প্রস্তাবিত তিস্তা চুক্তি ও পূর্বাপর

0
209

ড. আইনুন নিশাত : মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এবারের ভারত সফরে তিস্তার পানিবণ্টন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকা চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হবে বলে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে সফরের আগে এক প্রকার ঝড় তোলা হয়েছিল। অথচ বারবার করে বিভিন্ন দায়িত্বশীল মহল থেকে বলা হচ্ছিল, এমন কোনো সম্ভাবনা অন্তত এই সফরের সময় নেই বললেই চলে। ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার, বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব, বাংলাদেশের পানিসম্পদমন্ত্রী সফরের আগেই বিভিন্ন সময়ে প্রাঞ্জল ভাষায় এ ব্যাপারে বক্তব্য দিয়েছেন। তারা পরিষ্কার বলে দিয়েছিলেন, এই সফরের সময় তিস্তা নিয়ে কোনো চুক্তি হচ্ছে না। তারপরও কেন সংবাদমাধ্যমে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে ‘হাইপ’ তোলা হলো, সেটা একটা প্রশ্ন হিসেবে গবেষণার জন্য রাখা যেতে পারে।

এই সফরের সময় চুক্তিটি হওয়া না হওয়ার মধ্যে কোনো কারিগরি বিষয় আলোচনার প্রয়োজন ছিল না। উপরন্তু বলা যায়, ২০১১ সালের জানুয়ারি মাসেই চুক্তিটির খসড়া দুই দেশের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা চূড়ান্ত করে ফেলেছিলেন। বাকি ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকভাবে চুক্তিতে স্বাক্ষর করা এবং চুক্তিটি কার্যকর করা। আমরা জানি, ওই সময়, ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে সব আনুষ্ঠানিকতা প্রস্তুত ছিল। কথা ছিল, ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং ঢাকায় এসে চুক্তিতে স্বাক্ষর করবেন। কিন্তু মাত্র একদিন আগে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আপত্তি জানিয়ে ঢাকা সফর বাতিল করায় তা ভেস্তে গিয়েছিল। তার পরের ইতিহাস সবারই জানা। আমি যতদূর ধারণা করতে পারি, চূড়ান্ত খসড়াটি ২০১১ সালের অবস্থাতেই রয়েছে। তার পরের পরিস্থিতির কোনো পরিবর্তন হয়নি।

আসলে কোনো চুক্তির বিষয়াবলি কারিগরি পর্যায়ে চূড়ান্ত হওয়ার পর এর স্বাক্ষরের বিষয়টি পুরোপুরি নির্ভর করে দুই দেশের রাজনৈতিক সম্পর্কের ওপর। আমরা দেখছি, বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্ক ক্রমাগত উন্নতি লাভ করছে, আরও উন্নতির রাস্তায় এগোচ্ছে। তারপরও কেন তিস্তা চুক্তি ঝুলে আছে? কারণ, দুই দেশের রাজনৈতিক সম্পর্কের মাত্রার পাশাপাশি পক্ষভুক্ত দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক পরিস্থিতির ওপরও বিষয়টি বহুলাংশে নির্ভর করে। তবে দুই দেশের কেন্দ্রীয় সরকারের মধ্যেই আলোচনা হবে। একটি দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি অন্য দেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তোলার ক্ষেত্রে কোনোরূপ বাধার সৃষ্টি করবে না। যদিও আমি এই লেখার প্রথমেই বলেছি যে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এবারের সফরে তিস্তা চুক্তি হওয়ার আশা করাটা ঠিক হয়নি। তবুও বলছি, যেহেতু সংবাদমাধ্যমে এ ব্যাপারে সম্ভাবনার আলো দেখানো হয়েছিল এবং সেই সম্ভাবনা মুখ থুবড়ে পড়ার কারণে সাধারণ মানুষের মনে দুই দেশের সম্পর্ক বিষয়ে একটু শঙ্কার ছায়া পড়ছে, তা বলা বাহুল্য।

ভারতের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক পরিস্থিতি অবশ্যই দেশটির নিতান্ত নিজস্ব বিষয়। কিন্তু এটা মানতেই হবে, তিস্তা চুক্তির প্রশ্নে এখন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের রাজনৈতিক পরিস্থিতি দেশটির কেন্দ্রকে প্রভাবিত করে চলছে। এই কারণে চুক্তিটি কবে নাগাদ স্বাক্ষরিত হবে, কবে নাগাদ কার্যকর হবে; চুক্তিটি ভারতের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির কালো ছায়ার প্রভাবমুক্ত হতে কতদিন সময় লাগবে, তা নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েই গেছে।

