প্রতিযোগিতাপূর্ণ বিশ্বে মে দিবসের ভাবনা

0
272

আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস, যাহা সাধারণত মে দিবস নামে অভিহিত, প্রতি বত্সর ১লা মে তারিখে বিশ্বব্যাপী উদযাপিত হইয়া থাকে। ইহা আন্তর্জাতিক শ্রমিক আন্দোলন উদযাপনের দিবস। অতীতে শ্রমিকদের জন্য কোনো নির্ধারিত শ্রমঘণ্টা ছিল না। দিনে ১০-১২ ঘণ্টা করিয়া কারখানায় কাটাইতে হইত। ১৮৮৬ সালের এই দিনে আমেরিকার শিকাগো শহরের শ্রমিকেরা ৮ ঘণ্টা শ্রম দিবস করিবার দাবিতে ধর্মঘট শুরু করে এবং হে মার্কেটে সমবেত হইতে থাকে। তাহাদেরকে ঘিরিয়া থাকা পুলিশের গুলিবর্ষণে ১০-১২ জন শ্রমিক নিহত হয়। তাহাদের দাবি পূরণ হইয়াছিল, ৮ ঘণ্টা শ্রম দিবসের অধিকার তাহারা পাইয়াছে। তাহাদের সুমহান আত্মত্যাগ ও রক্তের বিনিময়ে স্বীকৃতি পাইয়াছে শ্রমের মর্যাদা। এই আন্দোলন আন্তর্জাতিকভাবেও স্বীকৃতি পাইয়াছে। এখন, বিশ্বের প্রায় ৮০টি দেশে ১লা মে জাতীয় ছুটির দিন। আরও অনেক দেশে ইহা বেসরকারিভাবেও পালিত হয়।

পৃথিবীর মেহনতি মানুষের জন্য মে দিবস খুবই তাত্পর্যময়। যেকোনো দেশের উত্পাদন, অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সমৃদ্ধিতে শ্রমিকেরাই অন্যতম চালিকা শক্তি হিসাবে কাজ করে। শ্রমিক আন্দোলনের প্রধান বিষয় ছিল শ্রমঘণ্টা নির্ধারণ। অর্থাত্ শ্রমিকরা তাহাদের মজুরির বিনিময়ে দৈনিক কত ঘণ্টা শ্রম দান করিবে, তাহা নির্ধারণ এবং শ্রমের বিনিময়ে যথার্থ মজুরির দাবিই ছিল শ্রমিক আন্দোলনের প্রধান বিষয়। ইতোমধ্যে মে দিবস ১২৭ বত্সর অতিক্রম করিয়াছে। শ্রমিকের ঘাম শুকাইবার আগেই তাহার পাওনা পরিশোধের কথা তো সেই চৌদ্দশত বত্সর আগেই বলা হইয়াছে। বর্তমানে আমাদের দেশে শ্রমজীবী মানুষের সংখ্যা প্রায় ৬ কোটি। তাহাদের শ্রমে-ঘামে শুধু যে নিজ নিজ পরিবারের জীবিকার চাকা ঘোরে তাহাই নহে, একই সাথে ঘুরিয়া চলিয়াছে আমাদের জাতীয় অর্থনীতির চাকাও।

কিন্তু, টেকসই উন্নয়নের কথা ভাবিতে হইলে, দেশ এবং এই দেশের শ্রমিকদের ভাগ্যোন্নয়নের কথা ভাবিতে হইলে আমাদেরকে প্রতিযোগিতাপূর্ণ বিশ্বব্যবস্থার দিকেও তাকাইতে হইবে। প্রতিটি অর্থনৈতিক বলয় একটি আরেকটির সঙ্গে যুক্ত হইয়া একটি অভিন্ন বাজার ও প্রতিযোগিতার ক্ষেত্র তৈরি করিয়াছে। একজন শ্রমিক কত ঘণ্টা শ্রমদান করিল, তাহা মাপিয়াই অর্থনৈতিক সাফল্য বা ব্যর্থতা পরিমাপ করা সম্ভব নহে। বিশেষভাবে দক্ষ কেহ দুই ঘণ্টা শ্রম দিয়া যাহা আয় করিতে পারেন, একজন অদক্ষ শ্রমিকের পক্ষে দিনে ২০ ঘণ্টা শ্রম দিয়াও তাহা উপার্জন করা সম্ভব নাও হইতে পারে। বাংলাদেশের বহুমানুষ বিদেশে শ্রমদান করিতেছে, কিন্তু তুলনামূলকভাবে আমাদের বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের পরিমাণ নিতান্তই নগণ্য। কারণ, বিদেশে কর্মরত আমাদের বেশিরভাগ শ্রমিকই অদক্ষ। দক্ষতার অভাবে বাংলাদেশেও বেশিরভাগ বিশেষায়িত পেশাগুলি হইতে অর্থ চলিয়া যাইতেছে বিদেশে। অনেক বাজারও আমরা ধরিতে পারিতেছি না একই কারণে। তাই, শ্রমিক দিবসে শ্রমিকের অধিকারের কথা ভাবিবার পাশাপাশি, বর্তমান বিশ্বে টিকিয়া থাকিবার মতো দক্ষ শ্রমিক গড়িয়া তুলিবার দিকেও আমাদের মনোযোগ নিবিষ্ট হওয়া প্রয়োজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here