আমরাও পারি

0
385

গবেষণার সুযোগ ও পরিবেশ পাইলে যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বিজ্ঞানীরা স্ব স্ব প্রতিভা বিকাশের ক্ষেত্রে অবিস্মরণীয় সাফল্যের স্বাক্ষর রাখিতে পারেন, আমরা প্রায়শই তাহার প্রমাণ পাইয়া থাকি। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ‘নাসা’য় কর্মরত বাংলাদেশি বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা অর্জন করিয়াছেন নাসার গুরুত্বপূর্ণ পুরস্কার ‘ইনোভেটর অব দ্য ইয়ার’। মহাকাশে সহজে ব্যবহার করা যাইবে, এমন ক্ষুদ্রাকৃতি ও যুগান্তকারী প্রযুক্তির যন্ত্র আবিষ্কারের মাধ্যমে তিনি জয় করিয়াছেন ২০১৭ সালের নাসার এই সেরা উদ্ভাবন পুরস্কার। এমন সমীহযোগ্য আবিষ্কারের জন্য নাসার সাময়িকী ‘কাটিং এজ’-এর সর্বশেষ সংখ্যা তাহাকে লইয়া প্রচ্ছদ প্রতিবেদন করিয়াছে।

বিশ্বব্যাপী জ্যোতির্বিজ্ঞান, ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং, পদার্থবিজ্ঞান ও চিকিত্সা ক্ষেত্রে অবদান রাখিতেছেন বাংলাদেশি গবেষকরা। কিছুদিন পূর্বে পার্কিনসন্স রোগ লইয়া গবেষণার জন্য ইউরোপিয়ান মলিকুলার বায়োলজি অর্গানাইজেশন হইতে পুরস্কার পাইয়াছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বিজ্ঞানী ড. মিরাতুল মোহামিদ খান মুকিত। অণুজীব বিজ্ঞানে গবেষণার জন্য জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কোর কার্লোস জে ফিনলে ২০১৭ পুরস্কার অর্জন করিয়াছেন বাংলাদেশি চিকিত্সক সমীর সাহা। ইউনেস্কো জানাইয়াছে, মেনেনজাইটিস এবং নিউমোনিয়ার জন্য দায়ী দুইটি ব্যাক্টেরিয়ার বিরুদ্ধে প্রতিষেধক টিকার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করিয়াছেন ডা. সমীর, যাহা তৃতীয় বিশ্বের দেশসমূহের শিশুস্বাস্থ্যে সরাসরি ইতিবাচক প্রভাব ফেলিয়াছে। ইতিপূর্বে টেকসই কৃষি উন্নয়নে অবদান রাখিবার জন্য জাপানের টোকিও হইতে প্রসপার ডটনেট-স্কোপাস ইয়াং সায়েন্টিস্ট অ্যাওয়ার্ড অর্জন করিয়াছেন বাংলাদেশি তরুণ বিজ্ঞানী ড. মো. শফিকুজ্জামান সিদ্দিকী। গত বত্সরও বাংলাদেশি বিজ্ঞানীদের বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার দেশের জন্য সম্মান বহিয়া আনে। তাহাদের মধ্যে বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য উদ্ভাবনে যুক্ত রহিয়াছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশি বিজ্ঞানী ড. শফিকুল ইসলাম ও তার সহকর্মীরা। বাংলাদেশি বিজ্ঞানী রুবাব খান ও তাহার দল যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার গডার্ড স্পেস ফ্লাইট সেন্টারে গবেষণাকালে পাঁচটি বিশালাকার ‘এটা টুইনস’ নক্ষত্রের সন্ধান পান, যাহার আবিষ্কার জ্যোতির্বিজ্ঞানের জন্য সবিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশি বিজ্ঞানী সেলিম শাহরিয়ার আবিষ্কার করিয়াছেন মহাকর্ষীয় তরঙ্গ, যাহার ধারণা দিয়াছিলেন আলবার্ট আইনস্টাইন।

যাহাদের নাম এখানে সংক্ষিপ্ত পরিসরে উচ্চারিত হইল, তাহাদের বাহিরেও রহিয়াছেন আরো অনেক শীর্ষ পর্যায়ের গবেষক। ইহা অত্যন্ত আনন্দের যে, উপযুক্ত পরিবেশ পাইলে এই মাটির প্রতিভাবান সন্তানেরা প্রমাণ করেন যে, তাহারা বাকি পৃথিবীর সহিত পাল্লা দিয়াই অর্জন করিতে পারেন সেরার তকমা। ইহার তাত্পর্যপূর্ণ দিক হইল—এই দেশেও যদি বিশ্বমানের গবেষণা-পরিবেশ সৃষ্টি করা সম্ভব হয়, তাহা হইলে আমরাও বিভিন্ন গবেষণাখাতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখিতে পারিব। আমাদের প্রতিভার অভাব নাই, অভাব রহিয়াছে সেই সকল প্রতিভাকে কাজে লাগাইবার। সুতরাং সেইদিকে আমাদের নজর দিতে হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here