ইসির কর্মপরিকল্পনা

0
424

২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির আগে ৯০ দিনের মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে। এই নির্বাচন সামনে রেখে গত ২৩ মে একটি খসড়া রোডম্যাপ দিয়েছিল নতুন নির্বাচন কমিশন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ভোট শেষ করতে এ বছরের জুলাই থেকে ভোটের তফসিল ঘোষণার আগ পর্যন্ত সময়ের করণীয় বলা হয়েছিল তাতে। গতকাল চূড়ান্ত রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন নতুন নির্বাচন কমিশনের এই রোডম্যাপ অনুযায়ী আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে চলতি মাস থেকেই কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। রোডম্যাপ প্রকাশ করে একে সূচনা দলিল হিসেবে উল্লেখ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেছেন, নির্বাচনের পথে কাজের জন্য এ কর্মপরিকল্পনাই সব নয়। সংযোজন-বিয়োজন করে সবার মতামত নিয়েই কাজ করবে নির্বাচন কমিশন। নতুন কর্মপরিকল্পনায় বলা হয়েছে, নির্বাচন কমিশন নির্ধারিত সময়ে সংসদ নির্বাচন করতে দৃঢ়তার সঙ্গে ও সুচিন্তিত পন্থায় এগিয়ে যাচ্ছে। দেশবাসী একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের অপেক্ষা করছে। নির্বাচন কমিশন মনে করে, সার্বিকভাবে দেশে জাতীয় নির্বাচনের একটি অনুকূল আবহ সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচন সামনে রেখে দেশের রাজনৈতিক মহলে যে আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে, তা গত কয়েক দিনের রাজনৈতিক কার্যক্রমে স্পষ্ট হয়ে ওঠে। নির্বাচন সামনে রেখে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে আলাপ-আলোচনা, নতুন নতুন জোট গঠনের প্রক্রিয়া থেকেই ধারণা করা যেতে পারে, দলগুলো নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। সরকারি দলের মধ্যে যেমন নির্বাচন নিয়ে কথা হচ্ছে, তেমনি সংসদে বিরোধী দল ও সংসদের বাইরে থাকা দেশের একটি বড় রাজনৈতিক দলও নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। নির্বাচনকালীন সরকারব্যবস্থা নিয়ে এরই মধ্যে সোচ্চার হয়েছে দলটি। শিগগিরই হয়তো এ বিষয়ে তাদের মতও জানাবে বিএনপি। অন্যদিকে নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে আওয়ামী লীগ এখন পর্যন্ত তাদের অবস্থানে অনড়। ধারণা করা যেতে পারে, নির্বাচন কমিশনের সামনে সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়াবে প্রধান দুই রাজনৈতিক দল ও জোটের অনড় অবস্থান। অন্যদিকে নির্বাচন কমিশনের ওপর জনপ্রত্যাশার যে বিপুল চাপ রয়েছে, তা পূরণ করাও হবে কমিশনের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ।

ঘোষিত রোডম্যাপ অনুযায়ী সাতটি করণীয় বিষয় ঠিক করেছে নির্বাচন কমিশন। এগুলো হচ্ছে—আইনি কাঠামোগুলো পর্যালোচনা ও সংস্কার, কর্মপরিকল্পনার ওপর পরামর্শ গ্রহণ, সংসদীয় এলাকার নির্বাচনী সীমানা পুনর্নির্ধারণ, জাতীয় পরিচয়পত্র প্রস্তুত ও বিতরণ করা, ভোটকেন্দ্র স্থাপন, নতুন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন, নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের নিরীক্ষা এবং নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট সবার সক্ষমতা বৃদ্ধি। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকালে নতুন নির্বাচন কমিশন কতটুকু প্রভাবমুক্ত থাকতে পারবে, এ বিষয়টি নিয়েও আলোচনা আছে। রোডম্যাপ প্রকাশের সময় এ বিষয়ে বক্তব্য রেখেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার। শুধু সরকার নয়, যেকোনো রাজনৈতিক দল বা দেশি-বিদেশি সংস্থার প্রভাবমুক্ত নির্বাচন করার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি। আমরা আশা করব, ঘোষিত রোডম্যাপ অনুযায়ী সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে কমিশন দৃঢ়তার পরিচয় দেবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here