতেন। সে ৬ সেপ্টেম্বর সকালে দুলা ভাই আব্দুর রহিমের বাড়িতে আসে। ওই দিন বিকেল ৪ টায় রাকিব রায়হান দুলা ভাইয়ের বাড়ি হতে ইজিবাইক যোগে পালবাড়ীর উদ্দেশ্যে আসে। সন্ধ্যা ৬টা ৩৩ মিনিটে তার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে দূলা ভাইকে জানায় আকাশদের সাথে আছে। পরবর্তীতে রাত ৮ টায় দুলাভাই খবর পান এক যুবককে মমিন নগর নওদাগা লিটিল গ্রামার স্কুলের পাশ থেকে ছুরিকাঘাত অবস্থায় জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। হাসপাতালের মর্গে গিয়ে দেখেন তার শ্যালক রাকিব রায়হান ওরফে ফজেলের লাশ। ওই রাতে তিনি কোতয়ালি থানায় এজাহার দায়ের করেন। মামলাটি নথিভূক্ত হওয়ার পর কোতয়ালি থানায় কর্মরত এসআই মিরাজ মোসাদ্দেককে তদন্তর দায়িত্ব দেন অফিসার ইনচার্জ। পরবর্তীতে মামলাটি যশোর সিআইডি জোনে স্থানান্তরিত হয়। সিআইডিতে এসআই তহিদুল ইসলাম মামলাটি তদন্তর কার্যক্রম শুরু করে উক্ত ঘটনায় সাথে জড়িত নাজিম উদ্দিন,গাউছুল ইসলাম ওরফে রিকুসহ সিরাজুল ইসলাম,ইকরাম,জাহিদুর রহমান পিন্টুকে গ্রেফতার করে। পরবর্তীতে ধৃত আসামীদের মধ্যে দু’জনের স্বীকারোক্তি মোতাবেক রাজু আহম্মেদ ওরফে আকাশ ও মোমিনুর রহমান রচি জড়িত নিশ্চিত হন। তবে এই দু’জনকে গ্রেফতার করতে পারেনি। তদন্ত কার্যক্রম শেষে আদালতে অভিযোগ পত্র নং২০৯৫ তারিখঃ২৯/১২/১৬ ইং ও কোতয়ালি মডেল থানার মামলা নং ৩৬ তারিখঃ৬/৯/১৫ ইং দাখিল করেন। বুধবার ২৯ মার্চ আদালতে জমা দেওয়া হয়েছে।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here