বন্যপ্রাণী পাচার

0
293

গত ১৩ নভেম্বরের ঘটনা। একটি সংঘবদ্ধ চক্র রাজধানীর উত্তরা হইতে ভারতে পাচারের জন্য বিলাসবহুল প্রাডো গাড়িতে করিয়া দুইটি সিংহ ও দুইটি চিতা বাঘের শাবক বেনাপোল নিয়া যাইতেছিল। খবর পাইয়া পথিমধ্যে যশোরের চাঁচড়া চেকপোস্টে তল্লাশি চালাইয়া পুলিশ দুইটি বাক্সের মধ্য হইতে ঐ শাবকগুলি উদ্ধার করে। শাবকগুলি বর্তমানে গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের বন্যপ্রাণী হাসপাতাল ইউনিটের সঙ্গ নিরোধ কক্ষে নিবিড় পরিচর্যা ও পর্যবেক্ষণে রহিয়াছে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের মতে, দেশে সিংহ পাচারের ঘটনা ইহাই প্রথম। কারণ বাংলাদেশে কোনো সিংহ নাই। দেশে যতগুলি সিংহ আছে, তাহা বিভিন্ন দেশ হইতে আমদানি করা। তাহাছাড়া আটককৃত প্রজাতির চিতা বাঘও বাংলাদেশে বিরল। কালেভদ্রে দেখা যায় পাহাড়ি অঞ্চলে। বিশেষ করিয়া সিলেটের চা বাগান এবং ভারতের মেঘালয়, আসাম ও মিজোরামে। অনেকে এই প্রাণীটিকে ‘চিতা বেড়াল’ নামেও চেনেন যাহাকে ইংরেজিতে বলা হয় লেপার্ড ক্যাট। এই শাবকগুলির মধ্যে লেপার্ড ক্যাটের বয়স আনুমানিক দেড় মাস। অন্যদিকে সিংহ শাবক দুইটির বয়স আনুমানিক আড়াই মাস। এই চারটি প্রাণীর বাজারমূল্য প্রায় চার কোটি টাকা। এখন প্রশ্ন হইল, মহামূল্যবান এই শাবকগুলি কোথা হইতে আসিল? বাংলাদেশ কি তবে বন্যপ্রাণী পাচারের ট্রানজিট রুট হিসাবে ব্যবহূত হইতেছে? এই ঘটনার রহস্য উন্মোচনের মধ্য দিয়া তাহা নিশ্চিত হওয়া যাইতে পারে। এইজন্য ইহার পূর্ণ ও পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্তের দাবি সকলের।

উদ্বেগজনক বিষয় হইল, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী বন্যপ্রাণী পাচারের তালিকায় রহিয়াছে বাংলাদেশের নামও। এই প্রতিবেদনটি গত শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে উত্থাপন করা হয়। ব্রাজিল, চীন, মিয়ানমার, থাইল্যাণ্ড, ইন্দোনেশিয়া, মেক্সিকো, দক্ষিণ আফ্রিকা, নাইজেরিয়া, উগাণ্ডা, ভারত ও বাংলাদেশসহ ২৬টি দেশকে বন্যপ্রাণী পাচারের ক্ষেত্রে বিশেষ নজরদারি বা ফোকাস দেশের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হইয়াছে। সারা পৃথিবীতে বন্যপ্রাণী নিধন ও পাচার বাণিজ্যের কথা আমরা কমবেশি জানি। বিভিন্ন বন্যপ্রাণী যেমন সরাসরি পাচার চলিতেছে, তেমনি বাঘ, সিংহ, গণ্ডার, হাতিসহ বৃহত্ প্রাণীগুলি নৃশংসভাবে হত্যা করিয়া তাহার মূল্যবান অঙ্গপ্রতঙ্গ ও চামড়া পাচার করা হইতেছে। অতএব, সমপ্রতি যশোরে চারটি শাবক উদ্ধারের ঘটনাটিকে হালকা করিয়া দেখিবার অবকাশ নাই। ইহা আন্তর্জাতিক বন্যপ্রাণী চোরাচালানের অংশও হইতে পারে। বাংলাদেশে এই চক্রের হোতাদের চিহ্নিত করিয়া গ্রেফতারপূর্বক যথাযথ শাস্তির ব্যবস্থা করিতে হইবে যাহাতে কেহ এই দেশকে বন্যপ্রাণী পাচারের রুট হিসাবে ব্যবহার করিতে না পারে। ইতোমধ্যে এই ধরনের অপরাধ দমনের জন্য বন অধিদপ্তর হইতে বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন বিষয়ক একটি আলাদা বিভাগ চালু করা হইয়াছে। এখন কোন্ ধরনের বন্যপ্রাণী কোন্ কোন্ দেশে পাচার হইতেছে তাহা জরিপ করিয়া দেখা দরকার। এই ব্যাপারে আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক সহযোগিতা জোরদার করাও একান্ত আবশ্যক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here