একমাস পর বাইরের অনুষ্ঠানে যোগ দিলেন প্রধানমন্ত্রী

0
296

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিপিসি সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী। (ছবি: ফোকাস বাংলা)প্রায় একমাস পর এই প্রথম গণভবন ও নিজ কার্যালয়ের বাইরের কোনও অনুষ্ঠানে যোগ দিলেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। গত ৭ অক্টোবর যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফেরার পথ থেকে এই একমাস গণভবন ও প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল তার দাফতরিক ও দলীয় কর্মকাণ্ড। একমাস পর রবিবার (৫ নভেম্বর) সকালে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউয়ে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি কনফারেন্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন তিনি। সেখানে বিশ্ব নেতাদের উদ্দেশে বক্তব্যও রাখেন প্রধানমন্ত্রী।

গত একমাসে মন্ত্রিসভার কয়েকটি বৈঠকও হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে। বিদেশি অতিথিদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানগুলো হয়েছে গণভবনে। শেষে তবে সরকারি কাজ সেরেছেন নিজের তেজগাঁওয়ের কার্যালয়ে বসে। রাষ্ট্রীয় সফরে বিদেশে গিয়ে ফিরে আসার পর সফরের বিভিন্ন দিক তুলে ধরতে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গভবনে যান। এবার রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বঙ্গভবনে সাক্ষাৎও হয়নি তার। মৌচাক-মগবাজার ফ্লাইওভারের উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানেও যেতে পারেননি তিনি।

এই ফ্লাইওভারটি গত ২৬ অক্টোবর উদ্ধোধন করা হয়। সেখানে উপস্থিত হতে না পেরে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত ৩ নভেম্বর জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি শ্রদ্ধা নিবেদন ও ওইদিন বিকেলে খামার বাড়ি কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভায়ও উপস্থিত থাকতে পারেননি দলটির সভাপতি। গত ২৫ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের একটি হাসপাতালে পিত্তথলিতে অস্ত্রপাচারের পর দেশে ফিরে রেস্টে থাকার চেষ্টা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। না পারলেই নয়, এমন কাজগুলো সারতে কার্যালয়ে যেতে হয়েছে তাকে। তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অফিসিয়াল কোনও কাজ বাকি রাখেননি তিনি। একটু বেশি বয়সে অস্ত্রোপাচারের ফলে শেখ হাসিনাকে একটু বাড়তি সতর্কতা অনুসরণ করে চলতে হয়েছে।

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে গত ১৬ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্র গিয়েছিলেন শেখ হাসিনা। এই সফরে ২১ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে বক্তব্য রাখেন তিনি। পাশাপাশি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সভা ছাড়াও বেশ কয়েকজন সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে অংশ নেন। সাধারণ অধিবেশনে বক্তৃতায় মিয়ানমারের রোহিঙ্গা সংকট ও বাংলাদেশের ওপর শরণার্থীদের চাপের বিষয়টি বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

সাধারণ অধিবেশন শেষে ২২ সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্ক থেকে ভার্জিনিয়ার একমাত্র ছেলে ও তার তথ্য উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের বাসায় যান তিনি। সেখানে যাওয়ার পর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে ২৫ সেপ্টেম্বর সেখানে একটি হাসপাতালে তার পিত্তথলিতে অস্ত্রোপচার হয়। গত ৭ অক্টোবর দেশে ফিরে আসেন প্রধানমন্ত্রী। ওইদিন বিমানবন্দর থেকে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন পর্যন্ত পথে পথে লোক সমাবেশ ঘটিয়ে শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা জানায় ক্ষমতাসীন তার দল। এই সংবর্ধনায় দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও দেশবরেণ্য ব্যক্তিদের সমাবেশ ঘটে। ওইদিন বিমানবন্দরে গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘ছয় মাস খুব সাবধানে চলাফেরা করতে বলেছেন চিকিৎসকরা।’ ঢাকায় ফিরে বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে গলব্লাডারে অপারেশনের প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ডাক্তার ছয় সপ্তাহের জন্য একটু সাবধানে থাকতে বলেছেন। ছয় মাস খুব সাবধানে চলাফেরা করতে বলেছেন।’ প্রধানমন্ত্রী এ সময়ে দ্রুত সুস্থ হয়ে পুরোদমে কাজ করতে সবার কাছে দোয়াও চেয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমি দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই, সুস্থ হয়ে আবার যেন পুরোদমে কাজ করতে পারি। যেন সবার সেবা করে যেতে পারি। অবশ্য এখনও করে যাচ্ছি।’ নিজের বয়সের কথা মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, ‘বৃদ্ধ বয়সে তো একটু সময় লাগবেই। ৭১ বছর বয়স। কাজেই একটু সময় লাগবে। এই অপারেশনটা হয়তো ২০ বছর আগে হলে এত সময় লাগতো না।’

গণভবনের সরকারি বাসায় ঢুকেই প্রায় ৩/৪দিন শোবার ঘর দোতলা থেকেও নামেননি তিনি। এরপর অফিস করেছেন নিয়মিত। মন্ত্রিসভার বৈঠকগুলো তিনি তার কার্যালয়ে করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here