জলবায়ু পরিবর্তন ও বজ্রপাতের ঝুঁকি

0
249

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্বব্যাপী বজ্রপাতের ঘটনা উদ্বেগজনক হারে বাড়িতেছে। গত মঙ্গলবার বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে একযোগে চার সহস্রাধিক বজ্রপাতের ঘটনা ঘটিয়াছে। যুক্তরাষ্ট্রের আবহাওয়া দপ্তর এই তথ্য রেকর্ড করিয়াছে। ওই দপ্তরের মতে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে আগামী ২০ বত্সরে বজ্রপাত বর্তমানের তুলনায় ৫০ গুণ বাড়িবে। পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধির সহিত বজ্রপাতের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে। বলা হয়, তাপমাত্রা এক ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়িলে বজ্রপাতের হার বাড়ে ১৫ শতাংশ। জ্বালানির ব্যবহার বৃদ্ধি, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের অত্যধিক ব্যবহার এবং গ্রিন হাউস গ্যাসের নির্গমন বৃদ্ধির কারণে গোটা বিশ্বেই বজ্রপাত বাড়িতেছে। ভূ-মণ্ডলে নাইট্রোজেন অক্সাইডের পরিমাণ বাড়িতেছে। একবিংশ শতাব্দীর শেষে ধরিত্রীর তাপমাত্রা চার ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়িবে বলিয়া আশঙ্কা করা হইতেছে। ফলে, বলাই বাহুল্য যে বজ্রপাতের হারও অনেক বাড়িবে।

ফলে, সম্প্রতি বাংলাদেশেও বজ্রপাত আশঙ্কাজনক হারে বাড়িয়াছে; সঙ্গে প্রাণহানিও। দেশে বজ্রপাতের ঘটনা সাধারণত মে মাসে সর্বাধিক ঘটে। গত বত্সর মে মাসে মাত্র দুইদিনে বজ্রপাতে অন্তত ৫৭ জনের মৃত্যু হইয়াছিল। পৃথিবীতে বজ্রপাতে যে-সংখ্যক মানুষ প্রাণ হারান তাহার এক-চতুর্থাংশই নাকি বাংলাদেশে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় জানাইতেছে, গত ২২ এপ্রিল পর্যন্ত চলতি বত্সরে দেশে বজ্রপাতে ২২ জন নিহত হইয়াছেন। বজ্রপাতজনিত কারণে গত সাত বত্সরে এক হাজার ৭৪৪ জনের মৃত্যু হইয়াছে। গত বত্সর সর্বোচ্চ ৩৫০ জনের মৃত্যু হইয়াছিল। বেশিরভাগ মৃত্যুর ঘটনা ঘটিয়াছে হাওরাঞ্চলের নয়টি জেলায়। অসংখ্য গবাদিপশুও মরিয়াছে। আর এই কারণেই দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় বজ্রপাতকে টর্নেডো, জলোচ্ছ্বাস ইত্যাদি প্রকৃতিক দুর্যোগের মতোই দুর্যোগ হিসাবে ঘোষণা করিয়াছে। আগে সাধারণত তাল, নারিকেল ইত্যাদি গাছপালায় বজ্রপাতের ঘটনা বেশি লক্ষ করা যাইত। কিন্তু এখন সেই ধরনের উঁচু বৃক্ষ সমগ্র দেশেই বিরল, ফলে বজ্রপাত সরাসরি মানুষের উপরেই আঘাত হানিতেছে বলিয়া বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

বাংলাদেশে কী পরিমাণ বজ্রপাত হয় তাহার কোনো তথ্য নাই আবহাওয়া অফিসে। অথচ, বজ্রপাতকে দুর্যোগ হিসাবে ঘোষণা করা হইয়াছে এবং সম্প্রতি বিনা মেঘেও বজ্রপাত হইতেছে। মানুষ মারা যাইতেছে। প্রতি বত্সর এপ্রিল হইতে জুন পর্যন্ত বজ্রপাতে মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হইলেও কত মানুষ মারা যাইতেছেন, তাহার প্রকৃত হিসাব মিলে না। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যে হিসাব করে, সেইগুলি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত খবরের ভিত্তিতে। গবেষকরা বলিতেছেন, প্রকৃত সংখ্যা দ্বিগুণের কাছাকাছি। ফলে, জনমনে আতঙ্কও বৃদ্ধি পাইতেছে। দেশে বড় গাছের সংখ্যা হ্রাস পাওয়ায় বজ্রপাতে প্রাণহানির সংখ্যা বাড়িয়াছে কিনা তাহা খতাইয়া দেখা দরকার। তবে, এইটুকু তো নিশ্চিত যে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এবং বৃক্ষরাজি কমিয়া যাওয়ায় দেশের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা এক-দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়িয়াছে। বাড়িতেছে বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণও। দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর হইতে আসা আর্দ্রবায়ু আর উত্তরে হিমালয় হইতে আসা শুষ্ক বায়ুর মিলনে সৃষ্টি হইতেছে বজ্রপাত। তবে, জলবায়ু পরিবর্তনের দায় শিল্পোন্নত দেশগুলির ওপর চাপাইতে পারিলেও, আমাদের নিজেদের প্রাণ রক্ষার দায় নিজেদেরকেই লইতে হইবে। বজ্রপাত হইলেও মৃত্যুহার যাহাতে না বাড়ে সেইদিকে নজর দিতে হইবে। সরকার বজ্রপাতে প্রাণহানি ঠেকাইতে, বিশেষত হাওরাঞ্চলে, দশ লক্ষ তালগাছ রোপণের এবং বজ্র-পরিবাহী বিশেষ টাওয়ার নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়াছে। একই সাথে এই বিশেষ দুর্যোগ মোকাবিলায় জনসচেতনতা বৃদ্ধিও একান্ত আবশ্যক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here