পদ্মা সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন

0
253

মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম : বিশ্বব্যাংকের ঋণ নিয়ে যমুনা সেতু নির্মিত হয়েছিল। কিন্তু দেশের নিজস্ব অর্থায়নেই পদ্মা সেতু নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে। নিঃসন্দেহে এটি একটি খুশি হওয়ার মতো খবর। এ নিয়ে সরকার হরদম বড়াই করে চলছে।

পাকিস্তানের যুগে বাঙালির অধিকার নিয়ে কথা বলতে হলে ‘যমুনা নদীর ওপর সেতু নির্মাণ’-এর দাবিকে পাশ কাটিয়ে যাওয়ার কোনো সুযোগ ছিল না। যমুনা সেতু নির্মাণের ইস্যুটি ছিল তত্কালীন পূর্ব পাকিস্তানের অর্থনৈতিক বিকাশের জন্য একটি প্রধান পূর্বশর্ত। যমুনা সেতু নির্মাণে পাকিস্তান সরকারের অনীহাকে পূর্ব বাংলার ওপর শোষণ-বৈষম্যের একটি জলজ্যান্ত দৃষ্টান্ত হিসেবে তুলে ধরা হতো। এভাবে ‘যমুনা সেতু’ একটি প্রধান রাজনৈতিক ইস্যুতে পরিণত হয়েছিল।

স্বাধীনতার পর সেই ‘যমুনা সেতুর’ পরিকল্পনা তৈরির কাজ শুরু হয়েছিল। মাঝে অনেকগুলো বছর এ কাজকে অবহেলায় ফেলে রাখা হয়েছিল। নব্বইয়ের দশকে এসে বিএনপির শাসনামলে ‘যমুনা সেতুর’ কাজে আবার হাত দেয়া হয়েছিল। শেখ হাসিনার পয়লা দফার সরকারের সময় সে কাজ দ্রুত শেষ করে ‘বঙ্গবন্ধু সেতু’ নামে তা উদ্বোধন করা হয়েছিল। এই সেতু নির্মাণের সময়ই পদ্মা নদীতেও দ্রুতই সেতু নির্মাণের প্রসঙ্গটি একটি জনপ্রিয় ইস্যুতে পরিণত হয়েছিল।

সাধারণ মানুষ পদ্মা সেতু নির্মাণের কাজটিকে বিবেচনা করেছে নির্ভেজাল জাতীয় স্বার্থের দৃষ্টি থেকে। কিন্তু দেশি-বিদেশি এক শ্রেণির মানুষ সেটিকে বিবেচনা করেছে নিছক ‘টু-পাইস’ কামাই করার একটি উত্স হিসেবে। পদ্মা সেতুর অর্থায়নের জন্য এসব মহল তাই নিজেদের সামর্থ্যকে কাজে লাগানোর বিষয়টিকে বিবেচনায় নেয়ার আগেই, বিশ্বব্যাংকসহ বিদেশি ‘দাতা সংস্থার’ দ্বারস্থ হওয়ার পথ গ্রহণ করেছিল। এক্ষেত্রে তাদের যুক্তি ছিল প্রধানত দু’টি। প্রথম যুক্তি, আমাদের টাকা নেই এবং দ্বিতীয় যুক্তি, বিশ্বব্যাংক ১/২ শতাংশ সুদে ‘সফট লোন’ দিলে আমাদের দেদার লাভ হবে। বস্তুত দুটোই আসলে একেবারে খোঁড়া যুক্তি।

