নতুন বছরেও অব্যাহত ট্রাম্পের গোলমেলে কাণ্ড

0
370

আনুশে হোসেন : ডোনাল্ড ট্রাম্পকে কখনো কখনো অভিহিত করা হয় ‘গোলমেলে প্রেসিডেন্ট’ হিসেবে। নতুন বছরের শুরুতে তিনি নিঃসন্দেহে আমাদের খুব সুন্দরভাবে উপহার দিয়েছেন আরো বেশি বিশৃঙ্খলা। ২০১৮ সালের প্রথম মাস শুরু হলো মাত্র, নতুন বছরের প্রথম দিনটিতে টুইট বার্তায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তোপ দাগিয়েছেন পাকিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থসাহায্যের ব্যাপারে। ট্রাম্প লিখেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ১৫ বছর ধরে বোকার মতো পাকিস্তানকে প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি ডলার অর্থ সাহায্য দিয়ে এসেছে, যার বিনিময়ে তারা কিছুই পায়নি। বরং মার্কিন নেতাদের বোকা ভেবে পাকিস্তান মিথ্যা বলেছে ও প্রতারণা করেছে। উল্টো আফগানিস্তানে মার্কিন সেনারা যাদের খুঁজছে, পাকিস্তান তাদের নিরাপদ আশ্রয় দিচ্ছে। কিন্তু যথেষ্ট হয়েছে, আর না।’

এই টুইট বার্তা অত্যন্ত তাত্পর্যপূর্ণ এই কারণে যে, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মিত্রজোটের ঐতিহাসিক অংশ ছিল পাকিস্তানের প্রতি ওই অর্থসাহায্য। এর স্থগিতাদেশের বার্তা সেই কারণে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। এর আগে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে জেরুজালেমকে স্বীকৃতি দিয়ে কঠিন বিতর্ক উসকে দিয়েছেন ট্রাম্প। এই স্বীকৃতির ভেতর দিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদেও আমেরিকাকে নিঃসঙ্গ করা হয়েছে। কেবল এখানেই থেমে থাকেননি ট্রাম্প। এরপর আরো বেশি আক্রমণ শানিয়েছেন ফিলিস্তিনিদের সাহায্যের ব্যাপারে। ফিলিস্তিনিদের জন্য যুক্তরাষ্ট্র কেন অর্থসাহায্য করবে—এই মর্মে প্রশ্ন তুলেছেন ট্রাম্প। তা ছাড়া উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে পরমাণু যুদ্ধের ব্যাপারে ট্রাম্পের হুমকি-ধামকিও বিশ্ব ময়দানকে গরম করেছে যথেষ্ট।

তবে আমেরিকার বিদেশনীতির ক্ষেত্রে ট্রাম্পের বেপরোয়া কথাবার্তার এটুকুই কেবল উদাহরণযোগ্য নয়। ন্যাশনাল ম্যাগাজিন অ্যাওয়ার্ড ও মিরর অ্যাওয়ার্ড-ভূষিত নিউজার্সিতে জন্ম নেওয়া ৬৫ বছর বয়সী প্রখ্যাত সাংবাদিক ও লেখক মাইকেল উল্ফ-এর সদ্যপ্রকাশিত ‘ফায়ার অ্যান্ড ফিওরি : ইনসাইড দ্য ট্রাম্প হোয়াইট হাউস’ গ্রন্থে উঠে এসেছে ট্রাম্পের বিবিধ বেপরোয়া আচরণ ও বিদেশনীতির কথা।

বইটি ট্রাম্পের জন্য এতটাই অস্বস্তির কারণ হয়ে উঠেছিল যে, তিনি এটির প্রকাশনা আটকে দিতে চেয়েছিলেন। বইটিতে ১৮ মাস ধরে নেওয়া ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার ঘনিষ্ঠ সহযোগীসহ হোয়াইট হাউসকে যেসব ট্রাম্প-ঘনিষ্ঠরা অস্বাভাবিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে চেষ্টা করেছেন—তাদের কর্মকাণ্ডসমৃদ্ধ সাক্ষাত্কার প্রকাশিত হয়েছে।

