কেশবপুরে আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে সরকারি রাস্তায় প্রভাবশালীর পাচিল নির্মাণ হুমকির মুখে সরকারি গভীর নলকুপ

0
351

নিজস্ব প্রতিবেদক,কেশবপুর(যশোর) : যশোরের কেশবপুরে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে এলাকার এক প্রভাবশালী ব্যক্তি সরকারি জমি জবর দখল করে পাকা প্রাচীর নির্মাণ করায় একটি জনবহুল গ্রাম্য রাস্তা পাকাকরণ কাজ চরমভাবে বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। ওই প্রাচীর অপসারণ করা না হলে হুমকির মুখে পড়বে ৩ গ্রামের সহস্রাধিক পরিবারের একমাত্র ভরসা আর্সেনিকমুক্ত সরকারি গভীর নলকুপটি। এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে এলাকাবাসি গত মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কেশবপুর ফতেপুর সড়কের মজিদপুর গ্রামের চেšরাস্তা থেকে একটি ইটের সলিং রাস্তা গ্রামের ভেতর দিয়ে মজিদপুর কুশুলদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে কুশুলদিয়া গ্রামে মিশেছে। রাস্তাটি জনগুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় চলতি বছরের ৭ ফেব্র“য়ারী থেকে পাকাকরণের কাজ চলছে। এ রাস্তার ক্লাবের পাশের সরকারি জায়গা দখল করে পাকা প্রাচীর নির্মাণ করে এলাকার প্রভাবশালী মনিরুজ্জামান। এ রাস্তা দিয়ে জনগণের চলাচলের বিঘœ সৃষ্টি হওয়ায় রাস্তাটি দখলমুক্ত করতে গত বছরের জুন মাসে এলাকাবাসি আদালতে মামলা করে। আদালতের রায়ে রাস্তাটি দখলমুক্ত করা হয়। এ ঘটনার কিছ ুদিন যেতে না যেতেই ওই ভূমিদস্যু পুনরায় রাস্তাটি দখল করে পাকা প্রাচীর নির্মাণ শুরু করে। এদিকে, ওই রাস্তা পাকাকরনের কাজ শুরু হলে মনিরুজ্জামান ঠিকাদারের সাথে যোগসাজসে তার প্রাচীর অখ্যাত রাখার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। যার কারণে সরকারি জায়গায় ওই পাচিল রেখে ঠিকাদার সরকারি টিউবয়েলের গোড়া দিয়ে রাস্তা নির্মাণের জন্য খুড়ে রেখেছে। আর এ সুযোগে একটি কুচক্রীমহল টিউবয়েলটি উচ্ছেদে চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে। যার কারণে যে কোন সময়ে টিউবয়েলটি ধ্বংস হয়ে যেতে পারে বলে এলাকাবাসির অভিযোগ। ফলে আশপাশের ৩ গ্রামের সহস্রাধিক পরিবারের বিষুদ্ধ খাবার পানির একমাত্র ভরসা শেষ হয়ে যেতে পারে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ঠিকাদারের লোকজন ওই রাস্তার সরকারি জমি বাদ দিয়ে ওই টিউবয়েলটির গোড়ার গাথুনি পর্যন্ত মাটি খুড়ে রাখা হয়েছে। টিউবয়েলটির গোড়ার গাথুনি ভেঙ্গে ফেললে যে কোন সময় টিউবয়েলটি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। ওই প্রাচীর উচ্ছেদ করে যাতে সরকারি জায়গর ওপর দিয়েই রাস্তা নির্মাণ হয় তার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসি।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরিফ রায়হান কবীর সাংবাদিকদের জানা, অভিযোগটি পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হভে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here