এক বহুমাত্রিক সফর

0
260

ইশফাক ইলাহী চৌধুরী : আজ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তিন দিনের ভারত সফর শুরু হচ্ছে। এ সফর নিয়ে একদিকে যেমন বাংলাদেশ ও ভারতের অনেকে আগ্রহভরে অপেক্ষা করছে; অন্যদিকে দেখা যাচ্ছে সফরকে ঘিরে নানা রাজনৈতিক বক্তব্য-পাল্টা বক্তব্য। ভারতে শেখ হাসিনার রাষ্ট্রীয় সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে সাত বছর পর। ২০১০ সালের জানুয়ারিতে তিনি এর আগের রাষ্ট্রীয় সফরে গিয়েছিলেন। অবশ্য এর মধ্যে আরও দুই দফা তিনি ভারত সফর করেছেন। ব্রিকস-বিমসটেক সম্মেলনে যোগ দিতে একবার এবং ভারতের বাঙালি রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সহধর্মিণী বিয়োগের পর আরেকবার। শুভ্রা মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে শেখ হাসিনার কেবল ব্যক্তিগত সখ্যই ছিল না; তার পিতৃভূমি বাংলাদেশের নড়াইল। অপরদিকে গত সাত বছরে আমরা ভারতের দু’জন প্রধানমন্ত্রীকে ঢাকা সফর করতে দেখেছি। ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে এসেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। ২০১৫ সালের জুনে এসেছিলেন নরেন্দ্র মোদি।

বস্তুত গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের উত্তরোত্তর উন্নতি হয়েছে এবং ব্যবসা-বাণিজ্য, যোগাযোগ, শিক্ষা-সংস্কৃতিসহ প্রায় প্রতিটি বিষয়ে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক একটা আদর্শ প্রতিবেশী সম্পর্কের মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এই সময়ে আমরা দেখেছি, স্থল সীমান্ত চুক্তির বাস্তবায়ন ও ছিটমহল বিনিময় হয়েছে। এটা প্রায় অর্ধশতাব্দী ধরে অমীমাংসিত ছিল। ভারতের সঙ্গে আমাদের সমুদ্রসীমার বিরোধ উভয় পক্ষের সম্মতিক্রমে নিষ্পত্তি হয়েছে, স্বাধীনতার পর থেকে যা অমীমাংসিত ছিল। আজকের সংঘাত-বিধ্বস্ত বিশ্বের দিকে তাকালে দেখতে পাব, স্থল ও সমুদ্রসীমার সমঝোতায় না আসতে পেরে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রতিবেশীদের মধ্যে সংঘাত লেগেই থাকে। এই প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ-ভারত স্থল ও সমুদ্রসীমার শান্তিপূর্ণ সমাধান বিশ্বের অনেক দেশের কাছে দৃষ্টান্ত হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে উভয় পক্ষের ব্যবসা-বাণিজ্য অনেক গুণ বেড়ে গেছে। ব্যবসার ক্ষেত্রে অনেক নতুন সংযোজন হয়েছে। যেমন বিদ্যুৎ আমদানি, স্থল ও নৌ ট্রানজিট ইত্যাদি। সড়ক ও রেলপথে এখন একাধিক স্থল ও নৌবন্দর চালু হয়েছে, যেখান থেকে অতি সহজেই উভয় দেশের জনসাধারণ ও বাণিজ্যিক পণ্য আরেক দেশে যেতে পারে। ভিসা প্রক্রিয়াও এখন অনেক সহজ হয়েছে, যা দু’দেশের জনপথের যাতায়াতও জানাশোনার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে।

বিশেষভাবে বলতে হবে উভয় দেশের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সহযোগিতার কথা। এটা বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। উভয় দেশই অঙ্গীকারবদ্ধ- অপশক্তি বা সন্ত্রাসী গোষ্ঠী যে দেশেরই হোক না কেন, তাকে কখনোই আশ্রয়-প্রশ্রয় দেওয়া হবে না। ভিনদেশের অপরাধী হস্তান্তর প্রক্রিয়াও অনেক সহজ ও দ্রুততর হয়েছে।

বাংলাদেশে ভারতের বিনিয়োগ উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। অতি সম্প্রতি ভারতীয় বিনিয়োগকারীদের জন্য একটি পৃথক বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল বা ইপিজেড ঘোষিত হয়েছে এবং আশা করা হচ্ছে, ভারতীয় বিনিয়োগকারীরা সেখানে কারখানা স্থাপন করবেন। এতে উভয় দেশেরই আয় ও কর্মসংস্থানের সুযোগ বেড়ে যাবে। ব্রিজ, বন্দরসহ বাংলাদেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে ভারতের আর্থিক ও কারিগরি সহযোগিতা বিশেষ ভূমিকা রাখছে।

