৫০টি দেশে বাংলাদেশের পতাকা উড়াতে সুবর্ণযাত্রা

0
83

বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে বিশ্বের কাছে বাংলাদেশের ধারাবাহিক উন্নয়ন ও সাফল্য গাঁথাকে তুলে ধরার মহতী উদ্যোগের নাম সুবর্ণযাত্রা। ৬ অক্টোবর বুধবার রাজধানী ধানমণ্ডির একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে আগামী ১২ অক্টোবর ২০২১ তারিখে ‘সুবর্ণযাত্রা’ এর মোটর শোভাযাত্রা শুরুর ঘোষণাসহ এই যাত্রাটি সম্পর্কিত বিশদ ধারণা প্রদান করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ‘সুবর্ণযাত্রা’ এর বাংলাদেশ প্রতিনিধি সৈয়দ মো. দ্বীন ইসলাম চৌধুরী, সঞ্জীব বিশ্বাস সঞ্জয়, সাদিয়া জররীন এবং ‘সুবর্ণযাত্রা’ এর বাংলাদেশের মিডিয়া ও কমিউনিকেশন কো-অর্ডিনেটর মডেল-অভিনেতা অন্তু করিম।

বক্তারা জানান, পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসরত দেশপ্রেমিক প্রবাসী বাংলাদেশীদের গড়া, সুইডেনে নিবন্ধিত আন্তর্জাতিক অলাভজনক সামাজিক উন্নয়নমূলক সংগঠন ‘চিন্তা ও চাকা’ এর ব্যানারে, ব্যক্তি স্বার্থের উর্ধ্বে, দেশ-মাতৃকাকে হৃদয়ে ধারণ করে আগামী ১২ অক্টোবর নরওয়ের নর্ডক্যাপ থেকে একটি মোটর শোভাযাত্রা শুরু হবে। সুবর্ণযাত্রার অভিযাত্রীরা ইউরোপ ও এশিয়ার প্রায় ৫০টি দেশ অতিক্রম করে, আনুমানিক ৪০,০০০ কি.মি. পথ পাড়ি দিয়ে আগামী ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অপর্ণের মধ্যে দিয়ে এই ঐতিহাসিক যাত্রা সম্পন্ন করবে।

সুবর্ণযাত্রা এর বাংলাদেশের মিডিয়া ও কমিউনিকেশন কো-অর্ডিনেটর মডেল-অভিনেতা অন্তু করিম বলেন, ‘একদল দেশপ্রেমিক প্রবাসী বাংলাদেশীদের এমন একটি উদ্যোগ সত্যিই নিজেদের গর্বিত করে। এই উদ্যোগের সঙ্গে সরাসরি জড়িত হতে পেরে আমিও গর্বিত। বাংলাদেশের পতাকা বিশ্বের ৫০টি দেশে উড়াবে সুবর্ণযাত্রা; র্দীঘপথ পাড়ি দিয়ে ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের জাতীয় স্মৃতিসৌধে এসে শেষ হবে ঐতিহাসিক যাত্রা। ধারাবাহিকভাবে মিডিয়া এবং সাংবাদিক ভাইদের সুবর্ণযাত্রার আপডেট তথ্য ও সংবাদ পৌঁছে দেব।’

‘চিন্তা ও চাকা’ এর প্রেসিডেন্ট মতিউর রহমান খান এক অডিও বার্তায় জানান, এই অবিস্মরণীয় যাত্রায় ৩টি প্রধান বিষয়ের বার্তা বহন করা হবে। এক. বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের গৌরবজ্জ্বল ইতিহাস, বাঙালীর অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর অনস্বীকার্য অবদান ও বিগত ৫০ বছরে বাংলাদেশের অসামান্য অর্জনকে বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরা। দুই. যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই- এ শ্লোগানকে বুকে ধারণ করে বিশ্বশান্তির বার্তা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়া। তিন. জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব ও দূষণমুক্ত বাসযোগ্য সুন্দর একটি সবুজ পৃথিবী, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য রেখে যাওয়ার অঙ্গীকার ও আহ্বান।

তিনি বলেন, সুবর্ণযাত্রা তার এই পথপরিক্রমায় প্রায় প্রতিটি প্রধান শহরে স্থানীয় প্রবাসী বাংলাদেশীদের সঙ্গে সমন্বয় করে, বিগত ৫০ বছরে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব উন্নয়নের তথ্যচিত্র বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরবে। প্রচারকৃত বিষয়ভিত্তিক কিছু মৌলিক গান ও কথামালার ডালা সাজিয়ে তা ছড়িয়ে দিতে দিতে এগিয়ে আসবে প্রাণপ্রিয় মাতৃভূমির দিকে। সুবর্ণযাত্রা দেশের কথা বলে। তাই সুবর্ণযাত্রা আমাদের সকলের। সুবর্ণযাত্রা বাংলাদেশের।