প্রথম কথা, বিশ্বব্যাংকের সুদের হার ঠিকই এক শতাংশের মতো। কিন্তু এটি হলো তার কাগজে-কলমের দৃশ্যমান সুদ। ঋণচুক্তির বিভিন্ন শর্তের মাধ্যমে সে আরো সব অসংখ্য অদৃশ্য প্রক্রিয়ায় টাকা হাতিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করে থাকে। বিশ্বব্যাংকের ঋণ কঠিন শর্তযুক্ত হয়ে থাকে। তাদের হুকুমকৃত বেতনে, তাদেরই পছন্দের ‘বিশেষজ্ঞ’ নিয়োগ করতে হবে। তাদের নির্ধারিত সংস্থা দ্বারা তদারকি কাজের বিশাল খরচ বহন করতে হবে। তাদের পছন্দের (বড় ধরনের ‘লেনদেনের’ মাধ্যমে এই ‘পছন্দ’ নির্ধারিত হয়, যা কিনা সকলের কাছে অনেকটাই ওপেন-সিক্রেট) কোম্পানিকে কাজ দিতে হবে। লোক দেখানো স্বচ্ছতা প্রদর্শনের জন্য ওপেন টেন্ডার ব্যবস্থার ওপর জোর দিলেও কায়দা করে টেন্ডারে এমন সব শর্ত যুক্ত করে দেয়া হয় যাতে তাদের ‘পছন্দের’ কোম্পানিই অযৌক্তিক সুবিধা পেয়ে ‘স্বাভাবিক’ অগ্রাধিকার পায়। মালপত্র কেনার ক্ষেত্রে—কোন কোম্পানি থেকে কী দামে এবং এমনকি বিদেশ থেকে কোন জাহাজে, কতো মাশুলে পণ্যসামগ্রী পরিবহন করা হবে ইত্যাদি—সবক্ষেত্রেই তাদের অন্যায্য শর্ত মেনে চলতে হয়। এভাবে নানাবিধ কৌশলী ম্যানুপুলেশনের (চাতুর্যপূর্ণ কারসাজির) মাধ্যমে তারা তাদের দেয়া ঋণের টাকার একটি বড় অংশ আগেই হাত করে নেয়। এই বাড়তি খরচ হলো ‘ঋণের অতিরিক্ত মূল্য’। এসবই হলো ‘সুদের অদৃশ্য অংশ’। গবেষকদের হিসাব থেকে জানা যায় সেই অংশটিকে এক-শতাংশের দৃশ্যমান অংশের সঙ্গে যোগ করলে, আসল বাদেই ঋণের খরচ এসে দাঁড়ায় ২৫ শতাংশের কাছাকাছি। বিশ্বব্যাংকের ‘স্বল্প সুদের’ বিষয়টি একটি বিশাল শুভঙ্করের ফাঁকি ও জোচ্চুরিমূলক প্রতারণা ছাড়া অন্য কিছু নয়। এসব ছাড়াও আরো অনেক রকম বেআইনি পন্থার আশ্রয় তারা নিয়ে থাকে। সে কারণেই একসময় বিশ্বব্যাংক এদেশে তাদের নানা অপকর্মের দায় থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য ‘দায়মুক্তি’ আইন প্রণয়নের জন্য প্রচণ্ড তত্পরতা চালিয়েছিল।

