কী ঘটিতেছে পৃথিবীতে!

0
291

পৃথিবীতে এইসব কী ঘটিতেছে? ইরাক-সিরিয়া আজ যুদ্ধে ক্ষত-বিক্ষত। সাধারণ মানুষ যে যাহার মতো পারিতেছেন পালাইতেছেন। পালাইতেছে আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা। ইরাকের মসুলে এখন চলিতেছে ধ্বংসের তান্ডবলীলা। ফিলিস্তিনে থামিয়া থামিয়া শুনিতে পাওয়া যাইতেছে মানবতার বুকফাটা আর্তনাদ। সেখানে বুলডোজারের আঘাতে ভাঙিয়া পড়িতেছে বাস্তুভিটা ও ফিলিস্তিনিদের স্বপ্ন। আফগানিস্তানে হাসপাতাল, বিবাহবাড়ি সবখানেই চালানো হইতেছে ভয়াবহ বোমা হামলা। বোমা হামলা হইতে রক্ষা পাইতেছে না পাকিস্তানের মসজিদও। লিবিয়া, ইয়েমেন ও ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চল আক্রান্ত যুদ্ধ-বিগ্রহে। তুরস্ক এবং ব্রিটেন, ফ্রান্স, জার্মানিসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশ হইতে মাঝেমধ্যেই পাওয়া যায় জঙ্গি হামলার খবর। আফ্রিকার সোমালিয়া, দক্ষিণ সুদান, নাইজেরিয়া, ক্যামেরন, চাদ, কেনিয়া প্রভৃতি দেশে চলিতেছে হামলা-পাল্টা হামলা। মিয়ানমার, দক্ষিণ থাইল্যান্ড প্রভৃতি দেশে বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ সংকট-জটিলতায়ও নিরপরাধ মানুষ ঘরছাড়া হইতেছে। বেঘোরে মারা পড়িতেছে।

যুদ্ধ-বিগ্রহজনিত এই ধ্বংসলীলার পাশাপাশি চলিতেছে মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধও। ইহাতে পৃথিবী জুড়িয়াই বাড়িতেছে টেনশন। বাড়িতেছে তাপ-উত্তাপ। উত্তর কোরিয়া কাহাকেও তোয়াক্কা না করিয়া এমনকি জাতিসংঘ প্রস্তাবের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন করিয়া একের পর এক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করিতেছে। জাপানের সমুদ্রসীমা অভিমুখে চারটি ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়িবার পর যুক্তরাষ্ট্র দক্ষিণ কোরিয়ায় শেষ পর্যন্ত আলোচিত থাড (টার্মিনাল হাই-অলটিচিউড এরিয়া ডিফেন্স) ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা স্থাপন করিতেছে। মার্কিন মিত্র জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়াকে রক্ষাই ইহার মূল উদ্দেশ্য। চীন ও রাশিয়া আবার ইহাতে উদ্বেগ প্রকাশ করিয়াছে। তাহাদের আশঙ্কা এই প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় রাডারের নজরদারির আওতা তাহাদের দেশের গভীরে পৌঁছাইতে পারে। এদিকে মালয়েশিয়ায় উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সত্ভাই কিম জয় নামের হত্যাকাণ্ডের পর দুই দেশের বিরোধ এখন তুঙ্গে। এই তিক্ততায় পরস্পরের নাগরিকদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করিয়াছে উভয় দেশ। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দ্বিতীয়বারের মতো ‘মুসলিম নিষিদ্ধকরণ’ আদেশ জারি করিয়াছেন। সৌদি আরবের বাদশাহ প্রায় এক মাসের বিদেশ সফরে বাহির হইবার পর ইয়েমেনের শিয়া বিদ্রোহী গোষ্ঠী হুতির কয়েকজন সদস্য তাহাকে মালয়েশিয়ায় হত্যার ষড়যন্ত্র করে বলিয়া অভিযোগ উঠিয়াছে। ইরানও উত্তর কোরিয়ার মতো ক্ষেপণাস্ত্রে শান দিতেছে। সর্বশেষ দেশটির কয়েকটি নৌযান কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ হরমুজ প্রণালীতে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের নৌবাহিনীর জাহাজের গতিপথ বদলাইতে বাধ্য করিয়াছে। অর্থাত্ বলিতে গেলে কোথাও শান্তি নাই। সবখানে ভয়, উদ্বেগ ও অশান্তির বাণী।

আমরা দেখিলাম রাশিয়া কর্তৃক ইউক্রেনের ভূ-রাজনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল ক্রিমিয়া দখল। মধ্যপ্রাচ্যে দেখিলাম আরব বসন্তের নামে এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতি। সেই বসন্ত আজ রূপ নিয়াছে নতুন তান্ডবে। সিরিয়ার জটিল গৃহযুদ্ধের সুযোগ নিয়া হঠাত্ দেখিলাম আইএসের উত্থান আজ যাহারা পরাজয় শিকার করিয়া পলায়নপর। মধ্যখানে দীর্ঘস্থায়ী যুদ্ধের কারণে সিরিয়ার শিশুরা আজ মানসিকভাবে অসুস্থ। এইভাবে পুরা একটি প্রজন্ম ধ্বংসের সম্মুখীন। পৃথিবীর যেসব দেশে যুদ্ধ-বিগ্রহ বা অস্থিরতা বিরাজমান, সেইসব দেশের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য একই কথা। কিন্তু কী তাহাদের অপরাধ? কাহার স্বার্থে তাহারা আজ স্বজনহারা-গৃহহারা? পৃথিবীর ইতিহাস বলে, কেহ কোনো দেশ দীর্ঘদিন দখলে বা প্রভাবাধীন রাখিতে পারে নাই। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হইল—সেই ইতিহাস হইতে আমরা এখনও কেহ শিক্ষা গ্রহণ করিতেছি না!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here