এবারের সফরে দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে আলোচনার পর ৮ এপ্রিল প্রকাশিত যৌথ বিবৃতিটি দেখা যেতে পারে। এর ৪০ নম্বর অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে- বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়েছেন যে, ২০১১ সালে পানিবণ্টনের যে অন্তর্বর্তীকালীন চুক্তিটির বিষয়ে সমঝোতা হয়েছে, সেটিকে অনতিবিলম্বে চূড়ান্ত করতে হবে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী এই লক্ষ্যে অনতিবিলম্বে কাজ সম্পন্ন করার জন্য তার সরকারের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছেন।

এখানে আমি ‘অন্তর্বর্তীকালীন’ শব্দটির ওপর আলোকপাত করতে চাই। চুক্তিটি চূড়ান্ত হয়েই আছে; শুধু পানিবণ্টন ব্যবস্থাটি সুচারুরূপে কার্যকর করার জন্য হয়তো কিছু কারিগরি সমীক্ষা চালাতে হতে পারে। গজলডোবা ব্যারাজ যেহেতু বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত থেকে অনেক দূরে অবস্থিত এবং যেহেতু বণ্টনের ব্যবস্থাটি গজলডোবাতেই পরিমাপ করতে হবে; সেহেতু দুই দেশের সীমানায় প্রাপ্ত পানির সঙ্গে গজলডোবায় প্রাপ্ত পানির একটি গাণিতিক সূত্র দাঁড় করাতে হবে। এ কাজটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার পরেই করার কথা।

‘অন্তর্বর্তীকালীন চুক্তি’ শব্দবন্ধটিকে আমি একটু অন্যভাবে দেখতে চাই। ২০১১ সালে দুই দেশ সম্মত হয়েছিল যে অববাহিকাভিত্তিক পানি ব্যবস্থাপনায় উদ্যোগী হওয়ার জন্য। অন্তর্বর্তীকালীন চুক্তিটি বোধ করি শুকনো মৌসুমে পানিবণ্টনের জন্য কার্যকর হবে। এটা তিস্তা নদী ব্যবস্থাপনার প্রথম পদক্ষেপ হতে পারে। পরবর্তী পদক্ষেপে সাংবৎসরিক ব্যবস্থাপনার কথা ভাবতে হবে।

তিস্তা নদীতে প্রতি বছরই তীব্র বন্যা হয়, মনে রাখতে হবে। বাংলাদেশের লালমনিরহাট, নীলফামারী, রংপুর অঞ্চলের অধিবাসীরা এর ভুক্তভোগী। প্রায় প্রতি বছরই তিস্তা অববাহিকার কোথাও না কোথাও নদীভাঙন দেখা দেয়। এ দুটি সমস্যার দিকেও নজর দিতে হবে দুই দেশকে। তিস্তা নদীর উজানে পানিবিদ্যুৎ উৎপাদনের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে এবং ভারত ইতিমধ্যে কয়েকটি ড্যামের মাধ্যমে পানিবিদ্যুৎ উৎপাদন করছে। কিন্তু ওই সম্ভাবনার পূর্ণ সদ্ব্যবহার করতে পারছে বলে মনে হয় না। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সঙ্গেও অংশীদারিত্ব গড়ে তোলার কথা ভাবা যেতে পারে। দুই দেশের মধ্যে এই নদীর মাধ্যমে, ওই নদীর মাধ্যমে নৌ যোগাযোগ প্রতিষ্ঠা, মৎস্য সম্পদের প্রবৃদ্ধি ও অববাহিকাভিত্তিক ব্যবস্থাপনার অন্যান্য সুবিধা ভাগাভাগির ব্যবস্থা গড়ে তোলার দিকে মনোযোগ দেওয়া যেতে পারে। তার মানে, অববাহিকাভিত্তিক ব্যবস্থাপনার দিকে এগোতে গেলে এ অন্তর্বর্তীকালীন চুক্তিটিকে ভিত্তি করেই এগোতে হবে। এ জন্য তিস্তা নদীর সামগ্রিক ও সাংবৎসরিক ব্যবস্থাপনার লক্ষ্যে যৌথ কারিগরি টিম কাজ করতে পারে। তবে তা অবশ্যই দুই দেশের রাজনৈতিক মহলের নির্দেশনা অনুযায়ী অগ্রসর হবে।

