টেকসই সম্পর্কের পথে

0
244

হুমায়ুন কবির : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চার দিনের ভারত সফরে ছিল অনেক কর্মসূচি, আগ্রহ ছিল ব্যাপক। আনুষ্ঠানিক বৈঠকে কী ঘটছে, চুক্তি-সমঝোতায় কী থাকছে_ এসব জানায় আগ্রহ ছিল দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে নানা দেশে। আবার দৃশ্যমান বিষয়গুলো থেকেও সফরটি যে অন্য মাত্রার, তা স্পষ্ট হয়েছে। যেমন, ৭ এপ্রিল আমাদের প্রধানমন্ত্রীর জন্য দিলি্ল বিমানবন্দরের অভ্যর্থনার আয়োজনের কথাই ধরা যাক। ভারতের কূটনৈতিক প্রথার ব্যত্যয় ঘটিয়ে তাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিমানবন্দরে ফুলের তোড়া নিয়ে হাজির হওয়া ছিল রীতিমতো সারপ্রাইজ, যার প্রভাব পড়েছে পুরো সফরে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে থাকতে দেওয়া হয়েছে রাষ্ট্রপতি ভবনে, যা বিশেষ কূটনৈতিক সৌজন্য হিসেবে দেখা হচ্ছে। দিলি্লর একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়কের নতুন নামকরণ হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে, যা আমাদের স্বাধীনতার স্থপতির প্রতি শুধু নয়, বাংলাদেশের জন্যও বিশেষ সম্মানসূচক।

সফরের সময়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ১৯৭১ সালে আমাদের দেশকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর কবল থেকে মুক্ত করার জন্য যেসব ভারতীয় সেনা প্রাণ দিয়েছেন, তাদের কয়েকজনের পরিবারের হাতে শুভেচ্ছা স্মারক তুলে দিয়েছেন। মর্মস্পর্শী ও আবেগঘন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়েছিল মানেকশ সেন্টারে। জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বাড়াতে ভারত আরও কিছু পদক্ষেপের ঘোষণা দিয়েছে। যেমন, মুক্তিযোদ্ধাদের ৫ বছর মেয়াদি মাল্টিপল ভিসা প্রদান ও চিকিৎসা সুবিধা। এর ধারাবাহিকতায় আরও কিছু পদক্ষেপ গ্রহণের কথা তারা ভাবতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিলি্লতে সরকারি সফরে গেলেন সাত বছর পর। বদলে যাওয়া বাংলাদেশ_ এভাবে অনেকেই এখন বলেন। ভারত যে এই বদলে যেতে থাকা বাংলাদেশকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়, তার প্রতিফলন আমরা নানাভাবে দেখি। কূটনীতিতে পারস্পরিক স্বার্থ যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি দৃশ্যমান বিষয়গুলো থেকেও সম্পর্কের গভীরতা বোঝা যায়। দুই দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতিতে সাদৃশ্য আছে। ভালো লাগা ও মন্দ লাগার বিষয়গুলোও আমাদের জানা। পরস্পরের স্বার্থগত বিষয়ে ভিন্নতা থাকবে, এটাই স্বাভাবিক। দুই নেতার যৌথ ঘোষণাকে আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার কাঠামো হিসেবে ধরে নিতে পারি। এতে কয়েকটি নতুন বিষয়ের অবতারণা হয়েছে। যেমন_ এক. দুই দেশের সামরিক সহযোগিতা; দুই. সাইবার নিরাপত্তা, মহাকাশ ব্যবহার, তথ্যপ্রযুক্তি। আমাদের সামরিক সহযোগিতার শুরু ১৯৭১ সালে। সাড়ে চার দশক পর এক ভিন্ন প্রেক্ষাপটে বিষয়টি নতুন করে সামনে এসেছে। স্বার্থের ভিন্নতা সত্ত্বেও দুই দেশের নেতৃত্ব সমন্বয়ের মধ্য থেকে পরস্পরের স্বার্থকে সম্মান প্রদর্শন ও অগ্রসর করে নেওয়ার বিষয়ে আন্তরিকভাবে সচেতন রয়েছেন, সেটা স্পষ্ট। একইভাবে আমরা ধরে নিতে পারি, সাইবার নিরাপত্তা ও মহাকাশের মতো বিষয়টিতে পরস্পরের স্বার্থ ও মানুষের কল্যাণের বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব পাবে। এর ধারাবাহিকতায় উভয় দেশের মানুষের সংবেদনশীলতা ও আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটা চাই।

যৌথ ঘোষণায় বলা হয়েছে, দুটি দেশের সম্পর্ক এতটাই গভীর ও ভ্রাতৃপ্রতিম, যা কোনো কৌশলগত অংশীদারত্বের চেয়েও ওপরে। এজন্য পরস্পরের স্বার্থের প্রতি সম্মান প্রদর্শন ও যথাযথ গুরুত্ব প্রদান করা চাই।

