পাইকগাছায় ফসিয়ার রহমান মহিলা কলেজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দূর্নীতি অনিয়মের অভিযোগ প্রমানিত

0
56

বেতন ভাতা কেন স্থগিত নয় শিক্ষা অধিদপ্তরের কারণ দর্শানো নোটিশ
পাইকগাছা প্রতিনিধি : পাইকগাছা ফসিয়ার রহমান মহিলা কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দূর্নীতি ও অর্থ আত্মসাৎসহ ১৫টি অভিযোগের ৫টির প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। জনবল কাঠামো-২০১৮ মোতাবেক কেন বেতন ভাতা স্থগিত করা হবে না ৭ কর্মদিবসের কারণ দর্শাতে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।
একই কলেজের সহকারি অধ্যাপক ও শিক্ষক প্রতিনিধি সেখ রুহুল কুদ্দুস ও সহকারী অধ্যাপক শুধাংশু কুমার মন্ডল কলেজটির অধ্যক্ষ মোঃ রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দূর্ণীতি ও অর্থ আত্মসাতসহ ১৫টি অভিযোগ করেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর, ঢাকা নির্দেশনা মোতাবেক খুলনা অঞ্চলের পরিচালক প্রফেসর শেখ হারুনর রশিদ এবং উপ-পরিচালক (কলেজ) এস,কে মোস্তাফিজুর রহমান বিষয়টি তদন্ত করেন। ১৫ এপ্রিল ৩৭.০২.৪৭০০.০০০.০১.০০১.০১.১৭.২৮৬ নং স্মারকের পত্রের আলোকে তদন্ত সম্পন্ন করেন। এ সময় প্রয়োজনীয় প্রমানসহ অভিযোগকারীগণ উপস্থিত হয়ে ১৫টি অভিযোগের সত্য-মিথ্যা যাচাই বাছাই হয়েছে। গত ২৩ জুলাই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ৩৭.০২.০০০০.১০৫.৩১.১১৩.১৯/২৯০৯/৬ নং স্মারকে সহকারী পরিচালক, (কলেজ-৩) এর ফারহানা আক্তার স্বাক্ষরিত একটি কারণ দর্শানোর পত্র দেন। যাতে অধ্যক্ষ রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে ১৫টি অভিযোগের মধ্যে ৫টির প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া যায় বলে তদন্তÍ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। বৃত্তি প্রদানের অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতি, অনুদান দেখিয়ে দাতা সদস্য করা, নিয়মিত হাজিরা খাতায় অধ্যক্ষের স্বাক্ষর না থাকা, প্রতিষ্ঠানে বই ক্রয়ে অনিয়ম, জিপিএ ৫ পাওয়া ছাত্রীর অনুদান ও পোষাক বাবদ অর্থ না দেয়ার অভিযোগ অন্যতম। দীর্ঘদিন ধরে নিজ হস্তে রাখা আর্থিক বিধির পরিপন্থিসহ বিভিন্ন অভিযোগ আমলে নিয়ে অধ্যক্ষকে তার কারন দর্শাতে বলা হয়েছে। জনবল কাঠামো-২০১৮ এ ১৮.১ (খ) ধারা মোতাবেক কেন তার বেতন ভাতা স্থগিত করা হবে না পত্র প্রাপ্তির ৭ কর্মদিবসের মধ্যে তার জবাব দিতে বলা হয়েছে। এ ব্যাপারে অধ্যক্ষ রবিউল ইসলামের কাছে ০১৭১১-২৪৮২৩৭ নং মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি ব্যস্ত আছেন বলে ফোনটি কেটে দেন। পরে বার বার যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোনটি রিসিভ করেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here