ছাত্রলীগে শুদ্ধি অভিযান জরুরি হইয়া পড়িয়াছে

0
210

শরীয়তপুরে ছয় নারীকে ফাঁদে ফেলিয়া ধর্ষণ ও সেইসকল দৃশ্য গোপনে ভিডিও করিয়া ইন্টারনেটে ছাড়ার অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা আরিফ হোসেন হাওলাদারের বিরুদ্ধে মামলা হইয়াছে। ঘটনা অবগত হইবার পর ছাত্রলীগ তাত্ক্ষণিকভাবে তাহাকে বহিষ্কার করিয়াছে। সংগঠনের পক্ষ হইতে বলা হইয়াছে, এই নেতা যে এত খারাপ—ইহা তাহাদের জানা ছিল না। আরিফের কেলেঙ্কারি লইয়া যখন নিন্দা-সমালোচনার ঝড় উঠিয়াছে, ঠিক তখনই জানা গেল—বরগুনার পাথরঘাটা কলেজে অজ্ঞাত এক তরুণীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রুহিআনান দানিয়াল ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন সহ চার নেতাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করিয়াছে। এই চারজনকেও সংগঠন হইতে বহিষ্কার করা হইয়াছে। ইহার আগে খুলনার দাকোপে এক কলেজ ছাত্রীকে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করিবার অভিযোগে ইনজামাম মির্জা নামে ছাত্রলীগের অপর এক নেতাকে কারাগারে পাঠাইয়াছেন আদালত। প্রসঙ্গত বলা প্রয়োজন যে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের গৌরব-পতাকাবাহী ছাত্রলীগ হাজার হাজার নেতার জন্ম দিয়াছে। সেই সকল নেতা আমাদের মহান মুুক্তিযুদ্ধে যেমন সফল নেতৃত্ব দিয়াছেন, তেমনই এখনো জাতিকে পথনির্দেশনা দিয়া চলিয়াছেন নানা ক্ষেত্রে। ইহার উজ্জ্বল উদাহরণ আমাদের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই ছাত্রলীগে এই ধরনের ঘৃণ্য ও বিকৃত চরিত্রের ভুঁইফোড় নেতার অনুপ্রবেশ যে দিনদিন বিপজ্জনকভাবে বাড়িয়া চলিয়াছে তাহা এখন আর অস্বীকার করিবার উপায় নাই।

এই অনুপ্রবেশ কীভাবে ঘটিল তাহা লইয়া সংগঠনটির ভিতরে-বাহিরে নানা কথা শোনা যায়। আছে গুরুতর কিছু অভিযোগও। ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতারাও এই ব্যাপারে সতর্কবার্তা উচ্চারণ করিয়া আসিতেছেন দীর্ঘদিন যাবত্। খোদ প্রধানমন্ত্রীও একাধিকবার সংগঠনটিকে ‘আগাছা’মুক্ত করার আহ্বান জানাইয়াছেন। যেভাবেই হউক, বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া ঐতিহ্যবাহী এই ছাত্রসংগঠনটি যে আগাছাকবলিত হইয়া পড়িয়াছে উপর্যুক্ত ঘটনাবলি তাহারই অকাট্য সাক্ষ্যবহ। আর এই আগাছাগুলির কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ ও দূরদর্শী নেতৃত্বে বিগত বত্সরগুলিতে বাংলাদেশ যে বিস্ময়কর সাফল্য অর্জন করিয়াছে তাহাও প্রশ্নবিদ্ধ হইবার উপক্রম হইয়াছে। কিন্তু কোনো অবস্থাতেই এমনটা হইতে দেওয়া যাইবে না। ইতোমধ্যে যথেষ্ট দেরি হইয়া গিয়াছে। শুধু সতর্ক নয়, এখন কঠোর হইতে হইবে। অনুপ্রবেশকারীরা দেশ ও সংগঠনের অধিকতর ক্ষতি করিবার আগেই তাহাদের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক শুদ্ধি অভিযান শুরু করা জরুরি বলিয়া আমরা মনে করি। এই ক্ষেত্রে শিথিলতা ও ব্যর্থতার অর্থ হইল, যে ভিশনকে সামনে রাখিয়া দুর্বার গতিতে দেশ আগাইয়া চলিয়াছে তাহার চাকায় কুঠারাঘাত করা। আশা করি, সংগঠনটির অভিভাবকরা কিছুতেই তাহা হইতে দিবেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here