রাজগঞ্জ থেকে বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যবাহী সুগন্ধি কালোজিরা ধান

0
498

উত্তম চক্তবর্ত্তী : বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যবাহী সুগন্ধি কালোজিরা ধান ৷ এক সময় গ্রাম-বাংলার মানুষের কাছে খুবই জনপ্রিয় ছিল কালোজিরা ধান । কালোজিরা, কাশিয়া, বিন্নি সহ বিভিন্ন জাতের সুগন্ধি চিকন চাল দিয়ে তৈরী হত খিচুড়ি সিন্নি-পায়েশ, ফিরনি ও জর্দা সহ আরও অনেক মুখরোচক খাবার । কিন্তু এসবই এখন কালের স্মৃতি । যশোরের মনিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের হাট বাজারে এখন আর এ চাল পাওয়া যায় না । বলা চলে সারাদেশেই প্রায় বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যবাহী এই সুগন্ধি চাল । শুধু কালো জিরা ধান নয়, ক্রমবর্ধমান খাদ্যের চাহিদা মেটাতে সারাদেশ থেকেই হারিয়ে যাচ্ছে প্রাকৃতিক বান্ধব হাজারো জাতের দেশি ধান । অল্প কিছু বছরের ব্যবধানে এই ধান গুলোর জায়গা দখল করে নিয়েছে উফশী ও উচ্চ ফলনশীল জাতের ধান । মনিরামপুর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে এসব জাতের ধান আবাদকারী কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এ জাতের ধানের ফলন হয় কম । বিঘা প্রতি অন্য জাতের ধান যেখানে ১৫ থেকে সবোর্চ্চ ২০ মণ উংপাদন হয় সেখানে এ জাতের ফলন হয় সর্বচ্চ ৮ /৯ মণ পর্যন্ত । তবে বাজারে দাম দিগুন পাওয়া যায় । সার, সেচ ও পরিচর্যাও লাগে কম । সেই হিসেবে আবাদে লোকসান হয়না বললেই চলে । এখনও গ্রামের গৃহস্থ পরিবারের কাছে এ ধানের কদর যথেষ্ট । তথ্যানুযায়ী, এ জাতের ধান আগে বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে আবাদ হত । কিন্তু এসব ধানের উৎপাদন কম হওয়ায় কৃষকরা বীজ আমদানীর উপর নির্ভশীল হয়ে পড়েন । এর ফলে হারিয়ে যাচ্ছে এক সময়ের জনপ্রিয় কালো জিরা, কাশিয়া-বিন্নি, সরু, বেগুন বিচি, জামাই ভোগ, দাদখানি ও খৈয়া মটর সহ নান জাতের দেশী ধান । উপজেলার রাজগঞ্জ ত্রলাকার কৃষকরা জানান, এজাতের ধান আবাদে প্রয়োজনীয় সহযোগীতা বা প্রদর্শনী প্লট প্রকল্প গ্রহন করলে বিলুপ্তির হাত থেকে তা ফেরানো সম্ভব হবে । কালো জিরা ধান উপজেলায় প্রায় জমিতে চাষ হয় । উচ্চ ফলনশীল জাতের ধানের চেয়ে এ ধানের ফলন কম হয় বিধায় কৃষকরা এ ধানের চাষ কম করেন । কৃষকরা নিজ আগ্রহেই এ ধান চাষ করেন । এ ধানটি দেশীয় জাতের ধানের মধ্যে অন্যতম ছিল ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here