পাটকেলঘাটার অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার : অযত্ন আর অবহেলায় পড়ে আছে বাকিগুলো !

0
287

মো. রিপন হোসাইন : মহান আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস পালন ও শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো জন্য পাটকেলঘাটায় অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার । সরকারী ভাবে একুশের ফেব্রুয়ারী উৎযাপনের কথা থাকলেও বহু প্রতিষ্ঠানে জাতীর শ্রেষ্ঠ্র সন্তাদের শ্রদ্ধা জানাতে পারে না শিক্ষার্থীসহ শিক্ষক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা । ১৯৯৯ সারে শহীদ দিবস ইউনেস্কা কৃর্তক আন্তাজর্তিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার পর থেকে প্রতি বছর সারা বিশ্বের দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। ১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারিতে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বাংলার দামাল ছেলেরা সেদিন বুকের রক্ত রাজপথে ঢেলে দিয়েছিল তাজ প্রাণ। সেই থেকে ২১ শে ফেব্রুয়ারি আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। এই দিনটি আজ শুধুমাত্র বাংলাদেশেই সীমাবদ্ধ রেখে পালিত হয়না। আমাদের মতো সারা দেশেও দিনটি গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করে পালিত হয়ে থাকে ।
আজো ইতিহাসের পাতায় রাজস্বাক্ষী সেই বাংলার অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে নেই শহীদ মিনার। ৫৪ বছর দীর্ঘ অতিক্রম করা হলেও আজও তা নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে থেকে শুরু করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে যদি শহীদ মিনার নির্মাণ থাকতো তবে কোমলমতি শিশুমনে নিঃসন্দেহে আঁচ কাটত। ভোরবেলা খালিপায়ে একগুচ্ছ ফুল নিয়ে তারাও শহীদ বেদীতে ফুল দিতো। অথচ দুভার্গ্যজনক হলেও সত্য এতটা বছর পেরিয়ে গেলেও আজও নির্মিত হয়নি শহীদ মিনার। এই শ্রেষ্ট্র সন্তাদের প্রতি যে ঋণ কখনও শোধ হবার নয়, নয় ভূলে যাওয়ার। এদিকে পাটকেলঘাটা সহ তালা উপজেলাতে যে শহীদ মিনার গুলো নির্মিত আছে সেগুলো রয়েছে অযতœ আর অবহেলায়। হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয় করে অযথা স্তুপ অকেজো ভবন নির্মাণ করা গেলেও শহীদ মিনারগুলো যেন একেবারে অবহেলার পাত্রে পরিণত। বছরে মাত্র ঐ একটি দিনে বিশেষভাবে স্মরণ করা হয় তবে হয়তো। কিন্তু ভাবুক বিষয় একটি দিনে জোরালোভাবে পালন করলেও বাকি ৩৬৪ টি দিন বাংলার দামাল ছেলেদের স্মরণ করে বুকে লালন করা হয়। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পাটকেলঘাটার কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে শহীদ মিনারগুলোর করুণ চিত্র চোখে পড়ে। ঐতিহ্যবাহী পাটকেলঘাটার ফুটবল ময়দানে অবস্থিত শহীদ বেদীর উপর ছেলেরা উঠে খেলা করছে। জুতো পায়ে দিয়ে বসে আছে স্তম্ভের উপর। এচিত্র নাকি সারাবছর বলে বাচ্চারা জানান। অথচ তাদের পিতামাতারা পাশেই এ দৃশ্যের অবলোকন করছেন। শুধু তাই নয়, প্রতিনিয়ত রাতে বিভিন্ন আসর জমে বলে জানা গেল। অথচ সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া রয়েছে এবং তা যথাযথভাবে পালনের জন্য জানানো হয়। আগামী আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবসের পুর্বে তা যথাযথভাবে শহীদ মিনার নির্মাণ পূর্বক দিবসটি পালিত হয় তার নির্দেশনা প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি দাবি জানিয়েছেন পাটকেলঘাটার সচেতন মহল ও ভাসা প্রমিকরার্ ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here