ট্রাম্পের উত্তর কোরিয়া নীতির সম্ভাব্য পরিণতি

0
240

উত্তর কোরিয়া প্রসঙ্গে হুমকি-ধামকির কৌশলটিই জারি রাখিয়াছে যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে দশ দিনব্যাপী সফরের অংশ হিসাবে দক্ষিণ কোরিয়া অবস্থানকালে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স নূতন করিয়া জানাইয়া দেন যে, উত্তর কোরিয়ার বিষয়ে বারাক ওবামার আমলে গৃহীত ‘কৌশলগত ধৈর্যধারণের কাল ফুরাইয়া গিয়াছে’। উল্লেখ্য, ক্ষমতায় আরোহণ অবধি এই একই কথা বলিয়া চলিয়াছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত মাসাধিককাল ধরিয়া সিরিয়া, আফগানিস্তান ও ইয়েমেনের মতো দেশগুলিতে মার্কিন বিমান হামলার হার দারুণভাবে বৃদ্ধি পাইতে দেখিয়া, কোনো কোনো বিশ্লেষক উত্তর কোরিয়ার উপরেও যেকোনো সময়ে মার্কিন সামরিক হামলার আশঙ্কায় ভুগিতেছেন।

বিগত অনেকগুলি বত্সর ধরিয়া বলিতে গেলে একই রকম ঘটনা ঘটিতেছে। পরমাণু প্রকল্প বন্ধ করিবার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে উত্তর কোরিয়ার উপরে চাপ প্রয়োগ চলিতেছে। উত্তর কোরিয়া সেই চাপ অগ্রাহ্য করিয়া নিজের মতো পথ চলিতেছে। ইহার প্রতিক্রিয়ায় জাতিসংঘ কিংবা যুক্তরাষ্ট্র ও তাহার মিত্রদের তরফ হইতে আসিতেছে একের পর এক অবরোধ-নিষেধাজ্ঞা। ট্রাম্প আমলে এই ধারাবাহিক অনুশীলনে বেশ খানিকটা গতি বৃদ্ধি হইয়াছে। এক্ষণে মনে হইতেছে যে, ওবামার কূটনৈতিক সমাধানের কৌশলের স্থলে, সামরিক উপায়ে উত্তর কোরিয়াকে শায়েস্তা করিবার বিষয়ে মনস্থির করিয়া ফেলিয়াছেন ট্রাম্প। পেন্সের শব্দ-চয়নের মধ্যে ট্রাম্পের চিন্তার প্রতিফলন পাওয়া যাইতেছে। সামরিক হামলার সম্ভাবনা স্পষ্ট করিয়া দিয়া তিনি বলেন, ‘সব ধরনের পথই আমাদের বিবেচনাতে রহিয়াছে’। উত্তর কোরিয়া যদি পরমাণু অস্ত্র ব্যবহার করিয়া ফেলে, তাহা হইলে দেশটিকে ‘সর্বাত্মক ও যথোচিত প্রত্যুত্তর’ দেয়ার কথাও জানান পেন্স। প্রশ্ন হইতেছে, এই ধরনের কথাবার্তা পেন্স তথা যুক্তরাষ্ট্র বলিবার এখতিয়ার রাখে কিনা। কয়েকদিনের ব্যবধানে সিরিয়া ও আফগানিস্তানের উপরে হামলা দেখিয়া মনে হইতেছে, এখতিয়ারের প্রশ্নের পরিবর্তে নিজ-শক্তিমত্তা প্রমাণ করাই এই মুহূর্তে কোনো এক কারণে ট্রাম্প প্রশাসনের প্রধান বিবেচ্য হইয়া উঠিয়াছে।

সত্য বটে, উত্তর কোরিয়ায় একটি কট্টর একনায়কতান্ত্রিক ব্যবস্থা জারি রহিয়াছে। একনায়কতন্ত্রের পরিণতিতে প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরিয়া দেশটির নাগরিকেরা স্বাভাবিক জীবন-যাপন হইতে বঞ্চিত হইতেছে। একই সঙ্গে এই সত্যও উচ্চারণ করিতে হইবে যে, কোরিয়া উপদ্বীপে যুদ্ধ স্থগিত হইবার পর হইতে গত সাড়ে ছয় দশক উত্তর কোরিয়াকে শাস্তিদান, অপদস্থকরণ এবং অর্থনৈতিকভাবে ধ্বংস করিবার জন্য করণীয় সকল কিছুই করিয়া চলিয়াছে যুক্তরাষ্ট্র। ইহার পরিণতিতে দেশটিতে আসিয়াছে দুর্ভিক্ষ ও চরম দারিদ্র্য। সংকুচিত হইয়াছে দেশটির বৈদেশিক বাণিজ্য ও বৈদেশিক সম্পর্ক। চাপের মধ্যে পড়িয়া থাকা উত্তর কোরিয়ার শাসকেরা দিনের পর দিন অধিকতর আক্রমণাত্মক, অধিকতর বিচ্ছিন্নতাপ্রবণ হইয়া উঠিয়াছেন। এইসব হইতে যুক্তরাষ্ট্র কিন্তু কোনো ফায়দা তুলিতে পারে নাই। বরং স্বাভাবিক কূটনীতির পরিবর্তে নানারকমের কুটকৌশলের পালটা জবাব হিসাবে পরমাণু শক্তিধর উত্তর কোরিয়া অধিকতর দুর্বোধ্য ও অধিকতর বিপজ্জনক হইয়া উঠিয়াছে। বিশ্ব সমপ্রদায়কে অগ্রাহ্য করিয়া ট্রাম্পের একাঙ্কিকা যে এই ঝুঁকি আরো বাড়াইয়া তুলিবে, তাহাতে তেমন কোনো সন্দেহ থাকিতেছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here