নীরব রায়ে ফুটল হুল

0
252

আবু সাঈদ খান : উত্তপ্ত ছিল ৯ জুলাইর সংসদ অধিবেশন। আলোচনার সূত্রপাত ঘটেছিল ষোড়শ সংশোধনীর ওপর রায় নিয়ে। এ রায়ে বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা হারিয়েছে জাতীয় সংসদ। এখন থেকে আবার সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিলের তদন্তের ভিত্তিতে রাষ্ট্রপতিই বিচারকদের অভিশংসন করবেন।

১৯৭২ সালে প্রণীত সংবিধানে এটি সংসদের ওপরই ন্যস্ত ছিল। চতুর্থ সংশোধনীতে এটি রাষ্ট্রপতির হাতে অর্পিত হয়। পঞ্চম সংশোধনীতে এর সঙ্গে সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিলের বিধান সংযুক্ত হয়। ষোড়শ সংশোধনীর মাধ্যমে আবার সংসদের হাতে ন্যস্ত হলেও আদালতের রায়ে সংসদের সে ক্ষমতা থাকল না। এতে সরকার ও বিরোধীদলীয় সাংসদরা একযোগে ক্ষোভ ঝেড়েছেন। এ কারণে সাংসদরা ভিন্নমত পোষণ করতে পারেন, বিক্ষুব্ধও হতে পারেন; এতে আপত্তির কিছু নেই। কোনো বিধানই চূড়ান্ত কিছু নয়। অনুশীলনের মধ্য দিয়ে বিধিবিধান পরিবর্তিত হবে, পরিশুদ্ধ হবে, যুগোপযোগী হবে। তাই সংবিধান ও আইন-কানুন নিয়ে সংসদে তো বটেই, সংসদের বাইরেও আলোচনা হওয়া জরুরি। আমরা স্বাস্থ্যকর বিতর্ক চাই। তবে ৯ জুন যা ঘটেছিল তা চাই না।

ওই দিনের সব আলোচনাই যে মনঃপূত হয়নি তা বলছি না। তবে কিছু কিছু মন্তব্য আমাকে বিস্মিত ও হতবাক করেছে। ‘আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম সুপ্রিম কোর্টের রায়কে ‘অবৈধ’ বলে মন্তব্য করেন। তিনি উচ্চ আদালতকে নিজ দায়িত্বে রায় পর্যালোচনার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আপনি রায় দিয়েছেন, রায় নিয়ে বসে থাকেন। সংসদ এ রায় কার্যকর না করলে কখনও তা কার্যকর হবে না।’ তিনি বলেন, আপনারা নিজেরা রিভিউ করেন যে, নিজেদের ভুল হয়েছে। আপনারা সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন, আপনাদেরই করতে হবে। আমরা করব না’ (প্রথম আলো, ১০ জুলাই ২০১৭)। এ বক্তব্যের মধ্য দিয়ে বিচার বিভাগকে যেন সংসদের হুকুম তামিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে; কিন্তু সে এখতিয়ার সংসদের নেই। কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীও প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ এনেছেন। এসব শুনে মনে হবে যে, সংসদ ও বিচার বিভাগ বুঝি একে অন্যের প্রতিপক্ষ। বাস্তব সত্য যে, দেশের আইনসভা, নির্বাহী বিভাগ ও বিচার বিভাগ_ কেউ কারও প্রতিপক্ষ নয়। এ ক্ষেত্রে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর বক্তব্য প্রণিধানযোগ্য। তিনি ওই দিনের আলোচনায় মন্তব্য করেন, ‘নির্বাহী বিভাগ. বিচার বিভাগ ও আইনসভা_ রাষ্ট্রের তিনটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। তিনটি অঙ্গই সংবিধান সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে দায়িত্ব পালন করে। যার মাধ্যমে আইনের শাসন, গণতন্ত্র ও সুশাসন নিশ্চিত হয়’ (ইত্তেফাক, ১০ জুলাই ২০১৭)।

ওই দিন আলোচনার নিশানা হয়েছেন অ্যামিকাস কিউরিরাও। ড. কামাল হোসেন ও ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম সম্পর্কে শেখ সেলিম বলেছেন, ‘কোথাকার ডাক্তার তিনি। মুরগি, ছাগল না ভেড়ার। কামাল হোসেন প্রেসক্রিপশন দিয়েছেন, আমীর-উল ইসলাম…। বড় বড় মোনাফেক, সুবিধাভোগী। মনে করছে কনফ্লিক্ট লাগাইয়া যদি সুবিধা নেওয়া যায়? পাকিস্তানের চিন্তা-ভাবনা আনতে চান? একজনের তো শ্বশুরবাড়ি পাকিস্তানে, মেয়ের জামাই ইহুদি’ (প্রথম আলো, ১০ জুলাই ২০১৭)। এমন মন্তব্য কতটুকু শোভন?

