ইন্টারনেট সেবার উচ্চমূল্য ও ধীরগতি

0
285

দেশে ইন্টারনেটের ব্যবহার দ্রুত গতিতে বাড়িয়া চলিয়াছে। ব্যবহারের দ্রুত প্রবৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে গত ১০ বত্সরে ইন্টারনেটের ব্যান্ডউইথ মূল্য অনেক কমিয়া আসিলেও জনসাধারণ তাহার সুফল পাইতেছে না। ২০০৯ সালে যেখানে প্রতি এমবিপিএস ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথের মূল্য ছিল ২৭ হাজার টাকা তাহা কমিয়া বর্তমানে ৬২৫ টাকায় নামিয়া আসিলেও গ্রাহক পর্যায়ে ইন্টারনেটের মূল্যে বা সেবার মানোন্নয়নে উল্লেখযোগ্য কোনো ইতিবাচক প্রভাব পড়ে নাই। গত বত্সর জুনে প্রকাশিত তথ্যানুসারে, সার্কভুক্ত দেশগুলির জনসংখ্যা অনুপাতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যার দিক হইতে বাংলাদেশ শীর্ষে অবস্থান করিতেছে। অথচ সেই অনুপাতে সেবার মান, আউটসোর্সিংসহ তথ্যপ্রযুক্তিখাত হইতে আয়বৃদ্ধির কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জিত হয় নাই।

এতদিন দেশের একমাত্র সাবমেরিন কেবল লাইন ও ল্যান্ডিং স্টেশনের চাপকে ইন্টারনেটের মন্থরগতি এবং সেবামূল্য না কমাইবার অজুহাত হিসাবে দেখাইত সেবাদানকারীরা। ইতোমধ্যে দেশের দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল ও ল্যান্ডিং স্টেশনের কার্যক্রম শুরু হইয়াছে। প্রথমটির চাইতে আটগুণ বেশি গতিসম্পন্ন ব্যান্ডউইথের পরেও দেশে ইন্টারনেটের গতি বা সেবার মানবৃদ্ধির কোনো লক্ষণ নাই। এখনো নানা অজুহাতে ইন্টারনেটের মূল্য অপরিবর্তিত রাখিবার পক্ষেই কথা বলিতেছেন ইন্টারনেট সেবাদাতারা। মোবাইল ফোন অপারেটরদের জন্য ফোর জি নীতিমালাও চূড়ান্ত হইয়াছে। কিন্তু সেবাদাতাদের সহিত আপস করিয়া সরকার খসড়া নীতিমালায় প্রস্তাবিত রেভিনিউ শেয়ারিংয়ের হার ১৫ শতাংশ হইতে কমাইয়া সাড়ে ৫ শতাংশ নির্ধারণ করিয়াছে। অর্থাত্ মূল প্রস্তাবে অর্জিত আয়ের ১৫ শতাংশ রাজস্ব হিসাবে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা হওয়ার কথা থাকিলেও তাহা সাড়ে ৫ শতাংশে নামিয়াছে। তবুও ব্যবহারকারীদের আশ্বস্ত করিবার মতো কোনো সুসংবাদ নাই। কিছুদিন আগে পত্রিকান্তরে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হইয়াছে, প্রতি গিগাবাইট ইন্টারনেট ডাটা কিনিতে সেলফোন অপারেটরদের ব্যয় গড়ে ২৬ পয়সা হইলেও গ্রাহকের কাছে একই পরিমাণ ডাটা ২০০ টাকার বেশি দামে বিক্রয় করিতেছে অধিকাংশ অপারেটর। ইহা স্পষ্টতই গ্রাহক ঠকানো। এই ক্ষেত্রে অপারেটরের পাশাপাশি বিটিআরসির দায়ও কম নহে।

আমরা ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে সার্কভুক্ত দেশগুলির মধ্যে— এমনকি ভারতের তুলনায়ও আগাইয়া থাকিবার আত্মতুষ্টিতে ভুগিতেছি। অথচ ভারত তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বত্সরে লক্ষ লক্ষ লোকের নূতন কর্মসংস্থান করিতেছে এবং শত বিলিয়ন ডলারের রেমিটেন্স আয় করিতেছে, অথচ বাংলাদেশের সর্বপ্রকার সম্ভাবনা সত্ত্বেও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের আয় এখনো বিলিয়ন ডলারে পৌঁছায় নাই। তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করিতেছে সরকার। কিন্তু ডাটাভিত্তিক সেবা গ্রাহকদের জন্য ব্যয়সাশ্রয়ী যেমন নহে, তেমনি গতি মন্থরতায় সর্বোচ্চ সুফলও মিলিতেছে না। ইহা সার্বিকভাবে ডিজিটালাইজেশনের পথে অন্তরায়। এরূপ পরিস্থিতিতে বত্সরের শুরুতে সরকারের ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের নূতন মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্বভার গ্রহণ করিয়াছেন তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার। দায়িত্ব নিয়া বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে তিনি বলিয়াছেন, ইন্টারনেটের গতি বৃদ্ধি এবং মূল্যহ্রাসই তাহার প্রথম অগ্রাধিকার। ইহা ইতিবাচক। বেশ কয়েক বত্সর ধরিয়াই তিনি ডাটাভিত্তিক ইন্টারনেট সেবার অন্যায্য দাম নিয়া মুখর ছিলেন। দেশের গ্রামগঞ্জে ইন্টারনেটের যে করুণ অবস্থা, প্রতিনিয়ত তাহাও তুলিয়া ধরিয়াছেন। এখন তিনি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাইয়াছেন। আমরা আশা করিব এইবার পরিস্থিতি বদলাইবে। জনসাধারণ কম মূল্যে উচ্চগতির ইন্টারনেট সেবা পাইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here