সফরে বিশেষ গুরুত্ব পাওয়া বিষয়গুলোর মধ্যে রয়েছে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে সহযোগিতা, শিক্ষা-স্বাস্থ্য-দক্ষতা-অবকাঠামো-ই-গভর্ন্যান্স প্রভৃতি বিষয়ে বাংলাদেশের জনশক্তি উন্নয়নে ভারতের সহায়তার প্রতিশ্রুতি। এ ছাড়াও সন্ত্রাসবাদবিরোধী কর্মকাণ্ডে দুটি দেশ একযোগে কাজ করার অঙ্গীকার করেছে। দুটি দেশ নিজেদের মধ্যে ও আশপাশের দেশগুলোর সঙ্গে কানেকটিভিটি বাড়াবে। বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণ করবে। জনগণের মধ্যেও বাড়ানো হবে যোগাযোগ।

জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে সহযোগিতার প্রসঙ্গে ফিরে যাই। ভারত থেকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ আমদানি করছে। এর পরিমাণ এখনও সীমিত; তবে তা বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতাও সম্ভব। বাংলাদেশ, ভারত ও ভুটান পরস্পরের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলে সব পক্ষই উপকৃত হবে। বিদ্যুৎ উৎপাদন ও সরবরাহের প্রক্রিয়ায় নেপালকে যুক্ত করার প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ। তবে এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত ভারতীয় পক্ষের অবস্থান স্পষ্ট করা হয়নি।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বাণিজ্য ঘাটতি প্রচুর এবং তা ভারতের অনুকূলে। ভারতের বাজারে যাতে বাংলাদেশের পণ্য আরও বেশি করে প্রবেশ করতে পারে, সে জন্য ৬ বছর আগে শূন্য শুল্ক সুবিধা ঘোষণা করা হয়। হাতেগোনা কয়েকটি পণ্য বাদে এখন যে কোনো বাংলাদেশি পণ্যই ভারতের বাজারে অবাধে প্রবেশ করার কথা। তাহলে ভারতে বাংলাদেশের পণ্য রফতানি বাড়ছে না কেন? এর প্রধান কারণ অনেক ধরনের অশুল্ক বাধা_ এটাই সংশ্লিষ্টদের অভিমত। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী পাটজাত পণ্যের ওপর আরোপিত অ্যান্টি-ড্যাম্পিং ডিউটি তুলে নিতে ভারতকে অনুরোধ করেছেন। বিনিময়ে মিলেছে প্রতিশ্রুতি, যা পূরণ হলে পাটজাত পণ্যের রফতানি বাড়ানো সম্ভব হবে। আমরা আশা করব, ভারতের বাজারে বাংলাদেশের পণ্য রফতানি বাড়াতে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার ভিত্তিতে দিলি্ল অগ্রসর হবে। বাণিজ্য ক্ষেত্রে এটাই বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে বড় স্বার্থগত বিষয়।

ভারতীয় উদ্যোক্তাদের স্বাগত জানাতে বাংলাদেশ প্রস্তুত। এ জন্য বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে শিল্প-বাণিজ্যের প্রতিষ্ঠান স্থাপনে তাদের আগ্রহ রয়েছে। ভারতীয়রা তাদের জন্য নির্ধারিত এলাকায় বিনিয়োগ করলে সেখানে উৎপাদিত পণ্য ভারতের বাজারে রফতানি করা যাবে। প্রধানমন্ত্রীর সফরকালে ভারতীয় বেসরকারি উদ্যোক্তারা বাংলাদেশে ৯ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের জন্য সমঝোতা স্মারক সই করবেন বলে জানা গেছে। সমঝোতা দ্রুতই বাস্তবে রূপ নেবে, এটাই কাম্য। দুই দেশ সীমান্ত হাটবাজার সম্প্রসারণে সম্মত হয়েছে। এ ক্ষেত্রে বাধাগুলো দূর করায় বিশেষ উদ্যোগ চাই। উভয় দেশের সীমান্তে দুটি সমস্যা প্রকট_ অনুন্নয়ন ও সন্ত্রাস। সীমান্ত সংলগ্ন এলাকার অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হলে এ সমস্যা থেকে নিষ্কৃতি মিলতে পারে। সীমান্তের উভয় অংশে যৌথ অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের কথা ভাবা যেতেই পারে।

