পরমাণু অস্ত্র কার হাতে?

0
420
অস্ত্র সেভাবেই তার কাজ করবে, যেভাবে তার মালিক চাইবে। কাজেই বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে, মারাত্মক সেই অস্ত্রটি কার হাতে আছে। সারা পৃথিবীর মাথা ব্যথার একটি বিশেষ কারণ পরমাণু অস্ত্র। এই মাথা ব্যথা সবসময়ই ছিল। তবে এর গুরুত্ব বেড়ে গিয়েছে যখন প্রমাণিত হয়েছে কোনো কোনো পরমাণু অস্ত্রের অধিকারী হয়েছে কোনো কোনো দায়িত্বহীন রাষ্ট্র। আর্মস কন্ট্রোল অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য মতে, পৃথিবীতে মোট ১৫ হাজার পরমাণু অস্ত্র রয়েছে যার বেশিরভাগই রাশিয়া আর যুক্তরাষ্ট্রের দখলে। কিন্তু বিপজ্জনক খবরটি হলো, মোট ১০ হাজারেরও কম পরমাণু অস্ত্র রয়েছে মিলিটারি সার্ভিসের হাতে। রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ফ্রান্স এবং যুক্তরাজ্য এই পাঁচটি দেশের কাছে পারমাণবিক অস্ত্র থাকার বিষয়টি স্বীকৃত। স্টকহোম আন্তর্জাতিক শান্তি গবেষণা ইনস্টিটিউটের তথ্য অনুসারে রাশিয়ার কাছে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি অস্ত্র রয়েছে। দেশটিতে পরমাণু অস্ত্রের সংখ্যা ৭ হাজার। দ্বিতীয় স্থানে থাকা যুক্তরাষ্ট্রের কাছে রয়েছে ৬ হাজার ৮০০টি পারমাণবিক বোমা। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ফ্রান্সের কাছে আছে ৩০০ পারমাণবিক অস্ত্র। চতুর্থ স্থানে আছে চীন। তাদের কাছে আছে ২৭০টি পারমাণবিক বোমা। পঞ্চম স্থানে অবস্থিত যুক্তরাজ্যের হাতে আছে ২১৫টি পারমাণবিক বোমা। এই পাঁচটি প্রধান দেশের বাইরেও আরো কিছু দেশে পারমাণবিক অস্ত্রের ভাণ্ডার আছে। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আণবিক অস্ত্রের ভাণ্ডার আছে পাকিস্তানে। ১৩০ থেকে ১৪০টি পারমাণবিক বোমা আছে পাকিস্তানের হাতে। ভারতের হাতে আছে ১২০ থেকে ১৩০টি। ইসরাইলের কাছে আছে ৮০টির মতো পারমাণবিক ওয়ারহেড। উত্তর কোরিয়ার কাছে আছে ১০ থেকে ২০টির মতো পারমাণবিক বোমা।
একটি গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে, যুক্তরাষ্ট্রের কাছে থাকা সবচেয়ে বড় পারমাণবিক বোমা বি-৮৩ কোনো জায়গায় আঘাত হানলে প্রথম ২৪ ঘণ্টাতেই ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষের মৃত্যু হবে। এর বাইরে ৩ কোটি ৭০ লাখ মানুষ তেজস্ক্রিয় বিকিরণের কারণে আহত হবে। রাশিয়ার ‘টিসা’ নামের বোমা যদি নিউইয়র্ক শহরে আঘাত করে তাহলে ৭ কোটি ৭০ লাখ মানুষের প্রাণহানি ঘটার সম্ভাবনা থাকবে; আহত হবে আরো ৪ কোটি ২০ লাখ মানুষ।
আশঙ্কার কথা, সমপ্রতি পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তিতে জাতিসংঘের দুই-তৃতীয়াংশ দেশ সম্মতি জানালেও এ চুক্তি বয়কট করেছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং ফ্রান্সসহ অন্য কিছু দেশ। ভোটে অংশগ্রহণ থেকে বিরত ছিল পারমাণবিক অস্ত্রসমৃদ্ধ ৯টি দেশ। বেশ কিছুদিন ধরে পরমাণু অস্ত্র ইস্যুতে সারা বিশ্বের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে উত্তর কোরিয়া। গত জুলাই মাসেও দুটি আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া। গত ডিসেম্বরে পরমাণু অস্ত্র ইস্যুতে বেশ উত্তেজনাকর বক্তব্য দিয়েছিলেন পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি পরমাণু অস্ত্রসমৃদ্ধ দেশ রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। নিজ দেশের প্রতিরক্ষা প্রধানদের সঙ্গে এক বৈঠকে পুতিন বলেছিলেন, ‘পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার বাড়ানোই ২০১৭ সালের প্রধান লক্ষ্য হিসেবে আবির্ভূত হবে।’ বিশ্ববাসী পারমাণবিক অস্ত্রের ভয়াবহতা নিয়ে ভাবতে বাধ্য হচ্ছে বারবার। কারণ, যে পরিমাণ অস্ত্রভাণ্ডার পৃথিবীতে মজুদ আছে, তা দিয়ে পুরো পৃথিবীকে বেশ কয়েকবার ধ্বংস করা সম্ভব।