কামাল হোসেনের মতো আইনজ্ঞকে আর যাই হোক ‘মুরগি, ছাগল না ভেড়ার ডাক্তার’ বলা যায় না। তবে তার আগেও আরেকজন সাংসদ কামাল হোসেনের ডক্টরেট ডিগ্রি সম্পর্কে সমালোচনা করেছিলেন। তিনি জাতীয় পার্টির এসএ খালেক। তিনি মিরপুরে নির্বাচনী জনসভায় বলেছিলেন, কামাল হোসেন কেমন ডাক্তার যে, কোনো রোগী দেখে না।

আর পাকিস্তানে শ্বশুরবাড়ি থাকা কি অপরাধ! পাকিস্তানের জনগণ তো বাংলাদেশের শত্রু না। বলাই বাহুল্য, একাত্তরে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ ছিল পাকিস্তানি সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে, পাকিস্তানের জনগণের বিরুদ্ধে নয়। সংখ্যায় কম হলেও পাকিস্তানের বুদ্ধিজীবী, লেখক, সাংবাদিকরা আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন, নির্যাতিত হয়েছেন। বাংলাদেশ তাদেরকে মুক্তিযুদ্ধ মৈত্রী সম্মাননাও দিয়েছে। তাই কোনো বিবেচনায়ই পাকিস্তানে শ্বশুরবাড়ি থাকা দোষের হয় না। মেয়ের জামাই ইহুদি কি-না তাও বিবেচ্য বিষয় নয়। এটি নিয়ে কোনো মুক্তমনা লোকের আপত্তি থাকার কথা নয়। এমনকি ধর্মীয় দৃষ্টিতে ইহুদি, খ্রিস্টানদের সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্ক জায়েজ। কারণ তারা আহলে কেতাবের আওতাভুক্ত।

মতিয়া চৌধুরীও কামাল হোসেন ও আমীর-উল ইসলামের একাত্তরের ভূমিকা নিয়ে সমালোচনা করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘এই ড. কামাল কে? জেনারেল মিঠ্যা খানের বইতে আছে, ড. কামাল সযত্নে পাকিস্তান গিয়ে অবস্থান করেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জার্মানিতে থাকা তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামালকে শেখ রেহানা অনুরোধ করেছিলেন, তিনি যেন একটা প্রেস কনফারেন্স করেন। তিনি অনুরোধ রাখেননি।… আর ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম কে? মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি জন স্টোনহাইজের সঙ্গে সম্পর্ক গড়েন। মুক্তিযুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত বাঙালিদের সাহায্য করার কথা বলে এই স্টোনহাউজ বিদেশ থেকে অর্থ নিয়ে একটি তহবিল করেছিলেন। ওই তহবিল তসরুপের অপরাধে পরবর্তীকালে ব্রিটেনেই স্টোনহাউজের বিচার হয়েছিল’ (ইত্তেফাক, ১০ জুলাই)। যাদের বিরুদ্ধে বক্তব্য, তারা এসব অভিযোগ সম্পর্কে কী বলবেন, কী বলবেন না_ সেটি তাদের ব্যাপার। তবে আমি হিসাব মেলাতে পারি না। কারণ সবারই জানা যে, ‘৭২-এর ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে একই প্লেনে কামাল হোসেন দেশে ফেরেন। কামাল হোসেন বঙ্গবন্ধুর ক্যাবিনেটে আইনমন্ত্রী এবং পরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হন। ‘৭২ সালের সংবিধান প্রণয়নে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। ১৯৮১ সালেও রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলামের একাত্তরের ভূমিকা স্বাধীনতা দলিলপত্রসহ বিভিন্ন বইয়ে রয়েছে। তিনি সংবিধান প্রণয়নে ছিলেন। স্বাধীনতা-উত্তর প্রতিমন্ত্রীও ছিলেন। এখনও বার পলিটিক্সে আওয়ামী লীগের সঙ্গে আছেন। আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবীদের প্যানেল থেকে বার কাউন্সিলের সদস্যও নির্বাচিত হয়েছেন।