একটি ভুল ধারণা প্রচার করা হয়ে থাকে যে বিশ্বব্যাংক হলো একটি মানবহিতৈষী ‘কল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠান’। একথা মোটেও সত্য নয়। বিশ্বব্যাংক সর্বতোভাবে হলো অন্যান্য প্রাইভেট ব্যাংকের মতো একটি মুনাফালোভী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এই ব্যাংকের কাজকর্ম ও পরিচালনার সঙ্গে বিভিন্ন রাষ্ট্র জড়িত থাকলেও এর কর্মপদ্ধতি হলো বহুলাংশে একটি লিমিটেড কোম্পানির মতো। বিশ্বব্যাংক নিয়ন্ত্রিত হয় প্রধানত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও অন্য সাম্রাজ্যবাদী ধনী দেশগুলোর সরকার দ্বারা। মূলধনের বড় অংশীদার হওয়ার দাবিতে সংস্থাটির প্রতিষ্ঠাকাল থেকে এরাই তাকে একচ্ছত্রভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে। আসলে বিশ্বব্যাংক, আইএমএফ, গ্যাট (বর্তমানে যা বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা- ডাব্লিউটিও নাম গ্রহণ করেছে) গঠনই করা হয়েছিল গোটা বিশ্বে সাম্রাজ্যবাদী-নয়া উপনিবেশবাদী স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর বিশ্বব্যাপী সমাজতন্ত্রের প্রভাবের বিস্তৃতি রোধ করতে ও অর্থনৈতিক শিকলে নব্য স্বাধীনতাপ্রাপ্ত দেশগুলোকে বেঁধে রাখতেই ‘ব্রেটন উডস’ নামক স্থানে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এই তিনটি সংস্থা স্থাপনের পদক্ষেপের সূচনা করা হয়েছিল। তখন থেকেই সাম্রাজ্যবাদের বিশ্ব-রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়ন ও বহুজাতিক কোম্পানির অবাধ মুনাফার ক্ষেত্র প্রসারিত করার জন্য বিশ্বব্যাংক কাজ করে যাচ্ছে। বিশ্বব্যাংককে তাই ‘বহুজাতিক কোম্পানিসমূহের আন্তর্জাতিক পরিচালনা বোর্ড’ বলে আখ্যায়িত করলে মোটেও ভুল হয় না।

বিশ্বব্যাংক আমাদের দেশে স্বাধীনতা-পরবর্তী প্রথম কয়েকটি বছর তেমন সুবিধা করতে পারেনি। মুক্তিযুদ্ধের ফলশ্রুতিতে নব্য স্বাধীনতাপ্রাপ্ত আমাদের দেশটি তখন অনেকটা পরিমাণে আত্মমর্যাদাবোধ ও জাতীয় স্বার্থতাড়িত নীতির ধারায় পরিচালিত হচ্ছিল। কিন্তু নানাভাবে সে নীতি ক্রমেই দুর্বল হতে থাকে। পঁচাত্তরের রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের মধ্য দিয়ে একেবারে উল্টো পথে দেশের যাত্রা শুরু হয়ে যায়। পুঁজিবাদী-সাম্রাজ্যবাদী বিশ্বায়ন, নয়া উদারবাদী অর্থনৈতিক দর্শন, বাজার-মৌলবাদ, বিনিয়ন্ত্রণ, বিরাষ্ট্রীয়করণ, ব্যক্তিখাতের একচ্ছত্র প্রাধান্য ইত্যাদি নীতি দেশের ওপর চেপে বসে। বিশ্বব্যাংক ছিল এসব উল্টো নীতি প্রবর্তনের প্রধান উদ্যোক্তা। মুত্সুদ্দি ও উচ্ছিষ্টভোগী লোভী লুটেরা শক্তি ও ব্যক্তিদের সযত্নে লালন করে দেশে একটি প্রভাবশালী ‘বিশ্বব্যাংক লবি’ তৈরি করা হয়।

বিশ্বব্যাংকের পরামর্শ মেনে চলার কারণে দেশের অনেক সর্বনাশ হয়েছে এবং এখনো হয়ে চলেছে। বিশ্বব্যাংকের কারণেই ফ্লাড অ্যাকশন প্রোগ্রাম বা ফ্যাপ দেশের বন্যা পরিস্থিতির ক্ষেত্রে সর্বনাশ ডেকে এনেছে, আদমজি মিলসহ পাট শিল্প ধ্বংস হয়েছে, রেলওয়ে ধ্বংস হয়েছে, বিএডিসি-টিসিবি প্রভৃতি প্রতিষ্ঠান প্রায় উঠিয়ে দিয়ে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণহীন করে ফেলা হয়েছে, চট্টগ্রাম স্টিল মিল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে, ঢাকার উন্মুক্ত খালগুলো ঢেকে দিয়ে বক্স-কালভার্ট তৈরি করে জলাবদ্ধতার সমস্যা বাড়ানো হয়েছে ইত্যাদি। সর্বশেষ, পদ্মা সেতু অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে কাজ শুরু করে দেয়ার পরে, দুর্নীতির অপ্রমাণিত-অভিযোগ তুলে, সেই প্রতিশ্রুতি পালন থেকে সরে গেছে। এর দ্বারা পদ্মা সেতু নির্মাণের খরচ বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। দেশের কয়েক লাখ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। এ ধরনের দৃষ্টান্তের শেষ নেই। বহু গবেষক ও বিশ্লেষক একথা প্রমাণ করেছেন যে, দুনিয়ার কোথাও বিশ্বব্যাংকের কোনো ‘সাফল্যের কাহিনী’ নেই। তথাপি তাকে যারা ‘দেবতার’ আসনে রেখে পূজা করে থাকেন তারা জ্ঞানপাপী নাকি, তা তারা করছে স্রেফ ‘টু-পাইস’ কামানোর জন্য, সে কথা কে বলতে পারে!