আমরা দেখেছি, ২০১৫ সালের জুন মাসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের সময় তিস্তা চুক্তি স্বাক্ষরিত হতে দেরি হওয়ার কারণ হিসেবে যে কথা বলা হয়েছিল, আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এবারের দিলি্ল সফরের সময়ও একই ভাষায় একই কথা বলা হয়েছে। কথাটি হলো, ভারত তাদের সব স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে তাদের সম্পৃক্ত করেই তিস্তা চুক্তির ব্যাপারে সিদ্ধান্তে পেঁৗছবে। এ কাজটি অবশ্যই প্রয়োজন; তবে এটা যত দ্রুত সম্ভব সম্পন্ন করতে হবে। সেটাই হবে উভয় দেশের জন্য মঙ্গলজনক।

এবার সফরে ৮ এপ্রিল প্রকাশিত যৌথ বিবৃতিতে তিস্তা ইস্যুর পাশাপাশি দুই দেশের মধ্যে প্রবাহিত অন্য সাতটি অভিন্ন নদীর প্রসঙ্গও এসেছে। এই সাত নদীর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট অফিসিয়ালদের নির্দেশ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে বিবৃতিতে। ২০১৫ সালের যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছিল- মনু, মুহুরী, খোয়াই, গোমতী, ধরলা ও দুধকুমার- এই ছয়টি নদী নিয়ে যৌথ নদী কমিশনের অধীনে কারিগরি পর্যায়ে আলোচনা হচ্ছে এবং নদীগুলোর বিষয়সমূহের চুক্তি যথাশিগগিরই চূড়ান্ত করতে হবে। প্রসঙ্গত বলা যেতে পারে যে, এই ছয়টি নদী নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আলোচনা শুরু হয়েছে ১৯৮৩ সালে। অর্থাৎ দুই দেশের মধ্যে অভিন্ন নদীগুলোর মধ্য থেকে এই ছয়টি নদীকে গুরুত্ব দিয়ে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছিল। ২০১৭ সালে এসে এ বিষয়ে দুটি পরিবর্তন লক্ষ্য করছি। প্রথমত, সপ্তম নদী হিসেবে ফেনী নদীর নাম তালিকাভুক্ত হয়েছে। দ্বিতীয় পয়েন্ট হচ্ছে, এবারে কারিগরি মহলকে টানা হয়নি। অর্থাৎ আমরা অনুমান করতে পারি, কারিগরি আলোচনা-পরবর্তী ধাপে পেঁৗছেছে এই সাত নদীর চুক্তির বিষয়টি। আমি শুধু দেখতে চাইব, এই সাত নদীর ক্ষেত্রে প্রত্যেক নদীর জন্য পৃথক চুক্তি হয়েছে। এটাই যৌক্তিক। প্রতিটি নদীকে স্বতন্ত্রভাবে বিবেচনা করতে হবে। অর্থাৎ ফেনী নদীর সঙ্গে মুহুরী নদীকে বা ধরলা নদীর সঙ্গে তিস্তা নদীকে মিলিয়ে ফেলার কোনো যৌক্তিকতা নেই। কারিগরিভাবেও তা গ্রহণযোগ্য নয়। আমার বিশ্বাস, রাজনৈতিক মহলেও এ ব্যাপারে কোনো অস্পষ্টতা নেই।

শেষ করার আগে প্রসঙ্গক্রমে আরও দুই-একটি তথ্য দিতে চাই। দুই দেশের মধ্যে আরও ১০-১২টি নদী নিয়ে আলোচনা সূত্রপাত হয়েছে। এই মুহূর্তে যে নদীগুলোর নাম মনে পড়ছে, তা হচ্ছে- নিতাই, ভোগাই, যাদুকাটা, মহানন্দা, আত্রাই ইত্যাদি। এর বাইরেও যেখানে একটি নদী দুই দেশের সীমানাকে নির্ধারণ করে, অর্থাৎ নদীটি দুই দেশের সীমানাকে চিহ্নিত করে, সেখানে নদীশাসন করে নদীটিকে যথাযথ স্থানে রাখার বিষয়ে আলোচনা চলছে। বেশ কিছু জায়গায় ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে নদীটিকে পুনরুজ্জীবিত করার কথাও বলা হচ্ছে। যৌথ নদী কমিশনের আওতায় সীমান্তবর্তী এলাকার পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী মহোদয়গণ তাদের সমকক্ষ ভারতীয় কর্মকর্তার সঙ্গে আলোচনার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত। স্থানীয় পর্যায়ে নদীভাঙন রোধ এবং নদীকে পলিমুক্ত করে নদীর নাব্য বজায় রাখা তথা নদীটিকে সচল রাখার বিষয়ে আরও গুরুত্ব দেওয়া যেতে পারে।

পানি বিশেষজ্ঞ; ইমেরিটাস অধ্যাপক, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here