রাজনীতির রহস্য, সহমত পোষণ করলে কাছে টানেন, আর ভিন্নমত পোষণ করলে রাজাকার বানিয়ে ছাড়েন।

সংসদ সদস্যদের মধ্যে সরকারের অন্য অঙ্গ, প্রতিষ্ঠান বা কোনো নাগরিককে হেয় করার প্রবণতা দেখা যায়। এর পেছনে একটি ধারণা কাজ করে যে, তারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত। অতএব, তারাই সব ক্ষমতার মালিক। একটি কথা আকসারই শুনি, সংসদ সার্বভৌম। ১০ জুলাইয়ের অধিবেশনে একাধিক সংসদ সদস্য সার্বভৌম সংসদের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন। তাই তাদের ধারণা, সংসদে সব বলা যায়, সব করা যায়। আসল সত্য, জনগণ সার্বভৌম, সংসদ নয়। জনপ্রতিনিধি হিসেবে আইনের চৌহদ্দির মধ্যে তাদেরও কাজ করতে হয়। ইচ্ছা করলে খুশিমতো আইন করা যায় না, খুশিমতো গালি দেওয়া যায় না।

একদা গ্রেট ব্রিটেনসহ ইউরোপের রাষ্ট্রগুলো রাজার ক্ষমতা খর্ব করে সংসদের অধিকতর ক্ষমতার জন্য লড়েছিল। রাজা ক্ষমতাহীন হওয়ার পর সংসদ কিন্তু রাজার মতো ক্ষমতাশালী থাকতে চায়নি। সংসদ রাষ্ট্র ব্যবস্থাপনায় ভারসাম্য আনতে রাষ্ট্রের তিনটি অঙ্গের কাছে ক্ষমতা বণ্টন করেছে, একটি সমন্বিত ব্যবস্থা চালু করেছে। তাই সংসদের কাছে যত ক্ষমতা আসবে, তত গণতন্ত্র হবে_ এমন ধারণা ঠিক নয়। রাষ্ট্রের তিনটি অঙ্গের মধ্যে চেক অ্যান্ড ব্যালান্সের ব্যাপারটি গুরুত্বপূর্ণ।

এ ক্ষেত্রে দেশের গণতন্ত্রের পর্যায়ও বিবেচনার বিষয়। আমার মনে হয়, এটি বিবেচনা করেই পঞ্চদশ সংশোধনীতেও সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিলের বিধান পুনর্বহাল করা হয়েছিল। এরপর দেখলাম, আদালতের কিছু রায়ে সংসদ সদস্যরা ক্ষিপ্ত হলেন। নতুন বিধানের দাবি তুললেন। পরিণতিতে নতুন আইন, সংসদের কাছে বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা অর্পিত হলো।

বিচারক নিয়োগ বা অভিশংসনে কোনো অভিন্ন মডেল নেই। এ ক্ষেত্রে নানা রকম বিধান আছে। কোনো দেশে এর এখতিয়ার সংসদের কাছে আছে। আবার সংসদের বাইরেও নিয়োগ ও অভিশংসনের বিধান আছে। আমাদের দেশে বিচারপতি নিয়োগের ক্ষমতা সংসদের কাছে নেই। বর্তমান প্রেক্ষাপটে তা কেউ বিবেচনা করছেন না। একই বিবেচনায় অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের কাছে থাকা যুক্তিযুক্ত মনে করি না।

আদালতের রায়ে ষোড়শ সংশোধনীর মধ্য দিয়ে সংসদের কাছে অভিশংসনের ক্ষমতা সংবলিত বিধান বাতিল হয়েছে। পুরনো আইনটি পুনর্বহাল হয়েছে। এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হতে পারে; তবে আদালতের রায় অগ্রাহ্য করার সুযোগ নেই।

ask_bangla71@yahoo.com

সাংবাদিক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here