পদ্মা সেতুর অর্থায়ন নিয়ে বিতর্কটি মৌলিক একটি নীতি-আদর্শগত বিষয়কে সামনে নিয়ে এসেছে। বিষয়টি হলো, এ ধরনের প্রকল্পের অর্থায়নের ক্ষেত্রে আমাদের প্রথম চেষ্টা কী হওয়া উচিত? বিশ্বব্যাংক লবির পণ্ডিতবৃন্দ ও অনুগত মহল বলছে, তা হওয়া উচিত, ‘বিশ্বব্যাংকের ঋণপ্রাপ্তি’। বামপন্থি, প্রগতিবাদী ও দেশপ্রেমিক চিন্তার মানুষ ও শক্তিসমূহ বলছে, তা হওয়া উচিত, ‘নিজস্ব অর্থায়নে’। প্রথমোক্ত ধারার চিন্তায় অর্থায়নের উেসর অগ্রাধিকারক্রম হওয়া উচিত হলো— ক) বিশ্বব্যাংক খ) তা না হলে অন্য কোনো ধনী দেশ গ) এসব যদি একেবারেই অপ্রাপ্য হয় তাহলে নিজস্ব অর্থায়ন। দ্বিতীয় ধারার চিন্তা অনুসারে পদ্মা সেতুর জন্য অর্থায়নের অগ্রাধিকারক্রম হওয়া উচিত হলো— ১) নিজস্ব অর্থায়নে তা নির্মাণ করা ২) নিজস্ব অর্থায়নে না কুলালে অবশিষ্ট অর্থায়নের জন্য শর্তহীন ঋণের ব্যবস্থা করা ৩) তাতেও পূর্ণ প্রয়োজন না মিটলে বিশ্বব্যাংক বা অন্য দেশ বা সংস্থা থেকে সবচেয়ে সুবিধাজনক শর্তে ঋণ গ্রহণ করা।

বিশ্বব্যাংক লবির যুক্তি হলো, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা প্রায় অসম্ভব। তেমনটি করা হলে দেশের অর্থনীতিতে ও জনগণের জীবনে বিরাট সমস্যা-সংকট নেমে আসবে। খরচ বেশি হবে। কিন্তু বিশ্বব্যাংক থেকে ঋণ পাওয়া যাবে নামমাত্র সুদে। তাই, এ ধরনের সস্তার দান-খয়রাত পাওয়ার চেষ্টাই প্রথমে করা উচিত। তাছাড়া, বিশ্বব্যাংককে সম্পৃক্ত না করতে পারলে বিশ্বের অন্যান্য ঋণদাতা ও বিশেষজ্ঞ নির্মাণ সংস্থাকে এই প্রকল্পে সংযুক্ত করা যাবে না।

