তাহারা কেন আজ বাস্তুহারা?

0
245

ঈদুল ফিতরের পূর্বে সারা বিশ্বে পালিত হয় বিশ্ব শরণার্থী দিবস। এই দিনটি উদযাপনের আগে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তাহাতে বলা হয়, বিশ্ব জুড়িয়া সংঘাত, নিপীড়ন ও নির্যাতনের কারণে ২০১৬ সালের শেষ নাগাদ রেকর্ড সংখ্যক তথা ছয় কোটি ৫৬ লক্ষ মানুষ তাহাদের ঘরবাড়ি ছাড়িয়া অন্যত্র চলিয়া যাইতে বাধ্য হইয়াছে। ২০১৫ সালে এই সংখ্যা ছিল তিন লক্ষ। এখানেই উদ্বিগ্ন হওয়ার যথেষ্ট কারণ রহিয়াছে। প্রতি বত্সর যেভাবে শরণার্থীর সংখ্যা বাড়িতেছে, তাহা প্রতিরোধ করা সম্ভব না হইলে বিশ্বে ভয়াবহ সংকট দেখা দিবে। আশ্রিত দেশগুলিতে দেখা দিবে আর্থ-সামাজিক অস্থিরতা যাহার নেতিবাচক প্রভাব পড়িবে বিশ্ব জুড়িয়াই।

শরণার্থীদের শ্রেণিকরণের ক্ষেত্রে দেখা যায়, দুই কোটি ২৫ লক্ষ মানুষ যুদ্ধ-বিগ্রহের কারণে এক দেশ হইতে অন্য দেশে পালাইয়া যাইতে বাধ্য হইয়াছে, দেশে অস্থিতিশীলতার কারণে অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হইয়াছে চার কোটি তিন লক্ষ মানুষ এবং জীবননাশ ও মানবাধিকার ক্ষুণ্ন হওয়ার আশঙ্কাসহ নানা কারণে আশ্রয়প্রার্থী রহিয়াছে ২৮ লক্ষ মানুষ। যদিও বলা হইতেছে, গত বত্সরের তুলনায় অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত লোকের সংখ্যা কিছুটা কমিয়াছে, কিন্তু বিদ্যমান সংখ্যাটিও মোটেও স্বস্তিকর নহে। গত বত্সর এই সংখ্যাটি ছিল চার কোটি ৮০ লক্ষ। আরও উদ্বেগের বিষয় হইল, দেশান্তরিত শরণার্থীদের অর্ধেকই শিশু। এই পরিস্থিতি মানিয়া নেওয়া যায় না। ইহা আন্তর্জাতিক কূটনীতির হতাশাজনক ব্যর্থতা। বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান ও শক্তিধর দেশগুলির চরম উদাসীনতা। তাহারা এই পৃথিবীর দ্বন্দ্ব-সংঘাত বন্ধে একের পর এক ব্যর্থতার পরিচয় দিয়া চলিয়াছে। পুরাতন সংঘর্ষ লাগিয়া থাকিবার পাশাপাশি বাড়িয়াছে নূতন সংঘর্ষও যাহা একেবারেই অপ্রত্যাশিত। অবাক করা ব্যাপার হইল, উদ্বাস্তু মানুষের চাপ নিতেছে বিশ্বের দরিদ্রতম ও মধ্যম আয়ের দেশগুলি। এইসব দেশে রহিয়াছে ৮৪ শতাংশ উদ্বাস্তু। ফলে উদ্বাস্তুরা মানবেতর জীবন যাপন করিতেছে। একদিকে নিজেদের দারিদ্র্য, অন্যদিকে শরণার্থীদের চাপে এইসব দেশ দিশাহারা।

প্রকৃতপক্ষে সাম্রাজ্যবাদী ও পরাশক্তিগুলির স্বার্থের কারণেই যে বিশ্বে যুদ্ধ-বিগ্রহ ও দ্বন্দ্ব-সংঘাত বাড়িতেছে তাহা অনস্বীকার্য। এই দ্বন্দ্বে পড়িয়া বাড়িতেছে উদ্বাস্তু লোকের সংখ্যাও। অস্ত্র ক্রয়-বিক্রয়ের অশুভ প্রতিযোগিতার কারণেও বৃদ্ধি পাইতেছে অশান্তি ও হানাহানি। আফগানিস্তান, ইরাক, সিরিয়া, লিবিয়া, ইয়েমেন প্রভৃতি দেশে বর্তমানে চলিতেছে যুদ্ধ-বিগ্রহ। এইসব দেশ কয়েক বত্সর আগেও ছিল স্থিতিশীল ও কোনো কোনো ক্ষেত্রে সমৃদ্ধ। নাগরিকদের অনেকের জীবনেই ছিল সুখ ও স্বাচ্ছন্দ্য। কিন্তু সংঘাতের কারণে এখন অনেকে পরিণত হইয়াছে পথের ভিখারিতে। পৃথিবীকে এভাবে তছনছ করিয়া দেওয়ার জন্য যে বা যাহারা দায়ী, তাহাদের লাগাম টানিয়া ধরিবার মতো বৈশ্বিক শক্তি ও প্রতিষ্ঠানের আজ বড়ই অভাব। তাই যুদ্ধ ও উদ্বাস্তু সমস্যায় জর্জরিত দেশগুলিকেই সচেতন ও ঐক্যবদ্ধ হইয়া ভিন্ন প্লাটফর্ম গড়িয়া তুলিতে হইবে। উদভূত পরিস্থিতি মোকাবিলা করিতে হইবে আঞ্চলিকভাবে। নাইন-ইলেভেনের পর একজন প্রতাপশালী প্রেসিডেন্ট বলিয়াছিলেন, তিনি যুদ্ধকে বাহিরে ছড়াইয়া দিবেন। আসলে তাহাই হইয়াছে। যুদ্ধ এখন ক্রমেই ছড়াইয়া পড়িতেছে পৃথিবীর আনাচে-কানাচে। শান্তিকামী বিশ্ববাসী ইহার বিরুদ্ধে সোচ্চার ও প্রতিবাদমুখর না হইলে বিশ্বে বিরাজমান যুদ্ধ-বিগ্রহ ও তাহার কারণে সৃষ্ট উদ্বাস্তু সমস্যার সমাধানের কোনো আশা নাই বলিলেই চলে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here