দায়িত্বহীন বখাটে যুবকের হাতের অস্ত্র যেমন পাড়াপ্রতিবেশীর রাতের ঘুম হারাম করে দেয়, ঠিক তেমন করেই যদি পারমাণবিক বোমাসমৃদ্ধ কোনো দেশ পাশে থাকা রাষ্ট্রগুলোর হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়ায়? যদি তারও চেয়ে বেশি কিছু হয়? যদি তৃতীয় কোনো দায়িত্বহীন দেশের হাতে থাকে পারমাণবিক অস্ত্র? বিশ্ব কি বাঁচবে যদি দামামা বাজানো কোনো খারাপ হাতে পড়ে যায় বড় বড় পারমাণবিক অস্ত্রের মজুত? বেশ কিছুদিন ধরেই পরমাণু অস্ত্রের ইস্যুতে সারা বিশ্বের দৃষ্টি পড়েছে উত্তর কোরিয়ার দিকে। উত্তর কোরিয়া নিয়ে মাঠ বেশি করে গরম করেছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের নতুন যুক্তরাষ্ট্র। হুমকির পর হুমকি, হুমকির পরিবর্তে হুমকি— এমনটাই উত্তর কোরিয়া আর ট্রাম্পের বর্তমান অবস্থান। পাকিস্তান নিয়েও ভাবনার মাত্রা বেড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের। যুক্তরাষ্ট্র ইচ্ছে করলেই একের পর এক পারমাণবিক বোমা ছুঁড়ে দিতে পারে মধ্যপ্রাচ্যের দিকে, রাশিয়ার দিকে, উত্তর কোরিয়ার দিকে। তার উত্তরে উত্তর কোরিয়া, রাশিয়াও চুপ করে বসে থাকবে না।  পারমাণবিক অস্ত্রের উত্তর তারা পারমাণবিক অস্ত্রের ভাষাতেই দেবে এটা একেবারেই নিশ্চিত। কিন্তু হুমকির ভাষা পৃথিবীতে থাকলেও বিশ্বের মানুষের এক ধরনের ভরসাও হয়ত আছে। সেটি হলো, পারমাণবিক অস্ত্রধারী পরাশক্তিগুলো  কোটি কোটি মানুষকে ধ্বংসের পথে ঠেলে দেবে না। কিন্তু উত্তর কোরিয়া, পাকিস্তান, ইসরাইল— এদের কাছ থেকে ভরসা পাওয়ার মতো যথেষ্ট যুক্তি কি বিশ্ব খুঁজে পেয়েছে আজ অবধি? যদি কেউ ভুল করে বসে? লোভের আশায়, আস্ফাালন চরিতার্থ করার আশায় যদি কোনো অর্বাচীন রাষ্ট্রনায়ক ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে বসে?  ভাবতেও কাঁটা দিয়ে ওঠে শরীরে। বিশ্বগ্রামে কে হবে তেমন ভরসার পুলিশ? জাতিসংঘ তো ‘ঢাল নেই তলোয়ার নেই, নিধিরাম সরদার’। যুক্তরাষ্ট্র কি কিছু করতে পারবে? রাশিয়া কি কিছু করতে পারবে? তেমন করে ভাবার কোনো সুযোগ পাচ্ছি না। কারণ পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তিতে সই করা তো দূরে থাক, বয়কট করে বেরিয়ে গিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে ভরসা কোথায়? মানুষকে পারমাণবিক অস্ত্রের ভয়াবহ পরিণতি কিংবা হুমকি থেকে বাঁচাবার পথটি তাহলে কোথায়? যুক্তরাষ্ট্রের ওপর বড় ধরনের একটি ভরসা ছিল বিশ্ববাসীর সবসময়। ট্রাম্পের মতো মাথাগরম একজন প্রেসিডেন্ট বেছে নেবার পর বিশ্ববাসী যেন সেখানেও আর আগের মতো ভরসা পাচ্ছে না।
বাংলাদেশের একটি গ্রাম নষ্ট হলে এবং গ্রাম নিরাপত্তা হারালে তার সমাধানে কোনো না কোনো পথে আশার আলো হয়ত আসতে পারে। কিন্তু বিশ্বগ্রাম যদি নিরাপদ না থাকে, তবে তার রক্ষায় আলো আসবে কোন পথে? মানুষ খুনের রক্তনেশা রাষ্ট্রের ছোড়া দায়িত্বহীন দানব পারমাণবিক বোমার গতিকে চাবুক মেরে ফিরিয়ে দেবে কোন শক্তি? পৃথিবী আর পৃথিবীর মানুষ চিন্তামুক্ত দিনযাপনে দাঁড়াবে কার দুয়ারে? ট্রাম্পের  যুক্তরাষ্ট্র ভালো করে ভেবে দেখবে কি আর একবার? ভেবে দেখবে কি পুতিনের রাশিয়া? জাতিসংঘ কি নতুন করে এই মহাসংকটের সমাধানে আরো একটু এগিয়ে আসবে? জাতিসংঘ কি ঢাল হাতে পাবে কোনো একদিন? পরমাণু অস্ত্রসমৃদ্ধ অবুঝ কোনো রাষ্ট্রনায়ক ভুল করে বসার আগেই পৃথিবীর সকল মানুষের ভরসা হিসেবে একদিন যার জন্ম হয়েছিল সেই জাতিসংঘ কি এবার সোজা হয়ে ঘুরে দাঁড়াবে পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ প্রশ্নে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here