আগেই দেখানো হয়েছে যে, বিশ্বব্যাংকের কথিত সুদের হার হলো গৃহীত ঋণের জন্য দেয়া ‘দৃশ্যমান’ ব্যয়। কিন্তু ঋণচুক্তির বিভিন্ন শর্তের কারণে যে বাড়তি অর্থ ব্যয় করতে পরোক্ষভাবে বাধ্য করা হয়, সেগুলো সবই হলো ঋণের অতিরিক্ত ‘অদৃশ্য’ খরচ। দৃশ্যমান ও অদৃশ্য—উভয় ধরনের খরচ যোগ করলে বিশ্বব্যাংকের প্রকৃত সুদের হার এসে দাঁড়ায় প্রকৃতভাবে দুই অংকের কোঠায়। এদিকে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণে সক্ষমতার ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত সীমাবদ্ধতার যে প্রশ্ন তোলা হয়, সেটিও যথার্থ নয়। বর্তমান বিশ্ব ব্যবস্থায় টাকা দিয়ে প্রযুক্তি জোগাড় করা অসাধ্য হওয়ার কথা নয়। বরঞ্চ এটিকেই নয়া-উদারবাদী বাজার অর্থনীতির বড় সুবিধা বলে দাবি করা হয়। বিদেশি কোম্পানিকে কন্ট্রাকটর হিসেবে নিয়োগ দিলে প্রযুক্তি ও বিশেষজ্ঞ নিশ্চিতভাবে পাওয়ার কথা। তথাপি যারা বলেন যে, শুরুতেই আগ বাড়িয়ে ‘কাছা খুলে’ হলেও বিশ্বব্যাংকের ঋণের জন্য চেষ্টা করা উচিত, তাদের বেশির ভাগই যে তা বলে থাকেন কমিশন খাওয়ার লোভে, তা ধারণা করা মোটেও যুক্তিহীন নয়। প্রথম ধারার চিন্তার সঙ্গে তাই একমত হওয়ার কোনোরকম সুযোগ নেই।

মুক্তিযুদ্ধের পর প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু ও অর্থমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ স্বাধীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় নীতি সম্পর্কে বলিষ্ঠতার সঙ্গে ঘোষণা করেছিলেন যে, ‘ঘাস খেয়ে থাকবো, তবু বিশ্বব্যাংকের শর্তযুক্ত ঋণ নেব না’। সেরূপ মর্যাদাপূর্ণ প্রগতিবাদী সুদৃঢ় অবস্থান থেকে দেশকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। একথা ঠিক যে, বিশ্ব দরবার থেকে বিচ্ছিন্ন কূপমণ্ডুক হওয়াটি যথাযথ হবে না। কিন্তু একথাও মনে রাখতে হবে যে, আত্মনির্ভরশীলতা ও আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসাবে মাথা তুলে দাঁড়ানোর জন্যই আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা করেছিলাম। ৩০ লাখ মানুষ শহীদ হয়েছিল। বিশ্বব্যাংকের বা আমেরিকাসহ অন্য কোনো বিদেশি শক্তির দাসত্ব করার জন্য দেশবাসী মুক্তিযুদ্ধ করেনি। এসব কথা যদি সঠিক হয় তাহলে দ্বিতীয় ধারার চিন্তার সঙ্গে একমত হওয়া ছাড়া উপায় নেই। এসব অকাট্য যুক্তির মুখে পড়ে শেষ ভরসা হিসেবে প্রশ্ন তোলা হয় যে, এতো টাকা আমরা পাবো কোথায়? সহজ হিসাব থেকে দেখা যায় যে— মাগুরছড়া ও টেংরাটিলা গ্যাস ক্ষেত্রে দুর্ঘটনার জন্য যে ক্ষতিপূরণ আমাদের প্রাপ্য তা দিয়ে দুটি পদ্মা সেতু, চোরের রাজা হলমার্কের মালিকের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করলে অনুরূপ আরো দুটি সেতু, অর্থমন্ত্রীর অনুমান মতো দেশে যতো কালো টাকা আছে তার সবটা উদ্ধার করলে তা দিয়ে পদ্মা সেতুর মতো ৩০টি সেতু নির্মাণ করা যায়। টাকার অভাব তাহলে কোথায়? বলা হয়েছিল যে টাকা যথেষ্ট থাকলেও বৈদেশিক মুদ্রা যথেষ্ট নেই। এ বক্তব্যও সঠিক নয়। বৈদেশিক মুদ্রার ভালো মজুদ আমাদের আছে। রেমিটেন্স হিসেবে যে অর্থ আমরা সঞ্চয় করি, হুন্ডি ব্যবসা বন্ধ করতে পারলে তা কয়েক গুণ পরিমাণে বৃদ্ধি করা সম্ভব। প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাঝে উদ্দীপনা সৃষ্টির মাধ্যমেও প্রচুর বৈদেশিক বিনিয়োগ সংগ্রহ করা সম্ভব। সুতরাং প্রশ্নটি সম্ভব-অসম্ভবের নয়, প্রশ্নটি হলো কোন্ নীতি-আদর্শের পথ ধরে দেশ চলবে সেটি।