এবারের সফর সামনে রেখে এখন পর্যন্ত আমরা যে তথ্য পেয়েছি, প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের সময় ৩০টির বেশি চুক্তি বা সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে। আশা করা যাচ্ছে, এ সফরের মাধ্যমে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে আরও গভীর সংযোগ স্থাপিত হবে।

সবকিছু ছাপিয়ে যে দুটি বিষয় আমাদের সংবাদমাধ্যমে বিশেষভাবে আলোচিত হচ্ছে, তার একটি দীর্ঘ প্রতীক্ষিত তিস্তা চুক্তি। অপরটি ভারতের সঙ্গে প্রতিরক্ষা বিষয়ে চুক্তি অথবা সমঝোতা স্মারক। এ দুটি বিষয় নিয়ে বেশ কিছুদিন যাবৎ বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গন ও সংবাদমাধ্যম সরগরম। তিস্তা চুক্তি ২০১১ সালে মনমোহন সিংয়ের ঢাকা সফরের সময়ই স্বাক্ষরিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আপত্তির মুখে চূড়ান্ত হওয়া চুক্তিটি শেষ পর্যন্ত স্বাক্ষরিত হয়নি। এর একটি কারণ তখনকার ইউপিএ জোট সরকার কেন্দ্রে মমতার সমর্থনের ওপর নির্ভরশীল ছিল। তখন বাংলাদেশের মানুষ স্বভাবতই হতাশ হয়েছিল। যেহেতু আওয়ামী লীগ এ চুক্তিকে তাদের বৈদেশিক নীতির বড় সাফল্য বলে প্রচার করে আসছিল; স্বাক্ষর না হওয়াতে তারাও ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে। তার পর থেকে আমরা দেখছি, বাংলাদেশ সরকার নানাভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছে, যাতে বিলম্বে হলেও চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হয়।

এটাও লক্ষণীয়, বিএনপিসহ কিছু বিরোধী দল এখনও তিস্তা চুক্তি স্বাক্ষর না হওয়াকে পুঁজি করে রাজনীতি করছে। চুক্তি স্বাক্ষর হলে একদিকে যেমন আওয়ামী লীগ সরকার কৃতিত্বের দাবিদার হবে, তেমনই স্বাক্ষর না হলে বিরোধী দলগুলো সরকারকে সমালোচনার আরেকটি ইস্যু খুঁজে পাবে। আমার মনে হয়, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে, যাতে চুক্তিটি স্বাক্ষর হয়। বাঙালি রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি ইতিমধ্যে মমতা ব্যানার্জিকে বিশেষভাবে রাষ্ট্রীয় নৈশভোজে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও দিলি্লতে শেখ হাসিনার সঙ্গে আনুষ্ঠানিক আলোচনার টেবিলে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তার মানে, তিস্তা চুক্তি সম্পর্কে একটা বোঝাপড়ার চেষ্টা ভারতের সর্বোচ্চ মহল থেকেই দৃশ্যমানভাবে চলছে। সব মিলিয়ে, আমরা শেষ মুহূর্তে একটা চমক আশা করতেই পারি!

অবশ্য আমাদের মনে রাখতে হবে, তিস্তা বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে প্রবাহিত স্বীকৃত ৫৪ অভিন্ন নদীর একটি। যদিও এটি একটি মাঝারি মাপের নদী; বাংলাদেশের প্রতিবেশ, পরিবেশ ও কৃষির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষত উত্তরবঙ্গের জন্য। কিন্তু তিস্তা চুক্তি না হলে ভারতের সঙ্গে আর কোনো বিষয়ে আলাপ-আলোচনা বা চুক্তি করা যাবে না- এ ধরনের অনড় মনোভাবও গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা জানি, নিছক পানি বণ্টন একটি পুরনো ধারণা। এখন গোটা বিশ্বেই অববাহিকাভিত্তিক পানি ব্যবস্থাপনার ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে। অভিন্ন নদীগুলোর প্রশ্নে বাংলাদেশও এটা বলে আসছে অনেক দিন ধরে। ভারতও সাম্প্রতিক সময়ে এ ধরনের ব্যবস্থাপনায় সম্মত হয়েছে। বিশেষ করে চীনে ব্রহ্মপুত্রসহ বিভিন্ন নদীতে ড্যাম নির্মাণের খবরে ভারতের পক্ষে আর বহুপক্ষীয়ভাবে পানি ব্যবস্থাপনার প্রতি সমর্থন দেওয়া ছাড়া উপায় নেই। আমরা আশা করব, গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র, যমুনা ও মেঘনা অববাহিকা নিয়ে একটি আন্তর্জাতিক ও বহুপক্ষীয় নদী কমিশন গঠিত হতে পারে। তাতে এ অঞ্চলের মানুষের জন্য পানিসম্পদে ন্যায্য অধিকার ও সর্বোচ্চ অর্থনৈতিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত হবে। একই সঙ্গে এবার গঙ্গা ব্যারাজ নির্মাণের ব্যাপারে উভয় দেশ একটা ঐকমত্যে পেঁৗছাতে পারবে বলে মনে করি।

