অসহায় মানুষের নীরব আর্তনাদ

0
207

দেশে প্রতিদিনই কোনো না কোনো ভয়াবহ বা অমানবিক ঘটনা ঘটিয়াই চলিয়াছে। এই সকল ঘটনা এমনই মর্মান্তিক যে ঘটনাটি শুনিলে যে কাহারও হূদয় রক্তাক্ত না হইয়া পারে না। তবুও একশ্রেণির আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী কর্মকর্তা ও জনসাধারণের প্রতিনিধির ঔদাসীন্য, অমানবিক আচরণ আর হূদয়হীনতায় অকালে ঝরিয়া পড়িতেছে অনেক সোনার প্রসূন। নিরপরাধ, অসহায় আর সম্পূর্ণভাবে নিরীহ শিশু-কিশোর-তরুণ-প্রৌঢ়-বৃদ্ধ কেহই বাদ যায় না ইহাদের নির্দয়তা হইতে। আর ব্যক্তিটি যদি কিশোরী, তরুণী, যুবতী বা গৃহবধূ হন তাহা হইলে তো কোনো কথাই নাই। এই সকল হতভাগ্য নারীর লাঞ্ছনায় আকাশ পাংশুবর্ণ ধারণ করিলেও বা ইহাদের আর্তনাদে ও ফরিয়াদে বাতাস ভারী হইয়া উঠিলেও ঐ পাষণ্ডদের চোখের এক কোনাও সামান্যতম আর্দ্র হয় না। বরং দুর্বৃত্তদের রক্ষার জন্য তাহারা সকল প্রকার বর্বরতার পথ বাছিয়া লয়।

এইরূপ এক বেদনার্ত ঘটনায় শোকে মুহ্যমান হইয়াছে গাজীপুরের গোসিঙ্গা ইউনিয়নের কর্ণপুর সিটপাড়া গ্রামের বাসিন্দারা। ঐ গ্রামের নিঃসন্তান দম্পতি হযরত আলী ও হালিমা বেগম বড় সাধ করিয়া ৮ বত্সর পূর্বে তিন মাসের শিশুকন্যা আয়েশাকে লালন-পালনের দায়িত্ব লইয়াছিল। অপত্য স্নেহ ও মায়ামমতায় ঐ শিশুকে তাহারা অত্যন্ত যত্ন সহকারে প্রতিপালন করিতেছিল। কিন্তু বিধি বাম! তাই শিশুকন্যাটি একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হইবার পর স্থানীয় বখাটে ও দুর্বৃত্ত কতিপয় যুবক তাহাকে উত্ত্যক্ত করিতে শুরু করে এবং মাস দুই পূর্বে স্কুল হইতে বাড়ি ফিরিবার পথে তিন যুবক তাহাকে অপহরণ ও নির্যাতন করে। রক্তাক্ত অবস্থায় তাহাকে উদ্ধারের পর হতভাগ্য পিতা হযরত আলী এই জঘন্য অপকর্মের বিচার চায় ইউপি সদস্য আবুল হোসেনের নিকট। কিন্তু সে এক হাজার টাকার বিনিময়ে বিষয়টি নিষ্পত্তি করার জন্য জোর চাপ দিতে থাকে আর উহাতে রাজী না হওয়ায় পিতা-পুত্রীসহ গোটা পরিবারের উপর নামিয়া আসে হুমকি-ধামকি। তাহাদের গরু-ছাগলও দুর্বৃত্তরা ছিনাইয়া নেয়। থানার এএসআইকে গোটা বিষয়টির তদন্তভার দেওয়া হইলেও তিনিও কোনো প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা নেন নাই। হুমকি-ধামকি আর ভয়-ভীতির মধ্যে রাজমিস্ত্রী হযরত আলী আয়েশাকে লইয়া অন্যত্র কিছু সময় গা-ঢাকা দিয়া থাকিতেও বাধ্য হয়। কিন্তু উহাতেও রক্ষা পাইবার কোনো সম্ভাবনা না দেখিয়া মেয়েকে লইয়া শ্রীপুর রেলস্টেশনে গিয়া আত্মহননের পথ বাছিয়া লয়। অর্থাত্, ক্ষোভে-দুঃখে যন্ত্রণায় এই জীবনের মায়া ত্যাগ করিতে বাধ্য হয় হযরত আলী এবং তাহার ঐ শিশুকন্যা।

এই ঘটনার ব্যাপারে জনপ্রতিনিধি অসহায় ও নিরুপায় মানুষের পাশে না দাঁড়াইয়া দুর্বৃত্তদের রক্ষা ও গরিবের ইজ্জতকে পদ্মপাতার জল ঠাওরাইয়া যে জঘন্য কাজ করিয়াছে উহাতে তাহাকে ধিক্কার জানাইলেও কম হয়। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাও ঐ দুর্বৃত্ত শ্রেণির লোকজনকে বাঁচাইবার ফন্দি-ফিকিরের সাথী হইয়া যে এক ভয়াবহ কালচারের জন্ম দিয়াছে তাহা পরিণামে কী পরিস্থিতির সৃষ্টি করে কে জানে! ভাবিতে অবাক হইতে হয় যে, আইন-কানুন সবই অসহায়ের পক্ষে ও দুর্বৃত্তের বিপক্ষে থাকা সত্ত্বেও আইনের রক্ষকরা নিছক ব্যক্তিগত স্বার্থে উহাকে পদদলিত করে। ইহা যে কোনো অবস্থাতেই ভালো নহে, এই বোধ ও চেতনা যত তাড়াতাড়ি সমাজপতি ও আইনের রক্ষকদের মনে সঞ্চার হয় ততই মঙ্গল। অন্যথায় অসহায় মানুষের আর্তনাদে ও অভিশাপে তাহারা নিজেরাই একদিন বিপদাপন্ন হইয়া পড়িলে উহা নিশ্চয়ই অস্বাভাবিক হইবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here