পাড়ি দিতে হইবে আরো অনেক পথ

0
336

বর্তমান বিশ্বে ইন্টারনেট হইতে বঞ্চিত মানুষের সংখ্যা ৪০০ কোটি। ইহার মধ্যে বাংলাদেশে ইন্টারনেট হইতে বঞ্চিত রহিয়াছে ১৪ কোটি মানুষ। পত্রিকান্তরে প্রকাশিত ইন্টারনেট ব্যবহার লইয়া ‘ইনক্লুসিভ ইন্টারনেট ইনডেক্স: ব্রিজিং ডিজিটাল ডিভাইস’ শীর্ষক এক গবেষণায় জানা যায়, ইন্টারনেট হইতে বঞ্চিত একক দেশ হিসাবে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে পঞ্চম। জনসংখ্যার হিসাবে পিছাইয়া থাকিলেও সার্বিকভাবে ইন্টারনেট ব্যবহারে ৭৫টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৪৬তম। যদিও বাংলাদেশের সরকারি হিসাবে, এই দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বর্তমানে ৬ কোটি ৭০ লক্ষ, যাহা দেশের মোট জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ। আর উপরিউক্ত গবেষণার হিসাব বিবেচনায় ধরিলে বাংলাদেশের ১৬ কোটি জনসংখ্যার মধ্যে মাত্র ১৩ শতাংশ ইন্টারনেট ব্যবহার করিয়া থাকে।

ইন্টারনেট ব্যবহারে উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে বড় ধরনের তারতম্যচিত্র উঠিয়া আসিয়াছে বিভিন্ন গবেষণা প্রতিবেদনে। দেখা গিয়াছে, যেসব দেশে ডিজিটাল অবকাঠামো যত উন্নত, সেই দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারও তত বেশি। ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ স্লোগানে এই দেশে ডিজিটাল অবকাঠামো নূতন মাত্রায় গড়িয়া উঠিতে শুরু করে ২০০৯ সাল হইতে। দীর্ঘ আট বত্সরে এই অবকাঠামো উন্নয়নে সাফল্য একেবারে কম নহে। ডিজিটাল বাংলাদেশের লক্ষ্য হইল—স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতামূলক সরকার, দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন, দ্রুত সেবা, কম খরচ, টেকসই অর্থনীতি ইত্যাদি। এই লক্ষ্যে সরকার কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন ডিজিটাল পদক্ষেপও রহিয়াছে অসংখ্য। ই-গভর্নমেন্ট তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থানও খুব খারাপ নহে। যুক্তরাষ্ট্রের ব্রাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বার্ষিক রিপোর্টে বলা হইয়াছে, এশিয়ার দেশসমূহে ই-গভর্নমেন্ট কার্যক্রম দ্রুত প্রসার লাভ করিতেছে। বিশ্বের ১৯৮ দেশের ই-গভর্নমেন্ট কার্যক্রমের বিভিন্ন দিক পর্যালোচনার রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশ রহিয়াছে ৮৬ নম্বর অবস্থানে। পূর্বে বাংলাদেশ ছিল ১১৫ নম্বরে। সুতরাং অগ্রগতি হইতেছে নিঃসন্দেহে। তবে তাহা যতখানি হওয়া উচিত ছিল ততখানি হয় নাই। ইতিপূর্বে জাতিসংঘের বিশেষায়িত সংস্থা আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নের (আইটিইউ)-এর ‘তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) উন্নয়ন সূচক ২০১৬’ শীর্ষক প্রকাশিত প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, ইন্টারনেট ব্যবহারে এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে প্রায় সবার নীচের অবস্থান বাংলাদেশের। আর দক্ষিণ এশিয়ায় শুধু আফগানিস্তানের আগে রহিয়াছে বাংলাদেশ। কেবল তাহাই নহে, আইটিইউ-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ১৬৭টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৪তম।

এই বৈষম্য হ্রাস করিতে কী কী করণীয়—সেই ব্যাপারে বর্তমান সরকার সজাগ রহিয়াছে বটে। তাহার পরও অগ্রগতির শ্লথগতি কী কী ঘটিতেছে—তাহা শনাক্ত করিয়া প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করিতে হইবে। ইন্টারনেটের গতিবৃদ্ধি, কম দামে ইন্টারনেট প্রাপ্তি, বাংলা ভাষায় বিভিন্ন ই-সেবার ব্যবহার ইত্যাদি কার্যক্রম আরো ব্যাপক পরিসরে বৃদ্ধি করিতে হইবে। ইন্টারনেট ব্যবহার করিয়া জনগণ যাহাতে তাহার প্রাত্যহিক জীবনের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সেবা সহজেই গ্রহণ করিতে পারে, এমন উদ্যোগ বেশি করিয়া লইতে হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here