প্রতিরক্ষা খাতে কী হতে যাচ্ছে, তার কিছুটা আভাস আমরা পেয়েছি। মনে হচ্ছে, ইতিমধ্যে যেসব খাতে সহযোগিতা চালু আছে, সেগুলোরই প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ হবে। গত তিন যুগ ধরেই দুই দেশের সেনাবাহিনী প্রশিক্ষণ ও প্রযুক্তির নতুন নতুন ক্ষেত্রে সহযোগিতা করে আসছে। এই সহযোগিতার ফলে উভয় দেশই লাভবান হয়েছে। অবশ্য বাংলাদেশ তার সশস্ত্র বাহিনীর প্রয়োজন মোতাবেক বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকেই সমরাস্ত্র ক্রয় করে আসছে। স্বাধীনতার অব্যবহিত পরে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন ও যুগোশ্লাভিয়া আমাদের নতুন রাষ্ট্রের সমরাস্ত্রের জোগান দিয়েছিল। ১৯৭৫ সালের পট পরিবর্তনের পর চীন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অস্ত্র সরবরাহের ক্ষেত্রে প্রধান ভূমিকা গ্রহণ করে। বলা বাহুল্য, বাংলাদেশ সমরাস্ত্র সংগ্রহের ক্ষেত্রে কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় করে থাকে। দু’একটি ব্যতিক্রম ছাড়া বাংলাদেশ কখনোই ‘মিলিটারি এইড’ বা সামরিক সহায়তা গ্রহণ করেনি। শোনা যাচ্ছে, এবারের সফরে বাংলাদেশ সাড়ে চার বিলিয়ন ডলারের একটি ক্রেডিট লাইন পাবে ভারত থেকে। যার মধ্যে ৫শ’ মিলিয়ন হবে যুদ্ধাস্ত্র ক্রয়। এ ছাড়া অনুমান করা হচ্ছে, জাতিসংঘে বিভিন্ন দায়িত্ব পালনকালে ব্যবহারের জন্য কিছু হালকা সামরিক যান ও সরঞ্জাম ক্রয় করা হবে। এখানে উল্লেখ্য, সাপ্লায়ার্স ক্রেডিটে সব সময় দাতার কাছ থেকেই সরঞ্জাম কিনতে হয়।

আমি মনে করি, দুই দেশের মধ্যে সামরিক সাহায্য ও সহযোগিতা আমাদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে। সন্ত্রাসবাদ, আন্তর্জাতিক জঙ্গি নেটওয়ার্ক, ক্ষুদ্রাস্ত্র ও মাদক চোরাচালানের মতো নতুন উদ্ভূত হুমকি মোকাবেলার ক্ষেত্রে এ অঞ্চলের সেনাবাহিনীগুলোর মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। একইভাবে বঙ্গোপসাগরে ভারত, মিয়ানমার ও শ্রীলংকার সঙ্গে বাংলাদেশের যৌথ মহড়া আমাদের নৌবাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে। বিমানবাহিনীর ক্ষেত্রেও আন্তর্জাতিক মহড়া আমাদের সক্ষমতা ও দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে।

কোনো কোনো ক্ষেত্রে আশঙ্কা করা হচ্ছে, বাংলাদেশ-ভারত সমঝোতা বাংলাদেশ-চীন সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে কি-না। বাংলাদেশের বৈদেশিক নীতি অনুযায়ী, চীন ও ভারত উভয়ের সঙ্গেই আমরা ভারসাম্যমূলক সম্পর্ক বজায় রেখে থাকি। এখনও রাখব। যদিও চীন ও ভারতের মধ্যে কিছু অমীমাংসিত বিষয় রয়ে গেছে; কিন্তু অদূর ভবিষ্যতে সামরিক সংঘাতের কোনো আশঙ্কা নেই। আশাব্যঞ্জকভাবে লক্ষ্য করছি, বাংলাদেশ এই দুই উদীয়মান অর্থনৈতিক ও সামরিক শক্তির মধ্যে ভারসাম্য রক্ষায় দক্ষতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছে। একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, জাপান, ইউরোপ_ সবার সঙ্গেই সহযোগিতার নতুন নতুন দ্বার উন্মোচিত হচ্ছে।

আমি আশা প্রকাশ করি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর সর্বতোভাবে সফল হোক; বাংলাদেশ ও ভারত সমঝোতার নতুন নতুন ক্ষেত্র গড়ে তুলুক; একবিংশ শতাব্দীর বিবিধ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ভারত ও বাংলাদেশ তথা এ অঞ্চলের রাষ্ট্রগুলো একসঙ্গে কাজ করবে_ এটাই কাম্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here