বইটির লেখক মাইকেল উল্ফ একটি মারাত্মক অভিযোগ তুলে ধরেছেন, যা কিনা ট্রাম্প ও তার একসময়ের প্রধান নির্বাচনী প্রচারণা কৌশলবিদ স্টিভ ব্যাননের মধ্যে সপ্তাহজুড়ে নোংরা কাদা ছোড়াছুড়ির সূচনা করে।

এ ব্যাপারে মাইকেল নিজেও বেশ কৌশলী হয়েছেন। বইয়ের পাতা উল্টানোর সঙ্গে সঙ্গেই ক্রেজি পাঠকরা যাতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পাগলামির বিবরণ পড়তে পারেন, সেভাবেই সাজানো হয়েছে বইটি। এমনকী আমেরিকার প্রেসিডেন্টের বেডটাইম রুটিন—যা সাধারণত শুরু হয় সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার পর, এর সঙ্গে রয়েছে ট্রাম্পের তিনটি টেলিভিশন সেটে সংযুক্ত গুরুত্বপূর্ণ ক্যাবল নিউজ স্টেশনের কথা, যার মধ্যে রয়েছে সিএনএন। এছাড়া ট্রাম্পের পছন্দের ডিনার ম্যাকডোনাল্ডের চিজবার্গারের মতো বিভিন্ন চটকদার তথ্যও যুক্ত হয়েছে এই গ্রন্থে।

তবে এই বইয়ের যে অংশটি সবচেয়ে বড় বিস্ফোরক, তা হলো—ট্রাম্প কখনোই ভাবেননি যে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হবেন। ট্রাম্প মূলত ব্যবসায়িক কারণে অংশ নিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে। তিনি মনে করেছিলেন প্রেসিডেন্ট পদে প্রচারণায় প্রসার ঘটবে তার ট্রাম্প ব্র্যান্ডের, যা তাকে আরো বিখ্যাত করে তুলবে।

উল্ফ আরো দাবি করেছেন যে, ট্রাম্পের বুদ্ধিমত্তা ও যোগ্যতার ব্যাপারে সন্দিহান তার অনেক ঊর্ধ্বতন উপদেষ্টা এবং তার পরিবারের সদস্যদের মনেও সন্দেহ রয়েছে এ ব্যাপারে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট এবং হোয়াইট হাউসের চিরাচরিত রক্ষণাত্মক প্রতিক্রিয়া না দেখিয়েও মাইকেল উল্ফের এসব দাবিকে বাতিল করা যেত খুব সহজেই। কিন্তু ট্রাম্প সেটা করেননি। বরং তিনি চেষ্টা করেছেন এই বইটাই যাতে প্রকাশিত না হয়। এমন ঘটনা এ যাবত্ আমেরিকার কোনো প্রেসিডেন্ট ঘটাননি। কারণ বাকস্বাধীনতা আমেরিকার সংবিধান দ্বারা ঐতিহাসিকভাবে সুরক্ষিত।

তবে এই বইটি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে ট্রাম্পের জন্য। রাশিয়ার ব্যাপারে চলমান তদন্ত, যা হোয়াইট হাউসের জন্য কঠিন সংকট সৃষ্টি করেছিল, যার কারণে ক্যাপিটল হিলের অসংখ্য আইনপ্রণেতা খোলাখুলিভাবে প্রশ্ন তুলেছিলেন ট্রাম্পের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে—এসব ব্যাপারও রাতারাতি চাপা পড়ে যায় মাইকেল উল্ফের এই বই প্রকাশের পর।

হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি সারা হাকবি স্যান্ডার জোর গলায় নাকচ করেছেন উল্ফ-এর এসব বিতর্কিত দাবিকে। তিনি এটাকে ট্রাম্পের জন্য ‘মর্যাদাহানিকর ও হাস্যকর’ হিসেবে অভিহিত করেছেন। তবে প্রেস সেক্রেটারির কথা আমলে নেয়নি আমেরিকার মিডিয়া। সিএনএন এটাকে এভাবে বর্ণনা করেছে যে, ‘ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভাবমূর্তির তুলনায় বড় আর কিছু নয়। কিন্তু মাইকেল উল্ফকে ওয়াশিংটনের ওয়েস্ট উয়িং এমনভাবে উপস্থাপন করেছেন যে, লেখক যেন জোরজবস্তি করে ট্রাম্পের পুরস্কৃত ভাবমূর্তিকে খণ্ডবিখণ্ড করেছেন। যখন কোনো প্রেসিডেন্সিতে নিজস্ব ভাবমূর্তি সবচাইতে বড়ভাবে উপস্থাপিত হয়, যেখানে দীর্ঘমেয়াদি কোনো ঐতিহাসিক অর্জনের অভিলক্ষ্য নেই, নেই কোনো আদর্শগত দৃঢ়তা, সেখানে প্রেসিডেন্সির ভাবমূর্তির যে কোনো ধরনের অবক্ষয় অত্যন্ত বিপজ্জনক। ট্রাম্পের যে চিত্র উল্ফ এঁকেছেন তাতে দেখা গেছে, ট্রাম্প হলেন এমন একজন প্রেসিডেন্ট যিনি তার বিস্তারিত কর্মপন্থা ও নীতি সম্পর্কে খুব কমই জানেন, যিনি কোনো কিছুর ভ্রুক্ষেপ করেন না এবং যিনি অনুধাবন করতে পারেন না তার পদের সুবিশালত্ব ও এর দায়িত্বভার। এই ট্রাম্পকে অসম্ভব ভঙ্গুর বলে মনে হয়, নিজের ওপর যার নিয়ন্ত্রণ খুব সামান্যই। বারংবার আবেগতাড়িত প্রতিক্রিয়া ও বিবিধ কর্মকাণ্ড বিশ্লেষণে তাকে দেখে মনে হয়—হোয়াইট হাউসে তিনি খুবই নিঃসঙ্গ।

এক দশকের বেশি সময় ধরে ওয়াশিংটনে বসবাস করছি আমি। নিজের পর্যবেক্ষণে হোয়াইট হাউসকে সবসময় আমার মনে হয়েছে আমেরিকার শক্তিমত্তার অত্যন্ত মনোরম ও রুচিমার্জিত একটি প্রতীক। ঝকঝকে প্রদীপ্ত রূপ ও শুভ্র বৈভব নিয়ে এটি এই বিশ্বের সবচাইতে শক্তিশালী ও নিরাপদ অধিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে—যা ধরা যায় না, ছোঁয়া যায় না। প্রেসিডেন্ট ওবামার জমানায় এক বছর আমার স্বামী ও আমি হোয়াইট হাউসে আমন্ত্রিত হয়েছিলাম একটি বড়দিনের অনুষ্ঠানে। তখন সামনে থেকে বুঝেছি, এই হাউসের গ্ল্যামার ও বিশালত্ব কোনো কিছুর সঙ্গে তুলনীয় নয়। আমেরিকার গরিমার সৌন্দর্য গেঁথে আছে হোয়াইট হাউসের প্রতিটি কণায়। ডোনাল্ড ট্রাম্পের আবাসস্থল হিসেবে হোয়াইট হাউসের সেই সৌন্দর্য আর গৌরবের যেন মৃত্যু ঘটেছে।

ট্রাম্পের হোয়াইট হাউসের ভাবমূর্তি ইতোমধ্যে ধসে গেছে। একই সঙ্গে ট্রাম্পের প্রেসিডেন্সির ভেতর দিয়ে আমেরিকার বিদেশনীতি এই মুহূর্তে আক্রান্ত হয়েছে পক্ষাঘাতে। মাইকেল উল্ফের সংবেদনশীল বইটি নিঃসন্দেহে এই দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতির চিত্রই তুলে ধরেছে।

ইংরেজি থেকে অনুবাদ : অদ্বয় দত্ত

লেখক : যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি সাংবাদিক, নারী অধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here