আমরা শোকাহত, তুমি রবে হৃদয়ে!

0
306

মৃত্যুর সহিত পাঞ্জা লড়িয়া পরাস্ত হইয়াছেন র্যাবের গোয়েন্দা শাখার প্রধান সেনা কমান্ডো লে. কর্নেল আবুল কালাম আজাদ। গত শুক্রবার সামরিক কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হইয়াছে অকালপ্রয়াত দেশপ্রেমিক এই বীরকে। স্বজন-সহকর্মী শুধু নহে, দেশের মানুষের হূদয়কেও স্পর্শ করিয়াছে এই মৃত্যু। তাহা কেবল এই কারণে নয় যে তিনটি অবুঝ শিশুসন্তানকে শোকের সাগরে ভাসাইয়া মা ও স্ত্রীর নির্বাক চোখের সম্মুখে তিনি অকালে বিদায় নিয়াছেন; বরং সকল কিছুকে ছাপাইয়া উঠিয়াছে তাহার অনন্য দেশাত্মবোধ। যেখানে জঙ্গিদের বোমায় তিনি গুরুতর আহত হইয়াছেন, সেই সিলেটে তাঁহার যাইবার কথা ছিল না। কেবল দেশাত্মবোধের টানেই স্বতঃপ্রণোদিতভাবে তিনি সেখানে ছুটিয়া গিয়াছেন। সহযোদ্ধা প্যারা কমান্ডোদের বুদ্ধি-পরামর্শ দিয়াছেন। এমনকি ফিরিয়া আসিবার প্রাক্কালে বোমা বিস্ফোরণে নিহত দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে সতর্ক করিতে গিয়া তিনি নিজেই মর্মান্তিক পরিণতির শিকার হইয়াছেন বলিয়া জানা যায়। আজ চতুর্দিকে যেখানে দায়িত্ববোধ ও দেশাত্মবোধের দারুণ খরা চলিতেছে, সেখানে তাঁহার এই আত্মত্যাগের ক্ষতি যে সহজে পূরণ হইবার নহে— তাহা বলিবার অপেক্ষা রাখে না।

লে. কর্নেল আজাদের জন্ম ১৯৭৫ সালের ৩০ অক্টোবর চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে। ১৯৯৬ সালে ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টে কমিশন লাভের পর সেনা সদর ও প্যারা কমান্ডো ব্যাটালিয়নসহ বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্ব পালন করেন। ইংরেজিতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারী এই কর্মকর্তা কোম্পানি কমান্ডার হিসাবে র্যাবে যোগ দেন ২০১১ সালে। পরে র্যাবের গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তা হিসাবে জঙ্গিবিরোধী অভিযানে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করিয়াছেন। বিশেষ করিয়া হলি আর্টিজানের লোমহর্ষক ঘটনার পর অতি দ্রুত দেশিবিদেশি সকল পর্যায়ে আস্থা ফিরাইয়া আনার ক্ষেত্রে র্যাব কর্মকর্তা হিসাবে তাঁহার ভূমিকাও অনস্বীকার্য। সাহস, দক্ষতা ও পেশাদারিত্বের পরীক্ষায় তিনি উত্তীর্ণ হইয়াছেন আগেই। ইহার স্বীকৃতি হিসাবে প্রেসিডেন্ট পদক (পিপিএম) ও বাংলাদেশ পুলিশ পদকে (বিপিএম) ভূষিত হইয়াছেন। তবে একজন সৈনিকের জীবনে সর্বাপেক্ষা কঠিন যে পরীক্ষা— সেইটি হইল দেশপ্রেম। সর্বোচ্চ আত্মত্যাগের বিনিময়ে সেই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হইয়া তিনি যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করিয়া গেলেন তাহা শুধু বাংলাদেশের জন্যই নয়, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের ছোবলে জর্জরিত বর্তমান বিশ্বের জন্যও নিঃসন্দেহে অনুপ্রেরণার উত্স হইয়া থাকিবে। তাহার তিন শিশুসন্তান, স্ত্রী ও স্বজনদের সান্ত্বনা দেওয়ার মতো ভাষা আমাদের জানা নাই। আমরা প্রার্থনা করি, পরম করুণাময় যেন তাহাদের এই শোক সহ্য করিবার ক্ষমতা দেন।

আমরা তাহার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here