বিশ্বব্যাংকের অনুগ্রহ অর্জনে অসমর্থ হওয়ায় বাধ্য হয়ে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হলো এক কথা। আর শুরু থেকেই নিজের আর্থিক সামর্থ্যে পদ্মা সেতু নির্মাণের নীতিগত পথ অনুসরণ করা হলো ভিন্ন কথা। প্রথমটি হলো ‘ঘটনাক্রমে বাধ্য হয়ে’ (out of circumstantial-compulsion) স্ব-অর্থায়নের পদক্ষেপ গ্রহণ করা। আর দ্বিতীয়টি হলো ‘নীতিগত বিশ্বস্ততা থেকে’ (out of policy-conviction) আত্মমর্যাদা ও স্বনির্ভরতার পথ ধরে চলা। এ পার্থক্য সামান্য নয়। এটি অনেকটাই ‘ঘটনাক্রমে’ মুক্তিযুদ্ধে শরিক হওয়া ও ‘আদর্শিক’ অবস্থান থেকে মুক্তিযোদ্ধা হওয়ার মধ্যকার পার্থক্যের মতো বিষয়।

পদ্মা সেতু নির্মাণের অর্থায়ন নিয়ে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ঘটনাবলি থেকে একটি বড় শিক্ষা হলো, দেশ পরিচালনার চলমান নীতি-দর্শনের ক্ষেত্রে আমূল পরিবর্তন ঘটাতে হবে। স্বনির্ভরতার নতুন পথ (যা আসলে মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে সূচিত মুজিব-তাজউদ্দিনের পথ) গ্রহণ করতে হবে। মহাজোট সরকার সেই পথে চলার যোগ্যতা ও চরিত্র ধারণ করে কি? সেজন্য জনগণের বিপ্লবী জাগরণ সৃষ্টি করা আওয়ামী লীগের পক্ষে সম্ভব কি? (বিএনপি যে তা করবে না এবং করতে পারবে না, সেকথা বলার অপেক্ষা রাখে না)। আওয়ামী লীগ-বিএনপি-জাতীয় পার্টি-জামায়াত ইত্যাদি দলগুলো ধনিক শ্রেণি ও বিশ্বব্যাংকসহ সাম্রাজ্যবাদের ওপর নির্ভরতার বেড়াজাল ভেঙে বের হয়ে আসার মতো পদক্ষেপ নিতে পারবে কি? পারবে না! কারণ, কোনো নেত্রী বা নেতা তার দলের ঊর্ধ্বে নয়, এবং কোনো দল তার শ্রেণি-চরিত্রের ঊর্ধ্বে নয়। কেবলমাত্র বাম-গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক শক্তির নেতৃত্বেই সেরূপ জাগরণ ও বিপ্লবী দিক-পরিবর্তন সাধন করা সম্ভব হতে পারে।

লেখক : সভাপতি, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here