টাইব্রেকার জিতে চট্টগ্রাম আবাহনী সেমিতে

0
283

ক্রীড়া ডেস্ক : অতিরিক্ত সময়ের খেলা শেষের মিনিট দুয়েক আগে বদলি হয়ে গোলরক্ষক বিপ্লব ভট্টাচার্য নেমেছিলেন বিপ্লব ঘটাতে। সেটা আর পারলেন না। টাইব্রেকারে এক এক করে চারটি গোল খেয়েছেন রাসেলের এই গোলরক্ষক। এরপর চট্টগ্রাম আবাহনীর পোস্ট রেখে আকাশে উড়িয়ে মারেন কাওসার আলী রাব্বি ও উত্তম বণিক। তাতেই ফেডারেশন কাপের বিদায়ঘণ্টা বেজে যায় শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের। ১২০ মিনিটে ১-১ গোলে সমতার পর তাদের ৪-২ গোলে হারিয়ে চট্টগ্রাম আবাহনী উঠে গেছে ফেডারেশন কাপের সেমিফাইনালে।

গ্রুপর্বে ঠিক আগের ম্যাচেও তারা টাইব্রেকারে হেরেছে শেখ জামাল ধানমণ্ডির কাছে। টানা দ্বিতীয় হারের আগে অবশ্য চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে তারা প্রথমার্ধে দারুণ খেললেও সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে নিষ্প্রভ হয়ে পড়ে। প্রতাপ বাড়ে চট্টগ্রাম আবাহনীর এবং ম্যাচে জয়সূচক গোল না পেলেও টাইব্রেকার জিতে পৌঁছে গেছে সেমিফাইনালে। আগামী ২ জুন তারা ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে রহমতগঞ্জ-মুক্তিযোদ্ধা ম্যাচের বিজয়ীর সঙ্গে। চট্টগ্রাম আবাহনী কোচ সাইফুল বারী টিটু খুশি হলেও জয়টা চেয়েছিলেন মাঠের লড়াইয়ে, ‘শেখ রাসেলের কাছ থেকে কঠিন চ্যালেঞ্জ আসবে, এটা ধরে নিয়েছিলাম। তবে আমরা একটু বেশি সুযোগ পেয়েছিলাম। জাহিদের এক মিস ও তার বানিয়ে দেওয়া দুটি বলে ওলাদিপো গোল করতে পারেনি। এসব সুযোগ থেকে একটি গোল আসা উচিত ছিল। তবে আমাদের ডিফেন্সে ভুল হচ্ছে, সেগুলো নিয়ে কাজ করতে হবে। ’

ম্যাচের ১৩ মিনিটে শেষ হয়ে গেছে গোলের উত্তেজনা। ১০ মিনিটে খালেকুজ্জামান এগিয়ে নেন শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রকে। আতিকুর রহমানের ফ্রি-কিকে হেড করে নাইজেরিয়ান এলিটা বেঞ্জামিন সাজিয়ে দেন পোস্টের সামনে। দুর্ভাগ্য তাদের, এই লিড দুই মিনিটের বেশি ধরে রাখতে পারেনি। তা-ও কোনো আক্রমণের ফসল হলে এক কথা। গোলরক্ষক জিয়াউর রহমানের আহাম্মকির মাসুল গুনতে হয়েছে। নিরীহ বলটি গ্রিপে নিতে গিয়েও ভালোভাবে নেননি, টোকা মেরে জাহিদ হোসেন বলটা নিয়ে জমা করে দিয়েছেন পোস্টে (১-১)। চট্টগ্রাম আবাহনী ম্যাচে ফিরলেও আক্রমণের তোপ নেই। বরং রাসেল ২৩ মিনিটে একটি সুযোগ পেয়েছিল। খালেকুজ্জামানের কর্নারে এলিটা বেঞ্জামিনের দুর্দান্ত হেড ঠেকিয়ে দিয়েছেন চট্টগ্রাম আবাহনীর গোলরক্ষক নেহাল। ওই পর্যন্তই রাসেলের দাপট।

এরপর শুরু হয় চট্টগ্রাম আবাহনীর তোপ। শুরুতে শেখ রাসেল যেভাবে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণ করছিল সেটা হারিয়ে ফেলে। তারা পেছাতে থাকে আর আবাহনী মরিয়া হয়ে ওঠে গোলের জন্য। ৫৭ মিনিটে নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড ওলাদিপো বাঁ-দিক দিয়ে ঢুকে স্কয়ার পাস ঠেললেও সবুজ গোলে ঠেলতে ব্যর্থ। ৭৬ মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাকে নুরুল নাইমের পাঠানো লং বলে জাহিদ হোসেন পৌঁছে গিয়েছিলেন প্রার্থিত গোলের কাছাকাছি। ওয়ান টু ওয়ানে ডিফেন্ডারকে পেছনে ফেলে তিনি ছুটছেন কিন্তু শেষমেশ শটটি মেরেছেন সোজা রাসেল গোলরক্ষকের গায়ে। সুযোগটি নষ্ট করলেও এই ম্যাচে দুর্দান্ত খেলেছেন আবাহনীর এই উইঙ্গার। কিন্তু গোল না পাওয়ায় ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। সেখানেও জাতীয় দলের সাবেক ফরোয়ার্ড জাহিদ হোসেন দুর্বার, ৯৪ মিনিটে একটি চমৎকার বল বানিয়ে দিলেও ওলাদিপো ন্যক্কারজনক মিস করেছেন। পোস্টের সামনে থেকে বল তুলে দিয়েছেন ক্রসবারের ওপরে। কয়েক মিনিট এই উইঙ্গারের ক্রসে আবার মাথা ছোঁয়াতে ব্যর্থ ওলাদিপো। তারপর শুরু হয় ভাগ্যের খেলা। এই জুয়ায় অবতীর্ণ হওয়ার আগে অভিজ্ঞ গোলরক্ষক বিপ্লবকে নামিয়ে শেখ রাসেল পারেনি সৌভাগ্যকে সঙ্গী করতে। তাদের গোল করেছেন দাউদা সিসে ও বিশ্বনাথ আর আকাশে উড়িয়ে মেরেছেন রাব্বি ও উত্তম। চট্টগ্রাম আবাহনীর হয়ে গোল করেছেন অ্যালিসন উদোকা, মাশুক মিয়া, সোহেল রানা ও সবুজ।

SHARE
Previous articleভেজালবিরোধী অভিযান
Next article‘বিলাসবহুল’ সাশ্রয়ী ট্রেন
সম্পাদক-বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির, প্রকাশক-ফয়সাল ফারুকী অমি, প্রধান সম্পাদক - জাহিদ হাসান টুকন, নির্বাহী সম্পাদক-সাকিরুল কবীর রিটন বার্তা সম্পাদক-ডি এইচ দিলসান। নিউজ রুম ই-মেইল-magpienews24@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here