বাংলাদেশে ভালো করতে চান ম্যাক্সওয়েল

0
206

ক্রীড়া ডেস্ক: সব কিছু স্বাভাবিক গতিতে চললে বাংলাদেশে টেস্ট খেলতে আসার কথাই ছিল না গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের। তবে চলতি বছরে ভারতের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে সাদা পোশাকে নিজেকে মেলে ধরতে সক্ষম হন তিনি। আর তাই, অনুমিত ভাবেই জায়গা হয়ে যায় বাংলাদেশ সফরের দলে। আর বাংলাদেশের মাটিতেও ভালো করার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী তিনি।

বাংলাদেশ সফরকে সামনে রেখে এক সপ্তাহের কন্ডিশনিং ক্যাম্প করছে অস্ট্রেলিয়ানরা। কন্ডিশনিং ক্যাম্পটা চলছে ডারউইনে। ডারউইনের জলবায়ুর সঙ্গে বাংলাদেশের মিল আছে। সেজন্যই জায়গাটা বেছে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার টিম ম্যানেজমেন্ট।

সেখানেই অনুশীলনের ফাঁকে ম্যাক্সওয়েল জানালেন নিজের আত্মবিশ্বাসের কথা। বললেন, ‘গত এক মাস ধরে আমি কঠোর অনুশীলন করে আসছি। চেষ্টা করে আসছি যতটা সম্ভব নিজেকে তৈরি করার। আমি অনুশীলনে দৌড়াচ্ছি এবং যতটা সম্ভব ব্যাটিং করে যাচ্ছি, পাশাপাশি বোলিং নিয়েও কাজ করছি এবং চেষ্টা করছি নিজেকে প্রস্তুত করে তুলতে। বাংলাদেশের মাটিতে ভালো করার ব্যাপারে আমি আশাবাদী।’

২০১২ সালে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটিং অলরাউন্ডার গ্ল্যান ম্যাক্সওয়েলের। এরপর থেকেই একটু একটু করে প্রতিনিয়ত নিজের সামর্থ্যের প্রমাণ দিয়ে দলের অপরিহার্য অংশ হয়ে উঠেছেন তিনি।

এখন পর্যন্ত ৫টি টেস্ট ম্যাচে ২৩.৯০ গড়ে ২৮৯ রান সংগ্রহ করেছেন এই অজি ক্রিকেটার। গত বছর রাঁচি টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট দল থেকে বাদ পড়েছিলেন ম্যাক্সওয়েল। তবে পরবর্তীতে মিচেল মার্শের ইনজুরিতে দলে ডাক পান এই অজি ব্যাটিং অলরাউন্ডার। আর হঠাত্ সুযোগ পেয়েই নিজের জাত চেনাতে সক্ষম হন তিনি। প্রথম ইনিংসেই তুলে নেন নিজের অভিষেক টেস্ট সেঞ্চুরি।

এখন পর্যন্ত ৭৭টি ওয়ানডে ম্যাচে ৩২.৯৫ গড়ে ১৯৭৭ রান সংগ্রহ করেছেন ম্যাক্সওয়েল। ওয়ানডেতে এক সেঞ্চুরি আর ১৫টি হাফ সেঞ্চুরির মালিক এখনো টেস্টে নিজের জায়গা পাকাপোক্ত করতে পারেননি। তবে বাংলাদেশ সফরে রানের মধ্যে থেকে সেই অনিশ্চয়তাও দূর করতে মরিয়া তিনি।

২৮ বছর বয়সী ম্যাক্সওয়েল বলেন, ‘দলে আবারো অন্তর্ভুক্ত হতে পারাটা দারুণ অর্জন ছিল। টেস্টের প্রথম ইনিংসে যা করতে পেরেছি তা নিয়ে আমি গর্বিত। এটি আমার জন্য অনেক বিশেষ কিছু ছিল এবং সামনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য তা আমাকে অনেক আত্মবিশ্বাস দিয়েছে। এবার সেটা ধরে রেখে দলে জায়গা নিশ্চিত করতে হবে।’

দুটি টেস্ট খেলার জন্য আগামী ১৮ আগস্ট বাংলাদেশে পৌঁছানোর কথা স্টিভেন স্মিথের দলের। এরপর ২২-২৪ আগস্ট ফতুল্লায় প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে অজিরা। তারপর শুরু হবে মূল সিরিজ। ২৭-৩১ আগস্ট প্রথম টেস্ট ঢাকায় ও ৪-৮ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় টেস্ট চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হবে।

২০১৫ সালেই দুই টেস্ট খেলতে বাংলাদেশের আসার কথা ছিল দলটির। তবে, নিরাপত্তার ইস্যুতে সেই সিরিজ স্থগিত করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)। একই কারণে গত বছরের শুরুতে অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপেও দল পাঠায়নি তারা। তবে, ২০১৬ সালে অবস্থার উন্নতি হয়। তিন দফা বাংলাদেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ শেষে সিএ-কে সবুজ সংকেত দেন তাদের নিরাপত্তা বিষয়ক পরামর্শক শন ক্যারোল। তারই প্রেক্ষিতে বাংলাদেশে দল পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিল সিএ।

এর মধ্যেই বোর্ডের সঙ্গে বেতন-ভাতা নিয়ে জটিলতা ঘোলাটে হতে শুরু করে ক্রিকেটারদের। তবে, সেই সংকট কেটে গেছে। দলও ঘোষণা হয়ে গেছে। অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা মুখিয়ে আছে বাংলাদেশ সফরের জন্য। মুশফিকুর রহিমের দলও পুরোদমে ব্যস্ত অনুশীলনে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here