দায়ী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত

0
225

দেশে বুঝি-বা সরকারি মালামাল, অর্থকড়ি ও সম্পদ লইয়া যথেচ্ছাচার চলিতেছে! নির্মাণ কাজে সরকারি অর্থের বা সরকারি নির্মাণ সামগ্রীর নয়ছয় তো এখন যেন স্বাভাবিক নিয়মে পরিণত হইয়াছে। সরকারি গুদামের চাল ডাল বা অন্যান্য সামগ্রী লোপাট তো নিত্য ঘটনা! এই অনিয়ম বন্ধের দায়িত্বে যাহারা নিয়োজিত তাহারাই ভক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ায় পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করিতেছে। বরিশালের শেরেবাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মহিলা মেডিক্যাল ওয়ার্ডে নিয়মিত সরকারি ঔষধ চুরির ঘটনা উদঘাটিত হইয়াছে। গত শুক্রবার সেখানকার লক্ষাধিক টাকা মূল্যের সরকারি ঔষধ ঐ ওয়ার্ডের আয়া শেফালী বেগমের বাসা ও কর্মচারীদের কোয়ার্টারের সামনের পুকুর হইতে উদ্ধার করা হয়। বিষয়টি লইয়া জনমনে কৌতূহল ও জল্পনা-কল্পনা যখন তুঙ্গে ঠিক তখনই ঐ মহিলা ওয়ার্ড হইতে আরও পাঁচ লক্ষ টাকার ঔষধ উদ্ধার করা হইয়াছে। এই সব ঔষধ সেখানকার কর্মচারীদের একটি দুষ্ট চক্র ঔষধ ভাণ্ডার হইতে দীর্ঘদিন যাবত্ চুরি করিয়া আসিতেছে বলিয়া প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হইতেছে। যেখানে ওয়ার্ডে একদিনের বেশি ঔষধ মজুদ রাখার বিধান বা নিয়ম নাই সেখানে কি করিয়া এত বিপুল পরিমাণ ঔষধের মজুদ গড়িয়া তোলা হইয়াছে? এই ব্যাপারে অবশ্য তিনজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে প্রধান করিয়া পৃথক তিনটি তদন্ত কমিটি গঠিত হইয়াছে। একটি সংঘবদ্ধ চক্র যে সরকারি ঔষধ নানান ছলে চুরি করিয়া বাহিরে বিক্রি করিতেছে এই ঘটনা উহারই প্রমাণ। তদন্তে যাহাই প্রকাশ পাক না কেন খোলা চোখে এবং সাধারণ কাণ্ডজ্ঞানেই বুঝা যায় এই চৌর্যবৃত্তি ও উহার উদ্দেশ্য আসলে কী!

সারা দেশেই যে ব্যাধির মতো এহেন সংঘবদ্ধ দুষ্ট চক্র ছড়াইয়া পড়িতেছে উহা তো বলাই বাহুল্য। ইহার প্রতিকার বা ইহাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়িয়া তুলিতে হইলে আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগ এবং দোষী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান একান্তই প্রয়োজন। কিন্তু মুশকিল এই যে, রোজই পত্রিকার সংবাদে এই জাতীয় দুষ্কর্মের ঘটনার কথা জানা গেলেও এবং দেশে উহার বিহিতকল্পে পর্যাপ্ত আইন-কানুন থাকিলেও প্রশাসনের অভ্যন্তরে ঘাপটি মারিয়া থাকা বা বাহিরের অপশক্তির প্রভাবে ‘দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালন’ কদাপি সম্ভব হয়! ফলে কুচক্রীদের ঘৃণ্য তত্পরতা বাড়িয়াই চলে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করিবে উহাই তো প্রত্যাশিত; কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমরা উহার কোনো নজির দেখিতে পাই না। সরকারি মাল মানে জনগণের মাল। সুতরাং, জনগণের সম্পদ বিনষ্টের, চুরির বা লোপাটের কোনো অধিকার কাহারও থাকিতে পারে না। কিন্তু এই সারসত্যটি তাহাদেরকে বুঝাইবে কে? ঐ সংঘবদ্ধ চক্র জনগণের সম্পদকে নিজেদের সম্পদ বলিয়া মনে করে আর তাই উহা লইয়া জঘন্য সব কর্মকাণ্ড করিতে তাহাদের এতটুকুও বাধে না।

ঔষধের অভাবে গরিব রোগীরা কিভাবে তড়পায় আর উহাদের অনেকের জীবনহানির কারণ ঘটে উহা কুচক্রী ঐ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দৃষ্টি, চিন্তা-চেতনা, বিবেক-বুদ্ধি কোনো কিছুতেই ধরা পড়ে না। ফলে, তাহারা দিনের পর দিন বেপরোয়াভাবে অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতা চালাইয়া যায়। তবে ইহার যে প্রতিকার জরুরি ইহা যেন সংশ্লিষ্ট মহল ভুলিয়া না যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here