কৃমিনাশকের বিরূপ প্রতিক্রিয়া

0
240

প্রতিবত্সর আগাম ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা ও সচেতনতা কার্যক্রমের মাধ্যমে জাতীয় কৃমিনাশক সপ্তাহ শুরু হইলেও অনেকটা অজান্তেই শুরু হইয়াছে এইবারের কার্যক্রম। গত শনিবার হইতে শুরু িনহওয়া এই কার্যক্রমের প্রথম দিনেই দেশের কয়েকটি জেলায় কৃমিনাশক ট্যাবলেট খাইয়া অসুস্থ হইয়া পড়িয়াছে ছয় শতাধিক শিক্ষার্থী। সব মিলাইয়া কৃমিনাশক সেবন সপ্তাহের প্রথম তিন দিনে বিভিন্ন জেলায় প্রায় ৯ শত শিক্ষার্থী হাসপাতালে ভর্তি হয়। রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার তথ্যমতে, অধিকাংশ শিশু এক-দুই ঘণ্টা হাসপাতালে থাকিয়া সুস্থ হইয়া ফিরিয়া গিয়াছে। তিন-চারটি শিশু কেবল রাত্রে হাসপাতালে ছিল। কোনো শিশুকেই চিকিত্সার জন্য ২৪ ঘণ্টা হাসপাতালে রাখার দরকার হয় নাই। তবে ট্যাবলেটের কারণে নহে, মূলত মানসিক কারণে এই অসুস্থতার ঘটনা ঘটিয়াছে বলিয়া দাবি করিয়াছেন চিকিত্সকেরা। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর হইতেও দাবি করা হইয়াছে, হঠাত্ গরম আর খালি পেটে কৃমিনাশক ট্যাবলেট খাইবার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াস্বরূপ কিছু শিক্ষার্থী সাময়িকভাবে অসুস্থ হইয়া পড়িয়াছিল।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখা ‘কৃমিনাশক সেবন সপ্তাহ’ পালন করিতেছে। ১ হইতে ৬ এপ্রিল ৫-১৫ বত্সর বয়সী দেশের প্রায় ৪ কোটি শিশুকে এই বড়ি খাওয়াইবার কথা। প্রথম দুই দিনে সাত শতাধিক শিশু অসুস্থ হইবার পর রোগনিয়ন্ত্রণ শাখা সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়া বলিয়াছিল, শিশুদের অসুস্থ হইবার কারণ গণমনস্তাত্ত্বিক রোগ। কৃমিনাশক ভরা পেটে খাইতে হয়। শারীরিক পরিশ্রমের পর বড়ি খাওয়া যাইবে না। এদিকে, কৃমিনাশক বড়ি খাইয়া অসুস্থতার খবরে ভাঙচুরের ঘটনা ঘটিয়াছে হাজীগঞ্জ উপজেলার সুহিলপুর উচ্চবিদ্যালয়ে। এলাকায় দুই-তিনজন ছাত্রীর মৃত্যুর গুজব ছড়াইয়া পড়িলে উত্তেজিত জনতা বিদ্যালয়ের কয়েকটি কক্ষের দরজা-জানালা ভাঙচুর করে। অনুরূপ ঘটনা অন্যত্রও ঘটিয়াছে। বিভিন্ন জেলায় শিশুদের অসুস্থ হইবার ঘটনায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা কিছুটা বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়িয়াছেন। সাধারণ মানুষকে আশ্বস্ত করিতে তাহারা গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচারের সিদ্ধান্ত নিয়াছেন। তবে কেবল বাংলাদেশেই নহে, অন্যত্রও অনুরূপ ঘটনার নজির আছে। গত বত্সর ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন স্কুলে কৃমির ঔষধ খাইয়া দেড় হাজার শিক্ষার্থী অসুস্থ হইয়া পড়িয়াছিল।

শিশুমৃত্যু রোধে বাংলাদেশের সাফল্য তৃতীয় বিশ্বের জন্য দৃষ্টান্ত হইয়া উঠিয়াছে, যদিও শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশে এখনও আমরা তেমন অগ্রসর হইতে পারি নাই। বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে সরকারি উদ্যোগে টিকা প্রদান বা ভিটামিন সেবনও নিঃসন্দেহে প্রশংসাযোগ্য উদ্যোগ। অনুরূপ, কৃমিনাশক সেবন করানোর উদ্যোগও আমরা প্রশংসার দৃষ্টিতেই দেখিব। কিন্তু, এইবার কোথাও না কোথাও একটা গণ্ডগোল নিশ্চয় ঘটিয়াছে, ইহাকে গণহিস্টিরিয়া বলিয়া উড়াইয়া দিলে চলিবে না। কেননা, বিভিন্ন জেলায় কৃমিনাশক সেবন সপ্তাহের গত তিন দিনে একই রকম অসুস্থতার ঘটনা ঘটিয়াছে। যদিও কেহই গুরুতর অসুস্থ হয় নাই, তবু নিশ্চিতভাবেই বলা যায়, শিশুমনে ইহা বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি করিবে। নেতিবাচক প্রভাব ফেলিবে টিকাদান কর্মসূচির উপর। তাই আমরা দাবি করিব, উপযুক্ত তদন্ত করিয়া সঠিক কারণটি শনাক্ত করা হউক। আর সেইসঙ্গে, আগামীতে যেন অনুরূপ ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেইদিকেও যথাযথ কর্তৃপক্ষকে সতর্ক নজর রাখিতে অনুরোধ করিব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here