তবে সবকিছু ছাপিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে, এ সফর থেকে আদপেই কি কিছু মিলল? এমন প্রশ্নের কারণ আমাদের জানা_ অনেক দৃশ্যমান অর্জনের মধ্যেও তিস্তার পানি বণ্টন বিষয়ে ছয় বছর ধরে ঝুলে থাকা সমঝোতার বিষয়ে চুক্তি না হওয়া। আবারও আশ্বাসের ঘূর্ণাবর্তে ঘুরপাক! দুই দেশের কেন্দ্রীয় সরকারের ঐকমত্য কেন বাস্তবায়ন হচ্ছে না? এবারে নতুন শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে মমতা ব্যানার্জির তিস্তার পানি বণ্টন বিষয়ে বিকল্প প্রস্তাবে। তিনি যে প্রস্তাব রেখেছেন তা অবাস্তব এবং এতে কেবল সময়ক্ষেপণ হবে না, পরস্পরের প্রতি অবিশ্বাস সৃষ্টি হবে। এর বিরূপ প্রভাব প্রকৃতি-পরিবেশে যেমন পড়বে, তেমনি সম্পর্ককে উন্নত পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার পথেও বিঘ্ন সৃষ্টি হবে। বাংলাদেশের জনগণ তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যা চাইছে। কীভাবে এ নদীর পানি বণ্টন হবে, তা ২০১১ সালেই চূড়ান্ত হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, দ্রুতই এ চুক্তি সই হবে। আমরা সেটাই দেখতে চাই। কারণ এ বিষয়টি এখন আর পানি বণ্টনের মধ্যে সীমিত নেই। এ বিষয়ে কার্যকর অগ্রগতির অভাবে যৌথ নদী কমিশনের সভাও কয়েক বছর ধরে অনুষ্ঠিত হতে পারছে না। অন্যান্য অভিন্ন নদ-নদীর পানি বণ্টনের আলোচনাতেও এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী সাতটি নদীর পানি বণ্টন ও ব্যবস্থাপনার বিষয়ে আলোচনা শেষ করার নির্দেশনা দিয়েছেন। গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্প বাস্তবায়নও গুরুত্ব পেয়েছে। এ প্রকল্প বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তবে এ প্রকল্পের বাস্তবায়নের জন্যও চাই দুই দেশের সমঝোতা, বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে। ভারতের ওই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর এ প্রকল্পের বিষয়ে উৎসাহের অভাবের কথা শোনা যাচ্ছে। আমার কথা, দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জয়েন্ট টেকনিক্যাল সাব গ্রুপ অন গঙ্গা ব্যারাজ প্রকল্প প্রতিষ্ঠার কাজ দ্রুত সম্পন্ন ও কাজ এগিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। মনে রাখতে হবে, বর্তমান গঙ্গার পানি বণ্টন চুক্তি ১৯৯৬ সালে সই হয়েছিল ৩০ বছর মেয়াদের জন্য। এর মেয়াদ শেষ হয়ে আসছে এবং তার আগেই আমাদের গঙ্গা ব্যারাজের বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা চাই।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের শুরুতে ধারণা দেওয়া হয়েছে_ সম্পর্ককে নতুন পর্যায়ে উন্নীত করার প্রয়াস চলবে। এ লক্ষ্যেই আমাদের চেষ্টা ছিল উপ-আঞ্চলিক, আঞ্চলিক ও জলবায়ুর মতো ভবিষ্যৎমুখী কর্মকাণ্ডে সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা ও পরিকল্পনা। এ ক্ষেত্রে বিবিআইএন-এর মাধ্যমে যানবাহন চলাচল ও জলবিদ্যুৎ উৎপাদন গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প। কিন্তু এ চারটি দেশের মধ্যে মোটরযান চলাচল করার বিষয়টিতে কার্যকর পদক্ষেপ নেই। বিসিআইএম-এর ব্যাপারে দুই প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক করিডোরের স্টাডি গ্রুপ রিপোর্ট চূড়ান্ত করতে বলেছেন। ভারত এ গ্রুপের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। দু’বছর আগেই তাদের প্রতিবেদন প্রদানের সময় শেষ হয়ে গেছে। এখন এ কাজে গতি আসবে, এটাই কাঙ্ক্ষিত।

বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ ঘোষণায় সার্ক নেই। এ সংস্থার উদ্যোক্তা বাংলাদেশ। আঞ্চলিক সহযোগিতার কাঠামো হিসেবে এ সংস্থার গুরুত্ব খাটো করে দেখার উপায় নেই। এখন পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়ায় সার্কের বিকল্প কোনো সংস্থা গড়ে ওঠেনি কিংবা তার উদ্যোগ নেই। যে কোনো দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক বা উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতার মূল কথা সবার প্রতি সম্মান প্রদর্শন, সবার অংশগ্রহণ, সবার স্বার্থ ও লাভ সুনিশ্চিত করা। আর এটা হলেই কেবল টেকসই সম্পর্ক হতে পারে, সবার কল্যাণ নিশ্চিত হতে পারে। প্রধানমন্ত্রী দিলি্ল সফরের মধ্য দিয়ে এ বিষয়ে বাংলাদেশের প্রত্যাশা জোরালোভাবেই তুলে ধরতে পেরেছেন। তিনি ভারত সফরের শুরুর দিনে ভারতের দুটি গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় দৈনিকে কলাম লিখেছেন, যাতে শিরোনাম দেওয়া হয়েছে ‘বন্ধুত্ব নদীর মতো বহমান’। তিনি বলেছেন, উদ্দেশ্য মহৎ হলে কল্যাণকর ফলও সম্ভব। আমি মনে করি, দুই দেশের সম্পর্ক উন্নততর পর্যায়ে পেঁৗছালে তা থেকে এ অঞ্চলের সব দেশ উপকৃত হবে। সবার জন্য টেকসই উন্নয়নের এটাই ভিত্তি হতে পারে।

সাবেক রাষ্ট্রদূত, রাজনৈতিক বিশ্লেষক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here