নারী উদ্যোক্তাদের পাশে থাকুন

0
245

নারী উদ্যোক্তাদের ঋণ প্রদানের ইস্যুটি গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা হতে শুরু করে ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচির ব্যাপক সাফল্যের পর। গ্রামীণ ব্যাংক, প্রশিকা, আশা ও ব্র্যাকসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান স্বল্প পরিমাণ ঋণ প্রদান করতে থাকে। প্রধানত নারীদের হাতেই এ ঋণ যায়। ঋণের জন্য গ্রুপ-সিকিউরিটি বা যৌথ দায়বদ্ধতার ব্যবস্থা থাকলেও কিন্তু কোনো স্থাবর সম্পদ বন্ধক রাখা হয় না। তবে বিস্ময়ের ব্যাপার যে, প্রদত্ত ঋণের প্রায় সবটাই ফেরত পাওয়া যায়। বাংলাদেশে খেলাপি ঋণ বড় সমস্যা এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, বড় অঙ্কের ঋণগ্রহীতাদের মধ্যেই ব্যাংকের অর্থ নিয়ে সময়মতো ফেরত না দেওয়ার প্রবণতা বেশি। ক্ষুদ্রঋণ গ্রহীতা নারীরা সঙ্গত কারণেই আদর্শ হয়ে ওঠে। সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্যোগে নারী উদ্যোক্তা মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেও তাদের এ গুণাবলি প্রশংসিত হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, পাঁচ বছরে ৪২ হাজার নারী উদ্যোক্তাকে পাঁচ হাজার ৩৪৬ কোটি টাকা ঋণ প্রদান করা হয়েছে। তিনি অভিমত প্রকাশ করেন, যেসব নারীর শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ রয়েছে, তাদের জামানত ছাড়াই ঋণ পাওয়া উচিত। এ সংক্রান্ত নীতিমালা ও আইন-কানুনে পরিবর্তনের তাগিদও দিয়েছেন তিনি। এ মেলায় বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের শীর্ষ ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। আমরা আশা করব, সংশ্লিষ্ট সব পক্ষ দ্রুত এ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। নারীদের কেবল ক্ষুদ্র ও মাঝারি অঙ্কের নয়, বড় ধরনের শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা ও ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের ঋণ প্রদানের বিষয়টিও এখন আলোচনায়। বাংলাদেশ ব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তারা বলছেন, নারীদের ঋণ প্রদান অধিকতর নিরাপদ হবে। তবে এ ক্ষেত্রে অর্থায়নের পাশাপাশি অন্যান্য সমস্যার সমাধানেও মনোযোগ থাকা চাই। উদ্যোক্তাদের বহু বছর ধরেই ওয়ান স্টপ সার্ভিসের আশ্বাস প্রদান করা হচ্ছে। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কথা ও কাজের মিল থাকে না। নারীদের ছোট-মাঝারি-বড় অঙ্কের উদ্যোগে ঋণ প্রদানের পাশাপাশি তাই সার্বিক অনুকূল পরিবেশ গড়ে তোলার প্রতি মনোযোগী হওয়া চাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here